alt

সম্পাদকীয়

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রসঙ্গে

: বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসররা নৃশংস গণহত্যা চালিয়েছিল। স্বাধীনতার পর পেরিয়েছে পাঁচ দশকেরও বেশি সময়; কিন্তু সেই গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি মেলেনি আজও। অবশ্য একাত্তরের হত্যাযজ্ঞকে সম্প্রতি ‘গণহত্যা, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ’ ঘোষণা করে প্রস্তাব পাস করেছে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব জেনোসাইড স্কলার্স (আইএজিএস)। এটাকে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার পথে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হিসেবে বিবেচনা করছেন অনেকে।

বাংলাদেশে সফররত ইউরোপের একটি প্রতিনিধি দল গণহত্যার স্বীকৃতির প্রশ্নে শুনিয়েছে আশার বাণী। প্রতিনিধি দলের সদস্য নেদারল্যান্ডসের সাবেক সংসদ সদস্য ও মানবাধিকারকর্মী হ্যারি ভ্যান বোমেল আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, একাত্তরে বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে পাওয়া যাবে।

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পাওয়ার পেছনে কাজ করছে বৈশ্বিক রাজনীতি। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয় এমন এক সময়ে যখন দুই পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে শীতল যুদ্ধ চলছিল। সেই শীতল যুদ্ধের কারণে মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীনতাকামী বাঙালিকে দিতে হয়েছে চরম মূল্য। পশ্চিমাবিশ্ব সেই সময় পশ্চিম পাকিস্তানকে সমর্থন দিয়ে গেছে। একই কারণে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও মেলেনি। ইউরোপীয় প্রতিনিধি দলের কথাতেও বিষিয়টি প্রকাশ পেয়েছে।

এখন সময় বদলেছে। শীতল যুদ্ধের অবসান হয়েছে অনেক আগেই। এখনো গণহত্যার স্বীকৃতি না মেলা দুঃখজনক। এটা শুধু বাংলাদেশের মানুষের জন্যই নয়, বিশ্ব মানবতার জন্যই গ্লানিকর। গণহত্যার স্বীকৃতি না মিললে মানবতার শত্রুদের বিচারের মুখোমুখি করা অসম্ভব হয়ে পড়ে, নির্যাতিতদের ন্যায়বিচার দেয়া যায় না।

যারা গণহত্যা চালিয়েছে তাদের বিচার করতে হলে এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়া প্রয়োজন। দেশে দেশে গণহত্যার পুনরাবৃত্তি রোধের স্বার্থেও এর গুরুত্ব রয়েছে। সফররত ইউরোপীয় প্রতিনিধি দল গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার প্রশ্নে যে কথা বলেছে তাতে আমরা আশাবাদী হতে চাই। স্বীকৃতি পাওয়ার পথে তারা নিজ নিজ জায়গা থেকে ভূমিকা পালনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আমরা বিশ্বাস করতে চাই, তারা এ প্রতিশ্রুতি পালন করবেন। তাহলে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার স্বীকৃতি পাওয়ার প্রক্রিয়া গতিশীল হবে।

একাত্তরের গণহত্যা নিয়ে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন পর্যায়ে কথা হচ্ছে। এ অবস্থায় জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা। গণহত্যা নিয়ে তথ্য-প্রমাণভিত্তিক মানসম্মত গবেষণা করে তা বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে হবে। তার স্বীকৃতি আদায়ের জন্য বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে হবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যৌন হয়রানি বন্ধে বাধা কোথায়

বাল্যবিয়ে : সামাজিক এ ব্যাধির নিরাময় করতে হবে সমাজকেই

বাসাইলে সেতু পুনর্নির্মাণে পদক্ষেপ নিন

পাহাড় কাটা কি চলতেই থাকবে

পীরগাছায় আড়াইকুঁড়ি নদীতে সেতু নির্মাণ করুন

বাড়ছে ডেঙ্গু : আতঙ্ক নয়, চাই সচেতনতা

খুলনা নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে টেকসই পদক্ষেপ নিন

শিশু নির্যাতন বন্ধে সমাজের মনোভাব বদলানো জরুরি

তেঁতুলিয়ায় ভিডব্লিউবির চাল বিতরণে অনিয়ম বন্ধ করুন

শিশুর বিকাশে চাই পুষ্টি সচেতনতা

রংপুর শিশু হাসপাতালের কার্যক্রম শুরু করতে দেরি কেন

পেঁয়াজের বাড়তি দাম, লাভের গুড় খাচ্ছে কে

পানি সংকট নিরসনে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

কক্সবাজারে অপহরণ বাণিজ্য কেন বন্ধ করা যাচ্ছে না

ভালুকায় সড়ক সংস্কারের কাজ বন্ধ কেন

মানুষ ও হাতি উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

দালাল চক্রের হাত থেকে বিদেশ গমনেচ্ছুদের রক্ষা করতে হবে

বিএসটিআইর সক্ষমতা বাড়ানো জরুরি

অগ্নিদুর্ঘটনা প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসের সুপারিশ বাস্তবায়ন করতে হবে

সৈয়দপুরে রেলের পয়ঃনিষ্কাশনের নালা দখলমুক্ত করুন

সাইবার অপরাধ দমনে আইনের প্রয়োগ ঘটাতে হবে

ফরিদপুরে পদ্মার বালু তোলা বন্ধে ব্যবস্থা নিন

বজ্রপাত ও অতি উষ্ণতা মোকাবিলায় পদক্ষেপ নিতে হবে

নদী খননে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

পেঁয়াজের দাম ও কিছু প্রশ্ন

সুন্দরগঞ্জে কালভার্ট নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ আমলে নিন

প্রান্তিক দরিদ্রদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে হবে

ব্রহ্মপুত্র নদে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

চাই আর্সেনিকমুক্ত পানি

তারাকান্দার সড়কটি সংস্কার করুন

ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

মোরেলগঞ্জে পানগুছি নদীতীরে বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি

শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনায় চূড়ান্ত ব্যবস্থা নিতে বিলম্ব কেন

দশমিনার খালগুলো রক্ষা করুন

পাহাড় দখল বন্ধে টেকসই পদক্ষেপ নিন

সাতছড়ি উদ্যান রক্ষা করুন

tab

সম্পাদকীয়

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি প্রসঙ্গে

বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের সেনাবাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসররা নৃশংস গণহত্যা চালিয়েছিল। স্বাধীনতার পর পেরিয়েছে পাঁচ দশকেরও বেশি সময়; কিন্তু সেই গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি মেলেনি আজও। অবশ্য একাত্তরের হত্যাযজ্ঞকে সম্প্রতি ‘গণহত্যা, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ’ ঘোষণা করে প্রস্তাব পাস করেছে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন অব জেনোসাইড স্কলার্স (আইএজিএস)। এটাকে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার পথে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হিসেবে বিবেচনা করছেন অনেকে।

বাংলাদেশে সফররত ইউরোপের একটি প্রতিনিধি দল গণহত্যার স্বীকৃতির প্রশ্নে শুনিয়েছে আশার বাণী। প্রতিনিধি দলের সদস্য নেদারল্যান্ডসের সাবেক সংসদ সদস্য ও মানবাধিকারকর্মী হ্যারি ভ্যান বোমেল আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, একাত্তরে বাংলাদেশে সংঘটিত গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আগামী কয়েক বছরের মধ্যে পাওয়া যাবে।

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পাওয়ার পেছনে কাজ করছে বৈশ্বিক রাজনীতি। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয় এমন এক সময়ে যখন দুই পরাশক্তি যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার মধ্যে শীতল যুদ্ধ চলছিল। সেই শীতল যুদ্ধের কারণে মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীনতাকামী বাঙালিকে দিতে হয়েছে চরম মূল্য। পশ্চিমাবিশ্ব সেই সময় পশ্চিম পাকিস্তানকে সমর্থন দিয়ে গেছে। একই কারণে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও মেলেনি। ইউরোপীয় প্রতিনিধি দলের কথাতেও বিষিয়টি প্রকাশ পেয়েছে।

এখন সময় বদলেছে। শীতল যুদ্ধের অবসান হয়েছে অনেক আগেই। এখনো গণহত্যার স্বীকৃতি না মেলা দুঃখজনক। এটা শুধু বাংলাদেশের মানুষের জন্যই নয়, বিশ্ব মানবতার জন্যই গ্লানিকর। গণহত্যার স্বীকৃতি না মিললে মানবতার শত্রুদের বিচারের মুখোমুখি করা অসম্ভব হয়ে পড়ে, নির্যাতিতদের ন্যায়বিচার দেয়া যায় না।

যারা গণহত্যা চালিয়েছে তাদের বিচার করতে হলে এর আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়া প্রয়োজন। দেশে দেশে গণহত্যার পুনরাবৃত্তি রোধের স্বার্থেও এর গুরুত্ব রয়েছে। সফররত ইউরোপীয় প্রতিনিধি দল গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাওয়ার প্রশ্নে যে কথা বলেছে তাতে আমরা আশাবাদী হতে চাই। স্বীকৃতি পাওয়ার পথে তারা নিজ নিজ জায়গা থেকে ভূমিকা পালনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। আমরা বিশ্বাস করতে চাই, তারা এ প্রতিশ্রুতি পালন করবেন। তাহলে একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে গণহত্যার স্বীকৃতি পাওয়ার প্রক্রিয়া গতিশীল হবে।

একাত্তরের গণহত্যা নিয়ে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন পর্যায়ে কথা হচ্ছে। এ অবস্থায় জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে একাত্তরের গণহত্যার স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবে- সেটা আমাদের প্রত্যাশা। গণহত্যা নিয়ে তথ্য-প্রমাণভিত্তিক মানসম্মত গবেষণা করে তা বিশ্ব দরবারে তুলে ধরতে হবে। তার স্বীকৃতি আদায়ের জন্য বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে হবে।

back to top