alt

সম্পাদকীয়

সংরক্ষিত বনের গাছ কাটা বন্ধ করুন

: মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৩

কক্সবাজারের চকরিয়ার উপকূলে তৈরি হচ্ছে একাধিক ফিশিং ট্রলার; যার কোনটিরই নেই অনুমোদন। একে তো অনুমোদন নেই, তার ওপর এসব ট্রলার তৈরি হচ্ছে সংরক্ষিত বনের চোরাই গাছ দিয়ে। গর্জনসহ বনের বিভিন্ন গাছ কাটছে একটি চক্র। তাদের কাছ থেকেই আসছে ট্রলার তৈরির কাঁচামাল। গাছ কাটার জন্য বন বিভাগ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গত সোমবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

শুধু কক্সবাজারেই নয়, দেশের অন্যান্য সংরক্ষিত বনাঞ্চলও ধ্বংস হচ্ছে। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে বন বিভাগের প্রতিবেদনে বলা হয়- সারা দেশে বনভূমি দখল হয়ে গেছে ২ লাখ ৫৭ হাজার ১৫৮ একর। আর এসব করেছে ১ লাখ ৬০ হাজার ৫৬৬ জন প্রভাবশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

পরিবেশের ভারসাম্য ঠিক রাখতে বনকে বাঁচিয়ে রাখা জরুরি। সংরক্ষিত বনাঞ্চল ধ্বংস হলেও বন বিভাগের কর্তাব্যক্তিরা তা রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন করছেন কিনা- সেই প্রশ্ন রয়েছে। প্রায়ই অভিযোগ ওঠে যে, বন বিভাগের একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশেই গাছ কাটা হয়। কক্সবাজারেও এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। যদিও এসব অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অস্বীকার করেছে। বন রক্ষায় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হলে তারা লোকবল সংকটসহ নানা অভাব-অভিযোগের ফিরিস্তি দেন।

আমারা জানতে চাইব- যে লোকবল আছে বা যতটুকু সক্ষমতা বন বিভাগের আছে তা বন রক্ষায় যথাযথভাবে কাজে লাগানো হচ্ছে কিনা। বন রক্ষায় যদি ন্যূনতম চেষ্টাও থাকত তাহলে দিনের পর দিন নির্বিঘ্নে চোরাকারবারিরা গাছ কাটার সুযোগ পেত না বলে আমরা মনে করি। অন্ততপক্ষে গাছ কাটার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হতো; কিন্তু কক্সবাজারে গাছ কাটার জন্য কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানা যায় না। সেখানে অনুমোদন ছাড়া ফিশিং ট্রলার তৈরি হচ্ছে। তার বিরুদ্ধেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

আমরা বলতে চাই- কক্সবাজারের চকোরিয়ার সংরক্ষিত বনের গাছ কাটার যে অভিযোগ পাওয়া গেছে তা আমলে নিতে হবে। বন রক্ষা করতে হলে অবৈধভাবে গাছ কাটা কঠোরভাবে বন্ধ করতে হবে। গাছ কাটা এবং তা কেনাবেচার সঙ্গে যে বা যারাই জড়িত থাকুক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ববস্থা নিতে হবে। আর সেখানে যে অবৈধভাবে অনুমোদনহীন ফিশিং ট্রলার তৈরি হচ্ছে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- এটা আমরা দেখতে চাই।

অতিরিক্ত সেচ খরচ বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মঙ্গলময় রাত

হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি কাম্য নয়

খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার করুন

কক্সবাজার সৈকতে কচ্ছপ মরার কারণ উদ্ঘাটন করুন, ব্যবস্থা নিন

বাড়বে বিদ্যুতের দাম, মূল্যস্ফীতির কী উপায় হবে

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

পোরশার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

সাগর-রুনি হত্যার বিচারে আর কত অপেক্ষা

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু হোক

দেশি পণ্যের জিআই স্বীকৃতির জন্য উদ্যোগী হয়ে কাজ করতে হবে

উখিয়ায় আবাদি ও বনের জমি রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক নির্মাণ ও সংস্কারে অনিয়ম-দুর্নীতির অবসান ঘটাতে হবে

একটি পাকা সেতুর জন্য আর কত অপেক্ষা করতে হবে

নির্ভুল জাতীয় পরিচয়পত্র দেয়ার ক্ষেত্রে সমস্যা কোথায়

পাখির খাদ্য সংকট ও আমাদের দায়

কাবিখা-কাবিটা প্রকল্পের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

কৃষিতে তামাক চাষের ক্ষতিকর প্রভাব

এলপিজি বিক্রি করতে হবে নির্ধারিত দরে

সাঘাটায় বিএমডিএর সেচ সংযোগে ঘুষ দাবি, তদন্ত করুন

সরকারি খাল দখলমুক্ত করুন

tab

সম্পাদকীয়

সংরক্ষিত বনের গাছ কাটা বন্ধ করুন

মঙ্গলবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২৩

কক্সবাজারের চকরিয়ার উপকূলে তৈরি হচ্ছে একাধিক ফিশিং ট্রলার; যার কোনটিরই নেই অনুমোদন। একে তো অনুমোদন নেই, তার ওপর এসব ট্রলার তৈরি হচ্ছে সংরক্ষিত বনের চোরাই গাছ দিয়ে। গর্জনসহ বনের বিভিন্ন গাছ কাটছে একটি চক্র। তাদের কাছ থেকেই আসছে ট্রলার তৈরির কাঁচামাল। গাছ কাটার জন্য বন বিভাগ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গত সোমবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

শুধু কক্সবাজারেই নয়, দেশের অন্যান্য সংরক্ষিত বনাঞ্চলও ধ্বংস হচ্ছে। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে বন বিভাগের প্রতিবেদনে বলা হয়- সারা দেশে বনভূমি দখল হয়ে গেছে ২ লাখ ৫৭ হাজার ১৫৮ একর। আর এসব করেছে ১ লাখ ৬০ হাজার ৫৬৬ জন প্রভাবশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান।

পরিবেশের ভারসাম্য ঠিক রাখতে বনকে বাঁচিয়ে রাখা জরুরি। সংরক্ষিত বনাঞ্চল ধ্বংস হলেও বন বিভাগের কর্তাব্যক্তিরা তা রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন করছেন কিনা- সেই প্রশ্ন রয়েছে। প্রায়ই অভিযোগ ওঠে যে, বন বিভাগের একশ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশেই গাছ কাটা হয়। কক্সবাজারেও এ ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। যদিও এসব অভিযোগ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অস্বীকার করেছে। বন রক্ষায় ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলা হলে তারা লোকবল সংকটসহ নানা অভাব-অভিযোগের ফিরিস্তি দেন।

আমারা জানতে চাইব- যে লোকবল আছে বা যতটুকু সক্ষমতা বন বিভাগের আছে তা বন রক্ষায় যথাযথভাবে কাজে লাগানো হচ্ছে কিনা। বন রক্ষায় যদি ন্যূনতম চেষ্টাও থাকত তাহলে দিনের পর দিন নির্বিঘ্নে চোরাকারবারিরা গাছ কাটার সুযোগ পেত না বলে আমরা মনে করি। অন্ততপক্ষে গাছ কাটার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হতো; কিন্তু কক্সবাজারে গাছ কাটার জন্য কারো বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানা যায় না। সেখানে অনুমোদন ছাড়া ফিশিং ট্রলার তৈরি হচ্ছে। তার বিরুদ্ধেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয় না।

আমরা বলতে চাই- কক্সবাজারের চকোরিয়ার সংরক্ষিত বনের গাছ কাটার যে অভিযোগ পাওয়া গেছে তা আমলে নিতে হবে। বন রক্ষা করতে হলে অবৈধভাবে গাছ কাটা কঠোরভাবে বন্ধ করতে হবে। গাছ কাটা এবং তা কেনাবেচার সঙ্গে যে বা যারাই জড়িত থাকুক না কেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ববস্থা নিতে হবে। আর সেখানে যে অবৈধভাবে অনুমোদনহীন ফিশিং ট্রলার তৈরি হচ্ছে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে- এটা আমরা দেখতে চাই।

back to top