alt

সম্পাদকীয়

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

: মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর ২০২২

দখল-দূষণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে লক্ষ্মীপুরের ঐতিহ্যবাহী রহমতখালী খাল। প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করে দখল করে রেখেছে খালের দুই পাড়। লক্ষ্মীপুর শহরের বিভিন্ন বাজারসহ অন্যান্য এলাকায় নির্বিচারে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে খালে। ফলে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে পানি। দেখা দিচ্ছে পানিবাহিত বিভিন্ন রোগবালাই, নষ্ট হচ্ছে জীববৈচিত্র্য, বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ। তাছাড়া খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় ঠিকমতো পানি নিষ্কাশন হয় না। অল্প বৃষ্টিতেই দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট এলাকার জনসাধারণের। এ নিয়ে গতকাল সোমবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ, মান্দারি, জকসিন, মাদাম ও পৌর শহরের বাজারের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত খালটির দৈর্ঘ্য ৩৭ কিলোমিটার। এক সময় ভোলা-বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বাণিজ্যিক পণ্যসামগ্রী নিয়ে স্টিমার ও নৌকায় আসা-যাওয়া করতেন ব্যবসায়ীরা। এ খালের পানি দিয়েই বিভিন্ন মৌসুমে ধান ও সবজির চাষ করতেন কৃষকরা। কিন্তু এসব এখন শুধুই অতীত। স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে দখল-দূষণে প্রবহমান খালটি এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে।

একসময় প্রবাহিত নদী-খাল ঘিরেই দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছিল হাটবাজার ও ব্যবসাকেন্দ্র। নদী-খালকে কেন্দ্র করেই বহু মানুষ জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতেন। কৃষকেরা সেচ কাজে পানি ব্যবহার করতেন। জীবিকার জন্য জেলেরা রাতদিন নৌকা দিয়ে মাছ ধরতেন। প্রশ্ন হচ্ছে, নদী-খালগুলো সেই রূপ, প্রকৃতি ও পরিবেশ বজায় আছে কি না। কারণ মানুষ খালকে খাল রাখছেনা, জলাশয়কে জলাশয় রাখছে না, এমনকি নদীকেও নদী রাখছে না।

শুধু লক্ষ্মীপুরেই নয়, সারাদেশেই নদী-খাল দখল-দূষণের মহোসৎব চলছে। চর পড়ে এবং দখল-দূষণের কারণে দেশের নদী-খালগুলো এখন মৃতপ্রায়। হারিয়ে যাওয়ার পথে বহু নদী-খাল-জলাশয়। নদীর ধারে গড়ে উঠেছে শিল্প ও কলকারখানা, অপরিকল্পিতভাবে দেয়া হচ্ছে শত শত বাঁধ। যখন যেভাবে প্রয়োজন তখন সেভাবে নদী-খাল-জলাশয় ব্যবহার করা হচ্ছে। ভরাট করে দখল করার উৎসবে মেতে উঠেছে প্রভাবশালীরা। সারাদেশ যেন এখন নদী-খাল-জলাশয় বৈরী দেশে পরিণত হয়েছে।

মানুষের অবিবেচনাপ্রসূত কার্যকলাপের দেশের নদ-নদীর অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়েছে। প্রকৃতির একটা অবিচ্ছেদ্য অংশকে এভাবে ধ্বংস করলে তার কুফল ভোগ করতে হবে সবাইকে। দূষণের কারণে বহু নদী আক্ষরিক্ষ অর্থেই ভাগাড়ে পরিণত করছে। নদ-নদীর অস্তিত্ব বিপন্ন হওয়ার কারণে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হচ্ছে, পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা নানা হিসাব কষে দেখিয়েছেন যে, এতে মানুষের জীবন ও জীবিকাও ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। নদী-খাল দখল-ভরাট-সংকুচিত হয়ে যাওয়ায় সারা দেশে বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের একটা সংযোগ রয়েছে। এর পেছনে দায় রয়েছে মানুষেরই।

কিন্তু এসব বিষয়ে মানুষের কোন ভাবনা আছে বলে মনে হয় না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়-দায়িত্বও প্রশ্নবিদ্ধ। তারা দখল ও দূষণমুক্ত করার কাজ ঠিকমতো করে না বলে প্রায়ই অভিযোগ মেলে। লক্ষ্মীপুরের রহমতখালী খালের প্রশ্নেও এমনটা ঘটছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। মানুষ যদি সচেতন না হয়, কর্তৃপক্ষ যদি সজাগ না হয়-তাহলে পর্যায়ক্রমে দেশের সব জলাশয়গুলোর একই পরিণতি ভোগ করতে হবে।

ভেজাল সার বিক্রি বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নিন

রেলের দখল হওয়া জমি উদ্ধার করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধে দৃশ্যমান ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালের স্বাস্থ্যসেবায় প্রতিবন্ধকতা দূর করুন

ঝিনাই নদীর সেতুটি দ্রুত সংস্কার করুন

পাহাড় রক্ষা করবে কে

শিক্ষার্থীদের আত্মহত্যা রোধে সমন্বিত প্রয়াস চালাতে হবে

জন্মনিবন্ধন সনদ জালিয়াতি প্রসঙ্গে

শিশুশ্রম নিরসনে প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকুক

ভূ-গর্ভস্থ পানির অপচয় বন্ধে পদক্ষেপ নিন

বায়ুদূষণ রোধে টেকসই ব্যবস্থা নিন

নদীর মাটি কাটা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কারাগারে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হওয়ার সুযোগ মেলে কীভাবে

সেতুটি সংস্কার করুন

বাসের রং ও নাম বদলে কি সড়ককে নিরাপদ করা যাবে

নদী দখলদারদের তালিকা প্রসঙ্গে

সেচের সময় বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা জরুরি

চিংড়ি ঘেরকেন্দ্রিক চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণ করুন

ফসলি জমির মাটি কাটা প্রসঙ্গে

খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির চাল চুরির নেপথ্যের শক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও স্থানীয় বাসিন্দাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

সেচের পানি পেতে কৃষকদের এত ভোগান্তি কেন

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার পথে বাধা দূর হোক

পাঠ্যবইয়ে ভুল : ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখার সুযোগ নেই

কম উচ্চতার সেতু বানানোর অপসংস্কৃতির অবসান চাই

জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা বাতিল : একটি ভালো সিদ্ধান্ত

সংরক্ষিত বনের গাছ কাটা বন্ধ করুন

কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার সংকট দূর করুন

দ্রুত বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্র্মাণ করুন

সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে অনিয়মের অভিযোগ সুরাহা করুন

নার্স সংকট নিরসন করুন

সমুদ্রপথে রোহিঙ্গা পাচার প্রসঙ্গে

অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

পরিবেশ রক্ষায় চাই সবার অংশগ্রহণ

নিপাহ ভাইরাস প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

tab

সম্পাদকীয়

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর ২০২২

দখল-দূষণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে লক্ষ্মীপুরের ঐতিহ্যবাহী রহমতখালী খাল। প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ করে দখল করে রেখেছে খালের দুই পাড়। লক্ষ্মীপুর শহরের বিভিন্ন বাজারসহ অন্যান্য এলাকায় নির্বিচারে ময়লা-আবর্জনা ফেলা হচ্ছে খালে। ফলে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে পানি। দেখা দিচ্ছে পানিবাহিত বিভিন্ন রোগবালাই, নষ্ট হচ্ছে জীববৈচিত্র্য, বিপন্ন হচ্ছে পরিবেশ। তাছাড়া খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় ঠিকমতো পানি নিষ্কাশন হয় না। অল্প বৃষ্টিতেই দেখা দেয় জলাবদ্ধতা। চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে সংশ্লিষ্ট এলাকার জনসাধারণের। এ নিয়ে গতকাল সোমবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ, মান্দারি, জকসিন, মাদাম ও পৌর শহরের বাজারের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত খালটির দৈর্ঘ্য ৩৭ কিলোমিটার। এক সময় ভোলা-বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বাণিজ্যিক পণ্যসামগ্রী নিয়ে স্টিমার ও নৌকায় আসা-যাওয়া করতেন ব্যবসায়ীরা। এ খালের পানি দিয়েই বিভিন্ন মৌসুমে ধান ও সবজির চাষ করতেন কৃষকরা। কিন্তু এসব এখন শুধুই অতীত। স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে দখল-দূষণে প্রবহমান খালটি এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে।

একসময় প্রবাহিত নদী-খাল ঘিরেই দেশের বিভিন্ন স্থানে গড়ে উঠেছিল হাটবাজার ও ব্যবসাকেন্দ্র। নদী-খালকে কেন্দ্র করেই বহু মানুষ জীবন-জীবিকা নির্বাহ করতেন। কৃষকেরা সেচ কাজে পানি ব্যবহার করতেন। জীবিকার জন্য জেলেরা রাতদিন নৌকা দিয়ে মাছ ধরতেন। প্রশ্ন হচ্ছে, নদী-খালগুলো সেই রূপ, প্রকৃতি ও পরিবেশ বজায় আছে কি না। কারণ মানুষ খালকে খাল রাখছেনা, জলাশয়কে জলাশয় রাখছে না, এমনকি নদীকেও নদী রাখছে না।

শুধু লক্ষ্মীপুরেই নয়, সারাদেশেই নদী-খাল দখল-দূষণের মহোসৎব চলছে। চর পড়ে এবং দখল-দূষণের কারণে দেশের নদী-খালগুলো এখন মৃতপ্রায়। হারিয়ে যাওয়ার পথে বহু নদী-খাল-জলাশয়। নদীর ধারে গড়ে উঠেছে শিল্প ও কলকারখানা, অপরিকল্পিতভাবে দেয়া হচ্ছে শত শত বাঁধ। যখন যেভাবে প্রয়োজন তখন সেভাবে নদী-খাল-জলাশয় ব্যবহার করা হচ্ছে। ভরাট করে দখল করার উৎসবে মেতে উঠেছে প্রভাবশালীরা। সারাদেশ যেন এখন নদী-খাল-জলাশয় বৈরী দেশে পরিণত হয়েছে।

মানুষের অবিবেচনাপ্রসূত কার্যকলাপের দেশের নদ-নদীর অস্তিত্ব বিপন্ন হয়ে পড়েছে। প্রকৃতির একটা অবিচ্ছেদ্য অংশকে এভাবে ধ্বংস করলে তার কুফল ভোগ করতে হবে সবাইকে। দূষণের কারণে বহু নদী আক্ষরিক্ষ অর্থেই ভাগাড়ে পরিণত করছে। নদ-নদীর অস্তিত্ব বিপন্ন হওয়ার কারণে জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হচ্ছে, পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা নানা হিসাব কষে দেখিয়েছেন যে, এতে মানুষের জীবন ও জীবিকাও ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। নদী-খাল দখল-ভরাট-সংকুচিত হয়ে যাওয়ায় সারা দেশে বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের একটা সংযোগ রয়েছে। এর পেছনে দায় রয়েছে মানুষেরই।

কিন্তু এসব বিষয়ে মানুষের কোন ভাবনা আছে বলে মনে হয় না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়-দায়িত্বও প্রশ্নবিদ্ধ। তারা দখল ও দূষণমুক্ত করার কাজ ঠিকমতো করে না বলে প্রায়ই অভিযোগ মেলে। লক্ষ্মীপুরের রহমতখালী খালের প্রশ্নেও এমনটা ঘটছে কিনা সেটা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেয়া দরকার। মানুষ যদি সচেতন না হয়, কর্তৃপক্ষ যদি সজাগ না হয়-তাহলে পর্যায়ক্রমে দেশের সব জলাশয়গুলোর একই পরিণতি ভোগ করতে হবে।

back to top