alt

সম্পাদকীয়

লক্ষ্মীপুর পৌরসভায় সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চাই

: বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩

সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অভাবে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এজন্য ভুক্তভোগীরা অভিযোগের আঙুল তুলেছেন পৌর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, নাগরিকদের বসবাসস্থল থেকে যেসব গার্হস্থ্য বর্জ্য সংগ্রহ করা হয় পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা তা উত্তর তেমুহনীর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে জমা করে বাছাই করেন। এছাড়া শহরের বিসিক শিল্প নগরীর সামনে, ইটের পুল ও ফায়ার সার্ভিস এলাকায় রাস্তার দুই পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলে রেখেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। যেখানে-সেখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলে রাখায় পৌর শহরটি ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে।

বর্জ্য অব্যবস্থাপনার জন্য দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নাগরিকদের। পথচারীদের বর্জ্যরে দুর্গন্ধ সয়ে পথ চলতে হচ্ছে। একদিকে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে, অন্যদিকে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়েছে। যাদের শহর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার কথা তারাই সেটাকে অপরিচ্ছন্ন করছেন বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এটা দুর্ভাগ্যজনক। যে কর্তৃপক্ষ সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মতো জরুরি একটি কাজ ঠিকমতো সম্পন্ন করতে না পারে সেই কর্তৃপক্ষ নাগরিকদের অন্য সেবা কিভাবে দেবে সেটা একটা প্রশ্ন।

সংশ্লিষ্ট পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, ময়লা-আবর্জনা বাছাইয়ের পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় বাধ্য হয়ে শহরের জনবহুল এলাকায় সে কাজ সম্পন্ন করতে হচ্ছে। তবে আশার কথা হলো, পৌরসভার বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিক ডাম্পিং প্লান্টের অনুমোদন দিয়েছে সরকার। সেটা বাস্তবায়ন হলে সমস্যার সমাধান হবে।

ডাম্পিং প্লান্ট অনুমোদনের খবর আমাদের আশান্বিত করেছে। এটা আরও আগেই করা উচিত ছিল। দেরিতে হলেও যে প্লান্টের অনুমোদন দেয়া হয়েছে সেটা স্বস্তিদায়ক। আমরা আশা করব, দ্রুত প্লান্ট স্থাপন করা হবে। সেটা হলে পৌর বর্জ্য সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করা সম্ভব হবে।

বর্জ্যরে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নাগরিকদের সুস্থ জীবনের জন্য অপরিহার্য। এক্ষেত্রে উদাসীনতা-অবহেলার সুযোগ নেই। দুর্বল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কারণে নাগরিকদের নানান রোগে ভুগতে হয় বলে বিশেষজ্ঞরা জানান। এছাড়া যত্রতত্র বর্জ্য ফেলা হলে নগরের সৌন্দর্যহানিও ঘটে। লক্ষ্মীপুর পৌরসভা নাগরিকদের বসবাস উপযোগী হোক, একটি পরিচ্ছন্ন শহরে রূপান্তির হোক সেটাই আমাদের চাওয়া।

কৃষিপণ্য সংরক্ষণে হিমাগার স্থাপনে উদ্যোগ নিন

কৃষিজমি রক্ষা করতে হবে

অবৈধ সীসা কারখানা বন্ধ করুন

এই ট্র্যাজেডির শেষ কোথায়

হাসপাতালগুলোতে অবেদনবিদের সংকট

চাঁদাবাজি, সিন্ডিকেট ও নিত্যপণ্যের দাম

যাতায়াত-যোগাযোগে রৌমারীর মানুষের ভোগান্তি দূর করুন

উপকূলীয় অঞ্চলে জমির লবণাক্ততা প্রতিরোধে পরিকল্পিত পদক্ষেপ নিন

ট্রেডভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগে আর কত কালক্ষেপণ

রোহিঙ্গাদের কাছে জাতীয় পরিচয়পত্র ও পাসপোর্ট, কঠোর ব্যবস্থা নিন

মহাদেবপুরে সেচের পানি বঞ্চিত কৃষক

পশুর নদে জাহাজ চলাচলে নিয়ম মানতে হবে

মালঞ্চি রেলস্টেশনটি কি বন্ধ না করলেই নয়

ফসলি জমিতে ইটভাটা কেন

অতিরিক্ত সেচ খরচ বন্ধে ব্যবস্থা নিন

মঙ্গলময় রাত

হাওরে বাঁধ নির্মাণে গাফিলতি কাম্য নয়

খতনা করাতে গিয়ে শিশুর মৃত্যু : সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার করুন

কক্সবাজার সৈকতে কচ্ছপ মরার কারণ উদ্ঘাটন করুন, ব্যবস্থা নিন

বাড়বে বিদ্যুতের দাম, মূল্যস্ফীতির কী উপায় হবে

এখনো কেন চালু হলো না ট্রমা সেন্টার

এত উদ্যোগের পরও অর্থপাচার বাড়ল কীভাবে

চুড়িহাট্টা অগ্নিকাণ্ড : বিচারে ধীরগতি কেন

অমর একুশে

শিক্ষা ক্যাডারে পদোন্নতি নিয়ে অসন্তোষ কেন

কিশোর গ্যাং কালচারের অবসান ঘটাতে চাই সম্মিলিত প্রচেষ্টা

সরকারি খাল উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

ধীরগতির যানবাহন কেন মহাসড়কে

নদীর দখলদারদের কেন ‘পুরস্কৃত’ করা হবে

ফের ঊর্ধ্বমুখী মূল্যস্ফীতি

প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকায় বরফকল কেন

উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রমে হরিলুট বন্ধ করুন

সরকারি হাসপাতালে বিনামূল্যের ওষুধ কেন মিলছে না

রেলক্রসিং হোক সুরক্ষিত

বিনামূল্যের পাঠ্যবই বিক্রির বিহিত করুন

জিকে সেচ প্রকল্পের খালে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করুন

tab

সম্পাদকীয়

লক্ষ্মীপুর পৌরসভায় সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা চাই

বুধবার, ২২ মার্চ ২০২৩

সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অভাবে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার বাসিন্দাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এজন্য ভুক্তভোগীরা অভিযোগের আঙুল তুলেছেন পৌর কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, নাগরিকদের বসবাসস্থল থেকে যেসব গার্হস্থ্য বর্জ্য সংগ্রহ করা হয় পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা তা উত্তর তেমুহনীর আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে জমা করে বাছাই করেন। এছাড়া শহরের বিসিক শিল্প নগরীর সামনে, ইটের পুল ও ফায়ার সার্ভিস এলাকায় রাস্তার দুই পাশে ময়লা-আবর্জনা ফেলে রেখেছে পৌর কর্তৃপক্ষ। যেখানে-সেখানে ময়লা-আবর্জনা ফেলে রাখায় পৌর শহরটি ময়লার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে।

বর্জ্য অব্যবস্থাপনার জন্য দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে নাগরিকদের। পথচারীদের বর্জ্যরে দুর্গন্ধ সয়ে পথ চলতে হচ্ছে। একদিকে পরিবেশ দূষণ হচ্ছে, অন্যদিকে জনস্বাস্থ্য হুমকির মুখে পড়েছে। যাদের শহর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার কথা তারাই সেটাকে অপরিচ্ছন্ন করছেন বলে গুরুতর অভিযোগ উঠেছে। এটা দুর্ভাগ্যজনক। যে কর্তৃপক্ষ সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনার মতো জরুরি একটি কাজ ঠিকমতো সম্পন্ন করতে না পারে সেই কর্তৃপক্ষ নাগরিকদের অন্য সেবা কিভাবে দেবে সেটা একটা প্রশ্ন।

সংশ্লিষ্ট পৌর কর্তৃপক্ষ বলছে, ময়লা-আবর্জনা বাছাইয়ের পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় বাধ্য হয়ে শহরের জনবহুল এলাকায় সে কাজ সম্পন্ন করতে হচ্ছে। তবে আশার কথা হলো, পৌরসভার বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিক ডাম্পিং প্লান্টের অনুমোদন দিয়েছে সরকার। সেটা বাস্তবায়ন হলে সমস্যার সমাধান হবে।

ডাম্পিং প্লান্ট অনুমোদনের খবর আমাদের আশান্বিত করেছে। এটা আরও আগেই করা উচিত ছিল। দেরিতে হলেও যে প্লান্টের অনুমোদন দেয়া হয়েছে সেটা স্বস্তিদায়ক। আমরা আশা করব, দ্রুত প্লান্ট স্থাপন করা হবে। সেটা হলে পৌর বর্জ্য সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করা সম্ভব হবে।

বর্জ্যরে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নাগরিকদের সুস্থ জীবনের জন্য অপরিহার্য। এক্ষেত্রে উদাসীনতা-অবহেলার সুযোগ নেই। দুর্বল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কারণে নাগরিকদের নানান রোগে ভুগতে হয় বলে বিশেষজ্ঞরা জানান। এছাড়া যত্রতত্র বর্জ্য ফেলা হলে নগরের সৌন্দর্যহানিও ঘটে। লক্ষ্মীপুর পৌরসভা নাগরিকদের বসবাস উপযোগী হোক, একটি পরিচ্ছন্ন শহরে রূপান্তির হোক সেটাই আমাদের চাওয়া।

back to top