alt

উপ-সম্পাদকীয়

বন্যাকালীন রোগ-বালাই রোধে করণীয়

নাজমুল হুদা খান

: রোববার, ২৬ জুন ২০২২

বাংলাদেশের অভ্যুদয় থেকেই নয়; বন্যার সঙ্গে এ ব-দ্বীপের সম্পর্ক যেন সৃষ্টি থেকেই। তাই দেশের পানি বিশেষজ্ঞগণের মতামত, “বন্যা না হলে তো বাংলাদেশ হতো না”। বাংলাদেশের অবস্থানটা এমন স্থানে যে, এতদঞ্চলে বন্যার প্রবণতা রয়েছে। পাশাপাশি এ দেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহমান ছোট বড় ২৩০টি নদী। বিভিন্ন কারণে এদের নাব্যতা হ্রাস, হিমালয়ের বরফগলা, উজানের দেশগুলো থেকে নেমে আসা বৃষ্টি আর মানবসৃষ্ট বিভিন্ন অব্যবস্থাপনার কারণেই এ বন্যা বিপর্যয়।

এ ভূখন্ড ব্রিটিশদের দখলের পর ১৭৬৭ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে বন্যার তথ্য পাওয়া যায়। অত্র অঞ্চলে বন্যা নিয়ে মহাভারত, রামায়ন ও অন্যান্য প্রাচীন গ্রন্থে লেখা রয়েছে। ৩২১-২৯৬ খ্রিস্টপূর্বে চন্দ্রগুপ্তের আমলে এবং ৫০৭-৫৮৭ খ্রি. পূর্বে জ্যোতির্বিদ আর্যভট্রের লেখায় এ এলাকার বন্যার আভাস রয়েছে। এ বংগে ১৮৭০-১৯২২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত অধ্যাপক পিসি মহলানবীশ প্রকাশ করেন যে, এখানে প্রতি দুই বছর পর পর মাঝারি এবং ৬-৭ বছর অন্তর বড় ধরনের বন্যার দেখা দিত। এমনকি এ সময় বন্যার কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের পুরোনো গতিপথের পরিবর্তন ঘটে। এ দেশে বন্যার দাপটের শুরু মূলত ১৯৫৪ সাল থেকে। ১৯৫৪-৯৮ সাল পর্যন্ত তিন যুগে প্রায় ৩২ বার বড় আকারের বন্যা দেখা দেয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঠিক আগে ১৯৭০ সালে রয়েছে প্রলয়ংকারী বন্যার দুঃসহ স্মৃতি। এ বছরের বন্যায় প্রানহানি ঘটে ৫ লাখ মানুষের। খাদ্যশস্য নষ্ট হয় প্রায় ১৩ লাখ টন। স্বাধীনতার পর ১৯৭২, ১৯৭৩, ১৯৭৪, ১৯৮৭, ১৯৮৮, ১৯৯৮, ২০০৮ ও ২০১৭ সালে পুরো দেশজুড়ে বন্যার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এসব বন্যায় দেশের ২০-৬০ শতাংশ এলাকা প্লাবিত হতে দেখা যায়। বন্যায় ঘরবাড়ি, গবাদিপশু, কৃষিপণ্য, মৎস্য খামার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সব সামাজিক সরবরাহ, সেতু-কালভার্টসহ ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় হাজার হাজার কোটি টাকা।

বন্যার কারণে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা, পয়ঃ ও পানি নিষ্কাশন এবং সুপেয় পানির অভাব, খাদ্যসংকট , পরিবেশ দূষণ, সাপ ও নানা ধরনের বিষাক্ত প্রাণী ও মশা-মাছির উপদ্রবসহ নানা কারণে জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। পানি ও খাদ্যবাহিত রোগ যথা : ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, টাইফয়েড, হেপাটাইটিস ও পেটের পীড়া প্রভৃতি ব্যাধিতে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। পরিবেশ দূষণের কারণে জ্বর, কাশি, নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস, নানা ধরনের চর্মরোগ, কঞ্জাংটিভাইটিসসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। বন্যার সময় প্রায়শই পানিতে ডুবে বা বিদ্যুৎতায়িত হয়ে কিংবা সর্প দংশনে মৃত্যুবরণ করতে দেখা যায় অনেক মানুষকে।

বন্যার কারণে সৃষ্ট রোগের সিংহভাগই হয়ে থাকে পানি ও খাবার থেকে। এ সময় কষ্ট হলেও বন্যার পানি পান পরিহার করতে হবে। সম্ভব হলে আধা ঘণ্টা ফুটিয়ে পান করতে হবে, ফুটানো সম্ভব না হলে ১০ লিটার পানিতে ২টি পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট (হ্যালোজেন ট্যাবলেট) আধঘণ্টা মিশিয়ে রাখলেই ওই পানি পানের উপযোগী হবে।

বন্যাকালে অধিকাংশ সময় পানির সংস্পর্শে থাকার ফলে শরীরে খোসপাঁচড়া, ফাংগাসের সংক্রমণ বা স্ক্যাবিস জাতীয় চর্মরোগ দেখা দিতে পারে, তাই যতটা সম্ভব শরীর শুকনো রাখতে হবে

পচা ও বাসি খাবার গ্রহণ পরিহার করতে হবে, খাবার সব সময় ঢেকে রাখতে হবে। তাহলেই কলেরা বা ডায়রিয়া জীবাণু বহনকারী মাছি বা মশা এসব রোগ ছড়াতে পারবে না। বাসস্থানের আশপাশে মলমূত্র ত্যাগে বিরত থাকতে হবে; এ সময় অবশ্যই সাবান, ছাই বা মাটি দিয়ে হাত পরিষ্কার করে ফেলতে হবে।

বন্যাকালে অধিকাংশ সময় পানির সংস্পর্শে থাকার ফলে শরীরে খোসপাঁচড়া , ফাংগাসের সংক্রমণ বা স্ক্যাবিস জাতীয় চর্মরোগ দেখা দিতে পারে, তাই যতটা সম্ভব শরীর শুকনো রাখতে হবে। শিশুদের অনেকে সাঁতার না জানার কারণে ও বৃদ্ধরা এ সময় পানিতে ডুবে যাওয়ার মতো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, তাই এদের দিকে বিশেষ নজর রাখতে হবে।

এ সময় সাপ ও ইঁদুরের উপদ্রব বেড়ে যায়। বাসস্থানের চারদিকে কার্বলিক এসিড রেখে দিলে সাপের উপদ্রব হ্রাস পায়। সাপ বা ইঁদুর কামড়ালে দ্রুত স্থানীয় মেডিকেল টিম বা চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। ডায়রিয়া বা কলেরা আক্রান্ত রোগীকে পর্যাপ্ত খাবার স্যালাইন বা ভাতের মাড় খাওয়ালে শরীরে পানি শূন্যতা কমবে। পাশাপাশি তাদের স্থানীয় মেডিকেল টিম বা চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যেতে হবে। বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা এড়াতে পারতপক্ষে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখাই শ্রেয়। সংযোগ চলাকালে বিশেষ সতর্কতা জরুরি।

বন্যা-পরবর্তী সময়ে বাড়িঘর, পয়ঃনিষ্কাশনসহ বাড়ির আঙিনা ও আশেপাশে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হবে। মৃত ও পচা জীবজন্ত মাটিতে পুঁতে ফেলতে হবে। বন্যায় ডুবে যাওয়া টিউবওয়েলের মূল অংশ খুলে পাইপের পানিতে ০.০৫% ব্লিচিং দ্রবণ ঢেলে, আধা ঘণ্টা পর মূল অংশ পুনঃস্থাপন করে ১৫-২০ মিনিট ধরে চেপে পানি বের করে ফেললেই টিউবওয়েলের পানি পানের উপযোগী হয়ে যাবে।

প্রাকৃতিক ও ভৌগলিক কারণে বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম একটি বন্যাপ্রবণ দেশ। আন্তর্জাতিক ও জাতীয়ভাবে সমন্বিত উদ্যোগ; নদী ও পানি সম্পদের যথাযথ ব্যবস্থাপনা ও সচেতনতা বন্যাকে নির্মূল করা না গেলেও তীব্রতা অনেকটাই হ্রাস সম্ভব। পাশাপাশি বন্যা ও বন্যা-পরবর্তী দুর্যোগ প্রতিরোধ, ক্ষয়ক্ষতি প্রশমন ও জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা যাতে ভেঙে না পড়ে সেদিকে আমাদের নজর দিতে হবে।

[লেখক : সহকারী পরিচালক, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল]

সামাজিক সংঘের ভূমিকা

সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ

আলোর ভেতর যত কালো

বাড়াতে হবে খাদ্য উৎপাদন

সাম্রাজ্যবাদের যুদ্ধ-যুদ্ধ খেলা ও যুদ্ধবিরোধিতার গুরুত্ব

পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি : কৃষিপণ্যে প্রভাব

সুষ্ঠু নির্বাচন পরিচালনায় ইসি কতটা সক্ষম

ছবি

সোশ্যাল মিডিয়া কি একাকিত্ব ও অহংবোধ বাড়িয়ে দিচ্ছে?

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা : স্থপতি স্বর্ণকন্যা শেখ হাসিনা

আদিবাসী বিতর্ক

অনগ্রসর আদিবাসী জাতি

সাক্ষরতা ও শিক্ষা

সম্প্রীতির বাঁধন কি আলগা হয়ে আসছে?

অর্থনৈতিক সংকট : মুক্তি কোন পথে

গাড়িতে চাই শিশু আসন

ডলার সংকটের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট ও উত্তরণের উপায়

ছবি

পরিবহন খাতে জ্বালানির ব্যবহার

বিশ্ব মন্দায় বাংলাদেশের শক্তি

দাগ তো চেহারার, আয়না মুছে কি হবে

টেকসই উন্নয়নে সাশ্রয়ী দৃষ্টিভঙ্গি

ছবি

ডলার সংকটের শেষ কোথায়?

পাবলিক পরীক্ষায় অপরাধ

মানব পাচারে প্রযুক্তির অপব্যবহার

ছবি

বাংলাদেশের কেন শ্রীলঙ্কা হওয়ার আশঙ্কা কম

শিক্ষকের মর্যাদা

ধেয়ে আসছে বৈশ্বিক ঋণসংকট, শ্রীলঙ্কাতেই শেষ নয়

সব ফিউজ বাল্বের মূল্য সমান

মাঙ্কিপক্সে আতঙ্ক নয়

বৈশ্বিক জ্বালানি সংকট : বাংলাদেশের উপায় কী

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা : স্থপতি স্বর্ণকন্যা শেখ হাসিনা

ছবি

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা কি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ পেতে যাচ্ছে

কাগজ সংকট সভ্যতারও সংকট

শিশুদের পঠনদক্ষতা বাড়াতে পারে ‘ডাকপড়া’

অর্থনীতির সংকট কাটবে কীভাবে?

ছবি

পারিসার সাহস

সংখ্যালঘু ও ধর্মীয় অনুভূতি

tab

উপ-সম্পাদকীয়

বন্যাকালীন রোগ-বালাই রোধে করণীয়

নাজমুল হুদা খান

রোববার, ২৬ জুন ২০২২

বাংলাদেশের অভ্যুদয় থেকেই নয়; বন্যার সঙ্গে এ ব-দ্বীপের সম্পর্ক যেন সৃষ্টি থেকেই। তাই দেশের পানি বিশেষজ্ঞগণের মতামত, “বন্যা না হলে তো বাংলাদেশ হতো না”। বাংলাদেশের অবস্থানটা এমন স্থানে যে, এতদঞ্চলে বন্যার প্রবণতা রয়েছে। পাশাপাশি এ দেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহমান ছোট বড় ২৩০টি নদী। বিভিন্ন কারণে এদের নাব্যতা হ্রাস, হিমালয়ের বরফগলা, উজানের দেশগুলো থেকে নেমে আসা বৃষ্টি আর মানবসৃষ্ট বিভিন্ন অব্যবস্থাপনার কারণেই এ বন্যা বিপর্যয়।

এ ভূখন্ড ব্রিটিশদের দখলের পর ১৭৬৭ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে বন্যার তথ্য পাওয়া যায়। অত্র অঞ্চলে বন্যা নিয়ে মহাভারত, রামায়ন ও অন্যান্য প্রাচীন গ্রন্থে লেখা রয়েছে। ৩২১-২৯৬ খ্রিস্টপূর্বে চন্দ্রগুপ্তের আমলে এবং ৫০৭-৫৮৭ খ্রি. পূর্বে জ্যোতির্বিদ আর্যভট্রের লেখায় এ এলাকার বন্যার আভাস রয়েছে। এ বংগে ১৮৭০-১৯২২ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত অধ্যাপক পিসি মহলানবীশ প্রকাশ করেন যে, এখানে প্রতি দুই বছর পর পর মাঝারি এবং ৬-৭ বছর অন্তর বড় ধরনের বন্যার দেখা দিত। এমনকি এ সময় বন্যার কারণে ব্রহ্মপুত্র নদের পুরোনো গতিপথের পরিবর্তন ঘটে। এ দেশে বন্যার দাপটের শুরু মূলত ১৯৫৪ সাল থেকে। ১৯৫৪-৯৮ সাল পর্যন্ত তিন যুগে প্রায় ৩২ বার বড় আকারের বন্যা দেখা দেয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঠিক আগে ১৯৭০ সালে রয়েছে প্রলয়ংকারী বন্যার দুঃসহ স্মৃতি। এ বছরের বন্যায় প্রানহানি ঘটে ৫ লাখ মানুষের। খাদ্যশস্য নষ্ট হয় প্রায় ১৩ লাখ টন। স্বাধীনতার পর ১৯৭২, ১৯৭৩, ১৯৭৪, ১৯৮৭, ১৯৮৮, ১৯৯৮, ২০০৮ ও ২০১৭ সালে পুরো দেশজুড়ে বন্যার প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এসব বন্যায় দেশের ২০-৬০ শতাংশ এলাকা প্লাবিত হতে দেখা যায়। বন্যায় ঘরবাড়ি, গবাদিপশু, কৃষিপণ্য, মৎস্য খামার, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সব সামাজিক সরবরাহ, সেতু-কালভার্টসহ ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়ায় হাজার হাজার কোটি টাকা।

বন্যার কারণে দীর্ঘদিনের জলাবদ্ধতা, পয়ঃ ও পানি নিষ্কাশন এবং সুপেয় পানির অভাব, খাদ্যসংকট , পরিবেশ দূষণ, সাপ ও নানা ধরনের বিষাক্ত প্রাণী ও মশা-মাছির উপদ্রবসহ নানা কারণে জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ে। পানি ও খাদ্যবাহিত রোগ যথা : ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, টাইফয়েড, হেপাটাইটিস ও পেটের পীড়া প্রভৃতি ব্যাধিতে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। পরিবেশ দূষণের কারণে জ্বর, কাশি, নিউমোনিয়া, ব্রংকাইটিস, নানা ধরনের চর্মরোগ, কঞ্জাংটিভাইটিসসহ বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। বন্যার সময় প্রায়শই পানিতে ডুবে বা বিদ্যুৎতায়িত হয়ে কিংবা সর্প দংশনে মৃত্যুবরণ করতে দেখা যায় অনেক মানুষকে।

বন্যার কারণে সৃষ্ট রোগের সিংহভাগই হয়ে থাকে পানি ও খাবার থেকে। এ সময় কষ্ট হলেও বন্যার পানি পান পরিহার করতে হবে। সম্ভব হলে আধা ঘণ্টা ফুটিয়ে পান করতে হবে, ফুটানো সম্ভব না হলে ১০ লিটার পানিতে ২টি পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট (হ্যালোজেন ট্যাবলেট) আধঘণ্টা মিশিয়ে রাখলেই ওই পানি পানের উপযোগী হবে।

বন্যাকালে অধিকাংশ সময় পানির সংস্পর্শে থাকার ফলে শরীরে খোসপাঁচড়া, ফাংগাসের সংক্রমণ বা স্ক্যাবিস জাতীয় চর্মরোগ দেখা দিতে পারে, তাই যতটা সম্ভব শরীর শুকনো রাখতে হবে

পচা ও বাসি খাবার গ্রহণ পরিহার করতে হবে, খাবার সব সময় ঢেকে রাখতে হবে। তাহলেই কলেরা বা ডায়রিয়া জীবাণু বহনকারী মাছি বা মশা এসব রোগ ছড়াতে পারবে না। বাসস্থানের আশপাশে মলমূত্র ত্যাগে বিরত থাকতে হবে; এ সময় অবশ্যই সাবান, ছাই বা মাটি দিয়ে হাত পরিষ্কার করে ফেলতে হবে।

বন্যাকালে অধিকাংশ সময় পানির সংস্পর্শে থাকার ফলে শরীরে খোসপাঁচড়া , ফাংগাসের সংক্রমণ বা স্ক্যাবিস জাতীয় চর্মরোগ দেখা দিতে পারে, তাই যতটা সম্ভব শরীর শুকনো রাখতে হবে। শিশুদের অনেকে সাঁতার না জানার কারণে ও বৃদ্ধরা এ সময় পানিতে ডুবে যাওয়ার মতো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, তাই এদের দিকে বিশেষ নজর রাখতে হবে।

এ সময় সাপ ও ইঁদুরের উপদ্রব বেড়ে যায়। বাসস্থানের চারদিকে কার্বলিক এসিড রেখে দিলে সাপের উপদ্রব হ্রাস পায়। সাপ বা ইঁদুর কামড়ালে দ্রুত স্থানীয় মেডিকেল টিম বা চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। ডায়রিয়া বা কলেরা আক্রান্ত রোগীকে পর্যাপ্ত খাবার স্যালাইন বা ভাতের মাড় খাওয়ালে শরীরে পানি শূন্যতা কমবে। পাশাপাশি তাদের স্থানীয় মেডিকেল টিম বা চিকিৎসকের নিকট নিয়ে যেতে হবে। বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা এড়াতে পারতপক্ষে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখাই শ্রেয়। সংযোগ চলাকালে বিশেষ সতর্কতা জরুরি।

বন্যা-পরবর্তী সময়ে বাড়িঘর, পয়ঃনিষ্কাশনসহ বাড়ির আঙিনা ও আশেপাশে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করতে হবে। মৃত ও পচা জীবজন্ত মাটিতে পুঁতে ফেলতে হবে। বন্যায় ডুবে যাওয়া টিউবওয়েলের মূল অংশ খুলে পাইপের পানিতে ০.০৫% ব্লিচিং দ্রবণ ঢেলে, আধা ঘণ্টা পর মূল অংশ পুনঃস্থাপন করে ১৫-২০ মিনিট ধরে চেপে পানি বের করে ফেললেই টিউবওয়েলের পানি পানের উপযোগী হয়ে যাবে।

প্রাকৃতিক ও ভৌগলিক কারণে বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম একটি বন্যাপ্রবণ দেশ। আন্তর্জাতিক ও জাতীয়ভাবে সমন্বিত উদ্যোগ; নদী ও পানি সম্পদের যথাযথ ব্যবস্থাপনা ও সচেতনতা বন্যাকে নির্মূল করা না গেলেও তীব্রতা অনেকটাই হ্রাস সম্ভব। পাশাপাশি বন্যা ও বন্যা-পরবর্তী দুর্যোগ প্রতিরোধ, ক্ষয়ক্ষতি প্রশমন ও জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা যাতে ভেঙে না পড়ে সেদিকে আমাদের নজর দিতে হবে।

[লেখক : সহকারী পরিচালক, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল]

back to top