alt

সম্পাদকীয়

বরন্দ্রে অঞ্চলে পানি সংকট

: শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

সুপেয় পানির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন রাজশাহীর আদিবাসীরা। ভুক্তভোগীরা বলছেন, তানোরের মাহালীপাড়ায় ভূঅভ্যন্তরের পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। সুপেয় পানির অভাবে তাদের মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গত বৃহস্পতিবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বরেন্দ্র অঞ্চলে পানির সংকট দীর্ঘ দিনের। ফারাক্কা বাঁধের প্রভাবে সেখানে পানি সংকট দেখা দিয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবও পড়েছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। এরপরও সেখান থেকে যে পানি মেলে তাতে আয়রন ও আর্সেনিকের উপস্থিতি সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি।

পানির অভাবে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি হচ্ছে প্রান্তিক দরিদ্র মানুষদের। যাদের বড় একটি অংশই আদিবাসী। তাদেরকে সুপেয় পানি সংগ্রহের জন্য দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হয়। এরপরও কোনো কোনো দিন পানি মেলে না। পানি সংগ্রহের ভোগান্তি পোহাতে হয় নারী ও শিশুদের।

পানি সংকট দূর করতে বরেন্দ্র অঞ্চলে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাতে স্থানীয়দের চাহিদা মিটছে না। আবার অনেক প্রকল্প টেকসই হয়নি। এজন্য অনেকে অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুপেয় পানিসংকট ভবিষ্যতে বাড়বে বৈ কমবে না। কাজেই এ বিষয়ে এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। নইলে দরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ দূর করা যাবে না। পানি সংকট দূর করতে টেকসই প্রকল্প নিতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নের পরও অনেক করণীয় রয়েছে। সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোকে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে। এ কাজে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকেও সম্পৃক্ত করা জরুরি।

ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারেও সচেতন হওয়া জরুরি। বরেন্দ্র অঞ্চলে বৃষ্টিপাত তুলনামূলক কম হয়। তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই অঞ্চলের বার্ষিক বৃষ্টিপাত ছিল গড়ে ১ হাজার ৪০০ মিলিমিটারের কম। আর এ সময়ে দেশে গড়ে বৃষ্টিপাত হয়েছে ২ হাজার ৫৫০ মিলিমিটার। অর্থাৎ বরেন্দ্র অঞ্চলে ৪৫ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি কম হওয়ায় কৃষিসহ নানান কাজে সেখানে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার করা হচ্ছে। এ কারণেও সেখানে পানির সংকট তীব্র হচ্ছে। ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহারে সচেতন হতে হবে। নির্বিচারে পানি উত্তোলন বন্ধ করা না গেলে এই সংকট থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হবে না।

কৃষিপণ্য সংরক্ষণে হিমাগার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

কৃষিজমি রক্ষা করতে হবে

অবৈধ সীসা কারখানা বন্ধ করুন

এই ট্র্যাজেডির শেষ কোথায়

হাসপাতালগুলোতে অবেদনবিদের সংকট

চাঁদাবাজি, সিন্ডিকেট ও নিত্যপণ্যের দাম

যাতায়াত-যোগাযোগে রৌমারীর মানুষের ভোগান্তি দূর করুন

উপকূলীয় অঞ্চলে জমির লবণাক্ততা প্রতিরোধে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিন

ট্রেডভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগে আর কত কালক্ষেপণ

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, কঠোর ব্যবস্থা নিন

মহাদেবপুরে সেচের পানি বঞ্চিত কৃষক

পশুর নদে জাহাজ চলাচলে নিয়ম মানতে হবে

মালঞ্চি রেলস্টেশনটি কি বন্ধ না করলেই নয়

ফসলি জমিতে ইটভাটা কেন

অতিরিক্ত সেচ খরচ বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মঙ্গলময় রাত

হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি কাম্য নয়

খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার করুন

কক্সবাজার সৈকতে কচ্ছপ মরার কারণ উদ্ঘাটন করুন, ব্যবস্থা নিন

বাড়বে বিদ্যুতের দাম, মূল্যস্ফীতির কী উপায় হবে

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

tab

সম্পাদকীয়

বরন্দ্রে অঞ্চলে পানি সংকট

শুক্রবার, ১৭ মার্চ ২০২৩

সুপেয় পানির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন রাজশাহীর আদিবাসীরা। ভুক্তভোগীরা বলছেন, তানোরের মাহালীপাড়ায় ভূঅভ্যন্তরের পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। সুপেয় পানির অভাবে তাদের মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। এ নিয়ে সংবাদ-এ গত বৃহস্পতিবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

বরেন্দ্র অঞ্চলে পানির সংকট দীর্ঘ দিনের। ফারাক্কা বাঁধের প্রভাবে সেখানে পানি সংকট দেখা দিয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবও পড়েছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নিচে নেমে গেছে। এরপরও সেখান থেকে যে পানি মেলে তাতে আয়রন ও আর্সেনিকের উপস্থিতি সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি।

পানির অভাবে সবচেয়ে বেশি ভোগান্তি হচ্ছে প্রান্তিক দরিদ্র মানুষদের। যাদের বড় একটি অংশই আদিবাসী। তাদেরকে সুপেয় পানি সংগ্রহের জন্য দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে হয়। এরপরও কোনো কোনো দিন পানি মেলে না। পানি সংগ্রহের ভোগান্তি পোহাতে হয় নারী ও শিশুদের।

পানি সংকট দূর করতে বরেন্দ্র অঞ্চলে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে কিছু পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাতে স্থানীয়দের চাহিদা মিটছে না। আবার অনেক প্রকল্প টেকসই হয়নি। এজন্য অনেকে অব্যবস্থাপনাকে দায়ী করেছেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুপেয় পানিসংকট ভবিষ্যতে বাড়বে বৈ কমবে না। কাজেই এ বিষয়ে এখনই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। নইলে দরিদ্র মানুষের দুর্ভোগ দূর করা যাবে না। পানি সংকট দূর করতে টেকসই প্রকল্প নিতে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নের পরও অনেক করণীয় রয়েছে। সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষগুলোকে সমন্বয় করে কাজ করতে হবে। এ কাজে স্থানীয় জনগোষ্ঠীকেও সম্পৃক্ত করা জরুরি।

ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবহারেও সচেতন হওয়া জরুরি। বরেন্দ্র অঞ্চলে বৃষ্টিপাত তুলনামূলক কম হয়। তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই অঞ্চলের বার্ষিক বৃষ্টিপাত ছিল গড়ে ১ হাজার ৪০০ মিলিমিটারের কম। আর এ সময়ে দেশে গড়ে বৃষ্টিপাত হয়েছে ২ হাজার ৫৫০ মিলিমিটার। অর্থাৎ বরেন্দ্র অঞ্চলে ৪৫ শতাংশ কম বৃষ্টিপাত হয়েছে। বৃষ্টি কম হওয়ায় কৃষিসহ নানান কাজে সেখানে ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহার করা হচ্ছে। এ কারণেও সেখানে পানির সংকট তীব্র হচ্ছে। ভূগর্ভস্থ পানির ব্যবহারে সচেতন হতে হবে। নির্বিচারে পানি উত্তোলন বন্ধ করা না গেলে এই সংকট থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব হবে না।

back to top