alt

সম্পাদকীয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

: বুধবার, ২৩ নভেম্বর ২০২২

লোকবল ও ট্রেন সংকটের কারণে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট রেলস্টেশন। শুধু স্টেশনই নয়, বন্ধ রয়েছে খুলনা, রাজশাহী থেকে চলাচলকারী কয়েকটি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেনও। ফলে এ পথে সরাসরি যাতায়াতে যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। দীর্ঘদিন বন্ধ রয়েছে পণ্যবাহী শিলিগুড়ি ট্রেনটিও। এ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দেশে শুধু যে এই একটি রেলস্টেশন বন্ধ হয়েছে তা নয়। এ পর্যন্ত দেশে রেলওয়ের ১১৬টি স্টেশন বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৭০টি স্টেশন বন্ধ হয়েছে রেওয়ের পশ্চিমাঞ্চলে। আর পূর্বাঞ্চলে বন্ধ হয়েছে ৪৬টি। শুধু স্টেশনই নয় করোনা মহামারীর সময় বন্ধ হয়েছে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের ১৪টি রুটের ৪২টি লোকাল ট্রেনও। স্টেশন ও ট্রেনগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সংশ্লিষ্ট এলাকার যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যেমনটা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে গোয়ালন্দ রেলপথ দিয়ে বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী যাত্রীদের। এর মাধ্যমে দেশের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার দুর্দশার করুণ চিত্র ফুটে উঠেছে।

সরকার বর্তমানে রেল খাতের উন্নয়নে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে ৩০ বছর মেয়াদি (২০১৬-৪৫) সংশোধিত মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে, নতুন নতুন রেলপথ তৈরি করছে। এর মধ্যেই আবার বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। বহু স্টেশন ও রেল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মান বাড়ছে না যাত্রীসেবারও।

ট্রেনে একসঙ্গে অনেক যাত্রী চলাচল করতে পারে। তাছাড়া ট্রেনে পরিবহন খরচ সড়কপথের চেয়ে অনেক কম, দুর্ঘটনার ভয় নেই বললেই চলে। সাশ্রয়ী বলে সাধারণ মানুষ ট্রেনে যাতায়াতে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। কম খরচে পণ্য পরিবহনের সুবিধাও রয়েছে। এজন্যই যাতায়াত ও যোগাযোগে এগিয়ে থাকা দেশগুলো রেলপথকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যাত্রীভাড়া কমিয়ে ও সেবা বাড়িয়ে রেল খাতকে লাভজনক খাতে পরিণত করা হয়েছে। মালামাল পরিবহনের উন্নয়ন ঘটিয়ে রেলের আয় কয়েকগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। আর দেশে নানা অজুহাতে দিন দিন স্টেশন ও ট্রেন বন্ধ করা হচ্ছে।

রেলের সেবা সংকুচিত নয়, আরও বিস্তৃত করতে হবে। যাত্রী সাধারণকে রেল যাতায়াতের পূর্ণাঙ্গ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য রেলে প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগ দিতে হবে, ট্রেন সংকটের অবসান ঘটাতে হবে। বিদ্যমান যে লাইনগুলো আছে সেগুলোর পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে হবে। বন্ধ থাকা ট্রেন ও স্টেশনগুলো চালু করতে হবে। গোয়ালন্দে যে স্টেশন ও ট্রেন চালুর দাবি করা হয়েছে, তা সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হবে সেটা আমাদের প্রত্যাশা।

বয়স্ক ভাতা প্রসঙ্গে

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নের পথে বাধা দূর করুন

পদ্মা সেতুর কাছে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

ওএমএসের পণ্য : অনিয়ম দুর্নীতি দূর করতে হবে

সেতু না করেই বিল তুলে নেয়া প্রসঙ্গে

রেলক্রসিং কেন অরক্ষিত

আশ্রয়ণ প্রকল্পের বাসিন্দাদের দুরবস্থা

অনলাইন সহিংসতা বন্ধে চাই সচেতনতা

অতিরিক্ত খাজনা আদায়ের অভিযোগ আমলে নিন

মানবপাচার সংক্রান্ত মামলা প্রসঙ্গে

সেন্টমার্টিন রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

মীরসরাইয়ে বিকল্প সেচ ব্যবস্থাপনা চালু করা হোক

ফসলি জমি কেটে বালু তোলা বন্ধ করুন

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগের সুরাহা করুন

বিদ্যালয়টির নতুন ভবন নির্মাণের উদ্যোগ নিন

তাজরীন ট্র্যাজেডি : বিচার পেতে আর কত অপেক্ষা করতে হবে

বিসিকের শিল্প নগরীতে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্লান্ট নেই কেন

সংরক্ষিত বন ধ্বংস করে ইটভাটা নয়

উপহারের অ্যাম্বুলেন্সগুলো ফেলে রাখা হয়েছে কেন

দোকানে শিক্ষার্থীদের পাঠদান প্রসঙ্গে

আলুর বীজ সংকট দূর করুন

অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার বন্ধ করতে হবে

দুই জঙ্গি ছিনতাই : প্রশ্নবিদ্ধ নিরাপত্তা ব্যবস্থা

সড়ক সংস্কারে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

কক্সবাজারে পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া হোটেল চলছে কীভাবে

বাড়ছে ঠান্ডাজনিত রোগ, সতর্ক থাকতে হবে

বরগুনা হাসপাতালের নতুন ভবনে কার্যক্রম কবে শুরু হবে

নারী নির্যাতনের উদ্বেগজনক চিত্র

পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করুন

বছরের শুরুতে নতুন বই পাওয়া নিয়ে শঙ্কা

সরকারি হাসপাতালগুলোর দুর্দশা

আত্মহত্যা প্রতিরোধে সম্মিলিত প্রচেষ্টা চালাতে হবে

যাত্রী ছাউনি দখলমুক্ত করুন

জলাশয়গুলো রক্ষা করুন

সিসার বিষক্রিয়ার ভয়াবহতা

tab

সম্পাদকীয়

রেল স্টেশন চালুর দাবি

বুধবার, ২৩ নভেম্বর ২০২২

লোকবল ও ট্রেন সংকটের কারণে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট রেলস্টেশন। শুধু স্টেশনই নয়, বন্ধ রয়েছে খুলনা, রাজশাহী থেকে চলাচলকারী কয়েকটি আন্তঃনগর এক্সপ্রেস ট্রেনও। ফলে এ পথে সরাসরি যাতায়াতে যাত্রীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। দীর্ঘদিন বন্ধ রয়েছে পণ্যবাহী শিলিগুড়ি ট্রেনটিও। এ নিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সংবাদ-এ বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

দেশে শুধু যে এই একটি রেলস্টেশন বন্ধ হয়েছে তা নয়। এ পর্যন্ত দেশে রেলওয়ের ১১৬টি স্টেশন বন্ধ হয়ে গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৭০টি স্টেশন বন্ধ হয়েছে রেওয়ের পশ্চিমাঞ্চলে। আর পূর্বাঞ্চলে বন্ধ হয়েছে ৪৬টি। শুধু স্টেশনই নয় করোনা মহামারীর সময় বন্ধ হয়েছে রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের ১৪টি রুটের ৪২টি লোকাল ট্রেনও। স্টেশন ও ট্রেনগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সংশ্লিষ্ট এলাকার যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। যেমনটা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে গোয়ালন্দ রেলপথ দিয়ে বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী যাত্রীদের। এর মাধ্যমে দেশের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থার দুর্দশার করুণ চিত্র ফুটে উঠেছে।

সরকার বর্তমানে রেল খাতের উন্নয়নে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ে ৩০ বছর মেয়াদি (২০১৬-৪৫) সংশোধিত মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছে, নতুন নতুন রেলপথ তৈরি করছে। এর মধ্যেই আবার বিপরীত চিত্র দেখা যাচ্ছে। বহু স্টেশন ও রেল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। মান বাড়ছে না যাত্রীসেবারও।

ট্রেনে একসঙ্গে অনেক যাত্রী চলাচল করতে পারে। তাছাড়া ট্রেনে পরিবহন খরচ সড়কপথের চেয়ে অনেক কম, দুর্ঘটনার ভয় নেই বললেই চলে। সাশ্রয়ী বলে সাধারণ মানুষ ট্রেনে যাতায়াতে প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। কম খরচে পণ্য পরিবহনের সুবিধাও রয়েছে। এজন্যই যাতায়াত ও যোগাযোগে এগিয়ে থাকা দেশগুলো রেলপথকে প্রাধান্য দিয়ে থাকে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে যাত্রীভাড়া কমিয়ে ও সেবা বাড়িয়ে রেল খাতকে লাভজনক খাতে পরিণত করা হয়েছে। মালামাল পরিবহনের উন্নয়ন ঘটিয়ে রেলের আয় কয়েকগুণ বৃদ্ধি করা হয়েছে। আর দেশে নানা অজুহাতে দিন দিন স্টেশন ও ট্রেন বন্ধ করা হচ্ছে।

রেলের সেবা সংকুচিত নয়, আরও বিস্তৃত করতে হবে। যাত্রী সাধারণকে রেল যাতায়াতের পূর্ণাঙ্গ সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে। এজন্য রেলে প্রয়োজনীয় লোকবল নিয়োগ দিতে হবে, ট্রেন সংকটের অবসান ঘটাতে হবে। বিদ্যমান যে লাইনগুলো আছে সেগুলোর পূর্ণাঙ্গ ব্যবহার করতে হবে। বন্ধ থাকা ট্রেন ও স্টেশনগুলো চালু করতে হবে। গোয়ালন্দে যে স্টেশন ও ট্রেন চালুর দাবি করা হয়েছে, তা সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করা হবে সেটা আমাদের প্রত্যাশা।

back to top