alt

সম্পাদকীয়

দশমিনার খালগুলো রক্ষা করুন

: সোমবার, ১৫ মে ২০২৩

সরকারি হিসাবে পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় খালের সংখ্যা দুইশ। এর মধ্যে দেড় শতাধিক খাল নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার পথে। এসব খাল নামে-বেনামে দখল করে নিয়েছে একটি চক্র। দখলকৃত খাল ভরাট করে ও বাঁধ দিয়ে চলছে ফসল আর মাছ চাষ। ফলে বর্ষাকালে সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতা আর শুষ্ক মৌসুমে দেখা দিচ্ছে সেচ কাজের জন্য তীব্র পানি সংকট। বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়েছে পরিবেশ-প্রকৃতি।

দশমিনার খালগুলো ছিল পানি নিষ্কাশন এবং সেচ কাজের একমাত্র মাধ্যম। খালগুলোতে এখন আর পানিপ্রবাহ নেই। শুকিয়ে গেছে। শুষ্ক মৌসুমে দেখা দিয়েছে তীব্র পানি সংকট। আগে খালগুলোতে মালামাল পরিবহনের জন্য নৌকা-ট্রলার চলত। সেটাও কালক্রমে এখন বন্ধ। ফসলি জমিতে পলি মাটি জমে বর্ষা মৌসুমে। খাল শুকিয়ে যাওয়ার কারণে জমিও উর্বরতা হারিয়েছে। ফলে কৃষকরা চরম বেকায়দায় পড়েছেন।

একটি দুটি নয়, দেড় শতাধিক খাল দখল হয়ে গেছে। সেই খাল ভরাট করে কেউ ফসলি জমি তৈরি করেছেন। আবার কেউ খালের ওপর বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। এটা তো আর একদিনে হয়নি। দিনের পর দিন, বছরের পর বছর ধরে হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, এসব দেখার কি কেউ নেই। খাল দখলের চিত্র দেশের অন্যান্য স্থানেও দেখা যায়। জলাশয় রক্ষায় দেশে আইন আছে। তারপরও জলাশয়গুলো দখল বা ভরাট হচ্ছে কিভাবে?

২০০০ সালের ‘প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন’ অনুযায়ী নদী, খাল, বিল, দীঘি, ঝরনা বা জলাশয়, বন্যাপ্রবাহ এলাকা এবং বৃষ্টির পানি ধারণ করে এমন কোনো ভূমির শ্রেণী পরিবর্তন করা যাবে না। অর্থাৎ সেগুলো ভরাট করা যাবে না। যে কেউ করলে সেটি আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় জলাশয়গুলোর ভূমিকা কম নয়। এগুলো পরিবেশকে শীতল রাখে। দেশে সম্প্রতি বয়ে চলা তাপপ্রবাহের পেছনে পর্যাপ্ত জলাশয় না থাকাকেও দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা আরো বলছেন, জলাশয়গুলো রক্ষা না করলে মৎস্যসম্পদ ধ্বংস, ফসল উৎপাদন হ্রাস, ভূমিকম্পের মতো ভয়াবহ দুর্যোগও দেখা দিতে পারে। জলাশয়গুলো বর্ষা মৌসুমে বন্যা প্রতিরোধ, শহরে জলাবদ্ধতা নিরসন, পানির চাহিদা পূরণ ও আবর্জনা পরিশোধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। উদ্ভিদ ও প্রাণিকুলের টিকে থাকার অবলম্বন এই জলাশয়।

জলাভূমি রক্ষায় আইন প্রয়োগে সংশ্লিষ্টদের কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। যারা আইন ভেঙে জলাশয় ভরাট করেছে, শ্রেণী পরিবর্তন করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। যেসব জলাশয় দখলে চলে গেছে তা উদ্ধার করতে হবে। ভরাট জলাশয়গুলো পুনর্খনন করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

সিংগাইরে নূরালীগঙ্গা খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

কৃষক কেন ন্যায্যমূল্য পান না

শিশুটির বিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন কি অপূর্ণ রয়ে যাবে

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

tab

সম্পাদকীয়

দশমিনার খালগুলো রক্ষা করুন

সোমবার, ১৫ মে ২০২৩

সরকারি হিসাবে পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলায় খালের সংখ্যা দুইশ। এর মধ্যে দেড় শতাধিক খাল নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়ার পথে। এসব খাল নামে-বেনামে দখল করে নিয়েছে একটি চক্র। দখলকৃত খাল ভরাট করে ও বাঁধ দিয়ে চলছে ফসল আর মাছ চাষ। ফলে বর্ষাকালে সৃষ্টি হচ্ছে জলাবদ্ধতা আর শুষ্ক মৌসুমে দেখা দিচ্ছে সেচ কাজের জন্য তীব্র পানি সংকট। বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়েছে পরিবেশ-প্রকৃতি।

দশমিনার খালগুলো ছিল পানি নিষ্কাশন এবং সেচ কাজের একমাত্র মাধ্যম। খালগুলোতে এখন আর পানিপ্রবাহ নেই। শুকিয়ে গেছে। শুষ্ক মৌসুমে দেখা দিয়েছে তীব্র পানি সংকট। আগে খালগুলোতে মালামাল পরিবহনের জন্য নৌকা-ট্রলার চলত। সেটাও কালক্রমে এখন বন্ধ। ফসলি জমিতে পলি মাটি জমে বর্ষা মৌসুমে। খাল শুকিয়ে যাওয়ার কারণে জমিও উর্বরতা হারিয়েছে। ফলে কৃষকরা চরম বেকায়দায় পড়েছেন।

একটি দুটি নয়, দেড় শতাধিক খাল দখল হয়ে গেছে। সেই খাল ভরাট করে কেউ ফসলি জমি তৈরি করেছেন। আবার কেউ খালের ওপর বাঁধ দিয়ে মাছ চাষ করছেন। এটা তো আর একদিনে হয়নি। দিনের পর দিন, বছরের পর বছর ধরে হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে, এসব দেখার কি কেউ নেই। খাল দখলের চিত্র দেশের অন্যান্য স্থানেও দেখা যায়। জলাশয় রক্ষায় দেশে আইন আছে। তারপরও জলাশয়গুলো দখল বা ভরাট হচ্ছে কিভাবে?

২০০০ সালের ‘প্রাকৃতিক জলাধার সংরক্ষণ আইন’ অনুযায়ী নদী, খাল, বিল, দীঘি, ঝরনা বা জলাশয়, বন্যাপ্রবাহ এলাকা এবং বৃষ্টির পানি ধারণ করে এমন কোনো ভূমির শ্রেণী পরিবর্তন করা যাবে না। অর্থাৎ সেগুলো ভরাট করা যাবে না। যে কেউ করলে সেটি আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য রক্ষায় জলাশয়গুলোর ভূমিকা কম নয়। এগুলো পরিবেশকে শীতল রাখে। দেশে সম্প্রতি বয়ে চলা তাপপ্রবাহের পেছনে পর্যাপ্ত জলাশয় না থাকাকেও দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা আরো বলছেন, জলাশয়গুলো রক্ষা না করলে মৎস্যসম্পদ ধ্বংস, ফসল উৎপাদন হ্রাস, ভূমিকম্পের মতো ভয়াবহ দুর্যোগও দেখা দিতে পারে। জলাশয়গুলো বর্ষা মৌসুমে বন্যা প্রতিরোধ, শহরে জলাবদ্ধতা নিরসন, পানির চাহিদা পূরণ ও আবর্জনা পরিশোধনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। উদ্ভিদ ও প্রাণিকুলের টিকে থাকার অবলম্বন এই জলাশয়।

জলাভূমি রক্ষায় আইন প্রয়োগে সংশ্লিষ্টদের কঠোর পদক্ষেপ নিতে হবে। যারা আইন ভেঙে জলাশয় ভরাট করেছে, শ্রেণী পরিবর্তন করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। যেসব জলাশয় দখলে চলে গেছে তা উদ্ধার করতে হবে। ভরাট জলাশয়গুলো পুনর্খনন করার ব্যবস্থা নিতে হবে।

back to top