alt

সম্পাদকীয়

ব্রহ্মপুত্র নদে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

: বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩

জামালপুরে ব্রহ্মপুত্র নদের দুই পাশের ৫০টি স্থানে অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু তুলছে একটি চক্র। ফলে ভাঙন দেখা দিয়েছে নদের দুই পাড়ে। অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী মানুষ। এ নিয়ে সংবাদ-এ গতকাল বুধবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, যারা অবৈধভাবে বালু তুলছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে- এরপরও প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে কীভাবে। বালু তোলা বন্ধ করতে প্রশাসনকে বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনা করতে দেখা যায়। তবে অভিযানে সাধারণত গ্রেপ্তার হন শ্রমজীবী মানুষ। রাঘববোয়ালরা ঠিকই থেকে যান ধরাছোঁয়ার বাইরে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নদ-নদী থেকে নির্বিচারে বালু উত্তোলনের কারণে পানিদূষিত হচ্ছে। নদীগর্ভের গঠনপ্রক্রিয়ায় পরিবর্তন ঘটছে। এতে নদী ভাঙছে। নদ-নদীর হাইড্রোলজিক্যাল কার্যক্রম বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। যে নদ-নদীর বালু উত্তোলন করা হয় তার আশপাশের মাটি ক্ষয়ে যায়, সেই সঙ্গে মাটির গুণাগুণও নষ্ট হয়।

২০১০ সালের বালুমহাল আইনে বলা আছে, বিপণনের উদ্দেশ্যে কোনো উন্মুক্ত স্থান, চা-বাগানের ছড়া বা নদীর তলদেশ থেকে বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। এছাড়া সেতু, কালভার্ট, ড্যাম, ব্যারাজ, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, বন, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকা থেকে বালু ও মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। কিন্তু এটা অনেকেই মানছে না কেন। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকেও আইন মানাতে বাধ্য করার জন্য তেমন কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না।

শুধু জামালপুরের ব্রহ্মপুত্র নদই নয় দেশের অনেক নদ-নদী বালুখেকোদের কবলে পড়েছে। তারা নদ-নদী বা পরিবেশের তোয়াক্কা করে না। রাত-দিন বালু তুলে নিজেদের পকেট ভারি করাই তাদের লক্ষ্য। নদ-নদীর বালু যে তোলা যাবে না তা নয়। তবে সেটা নিয়ম মেনে করতে হবে, পরিকল্পনাহীনভাবে নয়।

আমরা চাই, অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ হোক। এজন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। যারা বালু তুলছে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

সিংগাইরে নূরালীগঙ্গা খাল দখল করে স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

কৃষক কেন ন্যায্যমূল্য পান না

শিশুটির বিদ্যালয়ে ভর্তির স্বপ্ন কি অপূর্ণ রয়ে যাবে

ধনাগোদা নদী সংস্কার করুন

স্কুলের খেলার মাঠ রক্ষা করুন

চাটখিলের ‘জাতীয় তথ্য বাতায়ন’ হালনাগাদ করুন

মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের অভিনন্দন, যারা ভালো করেনি তাদের পাশে থাকতে হবে

মিঠাপুকুরে ফসলি জমির টপসয়েল কাটা বন্ধের উদ্যোগ নিন

সড়কে নসিমন, করিমন ও ভটভটি চলাচল বন্ধ করুন

কালীহাতির খরশীলা সেতুর সংযোগ সড়ক সংস্কারে আর কত অপেক্ষা

গতিসীমা মেনে যান চলাচল নিশ্চিত করতে হবে

সাটুরিয়ার সমিতির গ্রাহকদের টাকা আদায়ে ব্যবস্থা নিন

ইভটিজারদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিন

ধোবাউড়ায় ঋণের টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আমলে নিন

বজ্রপাত থেকে বাঁচতে চাই সচেতনতা

ডুমুরিয়ার বেড়িবাঁধের দখল হওয়া জমি উদ্ধারে ব্যবস্থা নিন

পুড়ছে সুন্দরবন

কাজ না করে প্রকল্পের টাকা তুলে নেয়ার অভিযোগ সুরাহা করুন

সরকারি খালে বাঁধ কেন

কৃষকদের ভুট্টার ন্যায্য দাম পেতে ব্যবস্থা নিন

সরকারি হাসপাতালে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ দিন

কালীগঞ্জে ফসলিজমির মাটি কাটায় জড়িতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নির্বিচারে বালু তোলা বন্ধ করুন

খাবার পানির সংকট দূর করুন

গরম কমছে না কেন

মধুপুর বন রক্ষায় ব্যবস্থা নিন

সড়ক দুর্ঘটনার হতাশাজনক চিত্র

সখীপুরে বংশাই নদীতে সেতু চাই

ইটভাটায় ফসলের ক্ষতি : এর দায় কার

টাঙ্গাইলে জলাশয় দখলের অভিযোগের সুরাহা করুন

অবৈধ বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

টিসিবির পণ্য : ওজনে কম দেয়ার অভিযোগ আমলে নিন

ভৈরব নদে সেতু নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

ডায়রিয়া প্রতিরোধে চাই জনসচেতনতা

ফিটনেসবিহীন গণপরিবহন সড়কে চলছে কীভাবে

tab

সম্পাদকীয়

ব্রহ্মপুত্র নদে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বৃহস্পতিবার, ১৮ মে ২০২৩

জামালপুরে ব্রহ্মপুত্র নদের দুই পাশের ৫০টি স্থানে অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন বসিয়ে বালু তুলছে একটি চক্র। ফলে ভাঙন দেখা দিয়েছে নদের দুই পাড়ে। অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধের দাবি জানিয়েছেন ভুক্তভোগী মানুষ। এ নিয়ে সংবাদ-এ গতকাল বুধবার বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বলছে, যারা অবৈধভাবে বালু তুলছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে- এরপরও প্রশাসনের নাকের ডগায় অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে কীভাবে। বালু তোলা বন্ধ করতে প্রশাসনকে বিভিন্ন সময় অভিযান পরিচালনা করতে দেখা যায়। তবে অভিযানে সাধারণত গ্রেপ্তার হন শ্রমজীবী মানুষ। রাঘববোয়ালরা ঠিকই থেকে যান ধরাছোঁয়ার বাইরে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নদ-নদী থেকে নির্বিচারে বালু উত্তোলনের কারণে পানিদূষিত হচ্ছে। নদীগর্ভের গঠনপ্রক্রিয়ায় পরিবর্তন ঘটছে। এতে নদী ভাঙছে। নদ-নদীর হাইড্রোলজিক্যাল কার্যক্রম বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে। যে নদ-নদীর বালু উত্তোলন করা হয় তার আশপাশের মাটি ক্ষয়ে যায়, সেই সঙ্গে মাটির গুণাগুণও নষ্ট হয়।

২০১০ সালের বালুমহাল আইনে বলা আছে, বিপণনের উদ্দেশ্যে কোনো উন্মুক্ত স্থান, চা-বাগানের ছড়া বা নদীর তলদেশ থেকে বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। এছাড়া সেতু, কালভার্ট, ড্যাম, ব্যারাজ, বাঁধ, সড়ক, মহাসড়ক, বন, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা অথবা আবাসিক এলাকা থেকে বালু ও মাটি উত্তোলন নিষিদ্ধ। কিন্তু এটা অনেকেই মানছে না কেন। সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকেও আইন মানাতে বাধ্য করার জন্য তেমন কোনো পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না।

শুধু জামালপুরের ব্রহ্মপুত্র নদই নয় দেশের অনেক নদ-নদী বালুখেকোদের কবলে পড়েছে। তারা নদ-নদী বা পরিবেশের তোয়াক্কা করে না। রাত-দিন বালু তুলে নিজেদের পকেট ভারি করাই তাদের লক্ষ্য। নদ-নদীর বালু যে তোলা যাবে না তা নয়। তবে সেটা নিয়ম মেনে করতে হবে, পরিকল্পনাহীনভাবে নয়।

আমরা চাই, অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ হোক। এজন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। যারা বালু তুলছে তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।

back to top