alt

সম্পাদকীয়

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার পথে বাধা দূর হোক

: বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

শান্তি নিকেতনের আদলে একটি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার স্বপ্ন নিয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় পথচলা শুরু হয়। সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থীরা মুক্তচিন্তা ও সংস্কৃতি চর্চা করবে, রবীন্দ্র দর্শন সমাজে ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে- এমনটাই ছিল লক্ষ্য। আশা ছিল, শিক্ষা শেষে সনদপত্র পাওয়ার জন্য নয়, তারা সংস্কৃতিবান মানুষ হওয়ার জন্য সেখানে পড়ালেখা করবে।

স্থায়ী ক্যাম্পাস না হওয়ার কারণে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য-উদ্দেশ্য পূর্ণাঙ্গ রূপ পাচ্ছে না। স্থায়ী ক্যাম্পাস না থাকায় বেশ কয়েকটি বিষয়ে পড়ানোর অনুমতিই মিলছে না। হাতেগোনা কয়েকটি বিষয়ে পড়তে বাধ্য হচ্ছে সেখানকার শিক্ষার্থীরা। গুটিকয় বিষয়ে আটকে থাকলে বিশ্বভারতীর আদলে বিস্তৃত পরিসরে পাঠদান করাবে কী করে- সেটা একটা প্রশ্ন।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পেছনে উদ্দেশ্যটা মহৎ। তবে এই মহৎ উদ্দেশ্যের বাস্তব রূপ দিতে হলে তার একটা নিজস্ব ক্যাম্পাস অবশ্যই চাই। নিজস্ব ক্যাম্পাস চালু রাখার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনেরও কিছু বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ইউজিসির আইন অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠার সাত বছরের মধ্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে হবে। এজন্য ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরে এক একর ও অন্য এলাকায় দুই একর জমি থাকতে হবে। ২০১০ সালে আইন সংশোধন করে সময় বাড়ানো হয়। তবে তা মানেনি অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়। তারা এখনও ক্যাম্পাস ছাড়াই শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাচ্ছে।

২০১৮ ও ২০২১ সালে দুই দফায় সরকার ‘বুড়ি পোতাজিয়া’ মৌজায় ১১১ একর জমি বরাদ্দ দিলেও রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আজও তা বুঝে পায়নি। জমি বরাদ্দ দেয়ার পরও সেখানে ক্যাম্পাস তৈরি করা যাচ্ছে না কেন, সমস্যা কোথায় সেটা একটা প্রশ্ন।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্র্তৃপক্ষ বুড়ি পোতাজিয়া মৌজার ২৩৬ একর জমির চাহিদা দিয়েছে। কিন্তু জমির ১২৫ একর অবৈধ দখলদাররা জাল দলিলপত্র করে বেদখল করে রেখেছে। উপজেলা ভূমি দপ্তর কয়েকজন জাল দলিলকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। মামলাটি সিরাজগঞ্জ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

আমরা চাইব যে, মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি হোক। বরাদ্দকৃত জমিতে ক্যাম্পাস স্থাপনের পথে সব বাধা দূর হোক। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা।

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

সিলেট ‘ইইডি’ কার্যালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

পাহাড় কাটা বন্ধ করুন

স্বাধীনতার ৫৪ বছর : মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা কতটা পূরণ হলো

চিকিৎসক সংকট দূর করুন

আজ সেই কালরাত্রি : গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সাতক্ষীরা হাসপাতালের ডায়ালাসিস মেশিন সংকট দূর করুন

পানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা জরুরি

আর কত অপেক্ষার পর বিধবা ছালেহার ভাগ্যে ঘর মিলবে

চরের শিশুদের শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করুন

নদ-নদীর নাব্য সংকট দূর করতে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

tab

সম্পাদকীয়

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার পথে বাধা দূর হোক

বৃহস্পতিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৩

শান্তি নিকেতনের আদলে একটি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার স্বপ্ন নিয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় পথচলা শুরু হয়। সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থীরা মুক্তচিন্তা ও সংস্কৃতি চর্চা করবে, রবীন্দ্র দর্শন সমাজে ছড়িয়ে দিতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে- এমনটাই ছিল লক্ষ্য। আশা ছিল, শিক্ষা শেষে সনদপত্র পাওয়ার জন্য নয়, তারা সংস্কৃতিবান মানুষ হওয়ার জন্য সেখানে পড়ালেখা করবে।

স্থায়ী ক্যাম্পাস না হওয়ার কারণে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য-উদ্দেশ্য পূর্ণাঙ্গ রূপ পাচ্ছে না। স্থায়ী ক্যাম্পাস না থাকায় বেশ কয়েকটি বিষয়ে পড়ানোর অনুমতিই মিলছে না। হাতেগোনা কয়েকটি বিষয়ে পড়তে বাধ্য হচ্ছে সেখানকার শিক্ষার্থীরা। গুটিকয় বিষয়ে আটকে থাকলে বিশ্বভারতীর আদলে বিস্তৃত পরিসরে পাঠদান করাবে কী করে- সেটা একটা প্রশ্ন।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পেছনে উদ্দেশ্যটা মহৎ। তবে এই মহৎ উদ্দেশ্যের বাস্তব রূপ দিতে হলে তার একটা নিজস্ব ক্যাম্পাস অবশ্যই চাই। নিজস্ব ক্যাম্পাস চালু রাখার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনেরও কিছু বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ইউজিসির আইন অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠার সাত বছরের মধ্যে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নিজস্ব স্থায়ী ক্যাম্পাসে যেতে হবে। এজন্য ঢাকা ও চট্টগ্রাম মহানগরে এক একর ও অন্য এলাকায় দুই একর জমি থাকতে হবে। ২০১০ সালে আইন সংশোধন করে সময় বাড়ানো হয়। তবে তা মানেনি অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়। তারা এখনও ক্যাম্পাস ছাড়াই শিক্ষার্থীদের পাঠদান করাচ্ছে।

২০১৮ ও ২০২১ সালে দুই দফায় সরকার ‘বুড়ি পোতাজিয়া’ মৌজায় ১১১ একর জমি বরাদ্দ দিলেও রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আজও তা বুঝে পায়নি। জমি বরাদ্দ দেয়ার পরও সেখানে ক্যাম্পাস তৈরি করা যাচ্ছে না কেন, সমস্যা কোথায় সেটা একটা প্রশ্ন।

জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয় কর্র্তৃপক্ষ বুড়ি পোতাজিয়া মৌজার ২৩৬ একর জমির চাহিদা দিয়েছে। কিন্তু জমির ১২৫ একর অবৈধ দখলদাররা জাল দলিলপত্র করে বেদখল করে রেখেছে। উপজেলা ভূমি দপ্তর কয়েকজন জাল দলিলকারীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। মামলাটি সিরাজগঞ্জ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে।

আমরা চাইব যে, মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি হোক। বরাদ্দকৃত জমিতে ক্যাম্পাস স্থাপনের পথে সব বাধা দূর হোক। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা।

back to top