alt

উপ-সম্পাদকীয়

অঙ্গদানের অনন্য উদাহরণ

আর কে চৌধুরী

: মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২৩
image

সারাহ ইসলাম

বাংলাদেশে কিডনি রোগে প্রতি বছরই প্রাণ হারায় বিপুল সংখ্যক মানুষ। দেশে কিডনি প্রতিস্থাপনের সুযোগ থাকলেও কুসংস্কারের কারণে বিপদাপন্ন রোগীদের জন্য কিডনি পাওয়া যায় না। প্রথমবারের মতো ‘ব্রেন ডেড’ রোগীর শরীর থেকে নেওয়া দুটি কিডনি দুজনের শরীরে সফলভাবে প্রতিস্থাপন হলো বাংলাদেশে। এতে নেতৃত্ব দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) রেনাল ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন অধ্যাপক হাবিবুর রহমান দুলাল।

২০ বছর বয়সী ‘ব্রেন ডেড’ নারী সারার শরীর থেকে নেওয়া দুটি কিডনি দুই নারী কিডনি রোগীর শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে বুধবার রাতে। একটি কিডনি প্রতিস্থাপন বিএসএমএমইউতে হয়েছে, আরেকটি প্রতিস্থাপন করেছে ন্যাশনাল কিডনি ফাউন্ডেশন। বর্তমানে দুজনই ভালো আছেন।

জেনেটিক ডিজিজে আক্রান্ত ২০ বছর বয়সী সারাহ ইসলাম নামের এক রোগীর বিএসএমএমইউতে সার্জারি হয়। তারপর অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে রাখা হয়। তিনি যখন ব্রেন ডেডের দিকে যাচ্ছেন তখন তার মাকে কাউন্সিলিং করেন চিকিৎসকরা। তার স্কুলশিক্ষক মা ব্রেন ডেড সারার দুটি কিডনি ও দুটি কর্নিয়া ট্রান্সপ্লান্টের অনুমতি দেন। স্কুলশিক্ষক মা তার কন্যা সারাহ ইসলামকে হারিয়েছেন জীবনের জন্য।

কিন্তু ব্রেন ডেড হয়ে যাওয়া কন্যার দুটি কিডনি প্রতিস্থাপন করে বেঁচে গেল দুটি জীবন। তার দুটি কর্নিয়া দুজন অন্ধ মানুষকে পৃথিবীর আলো দেখার সৌভাগ্য নিশ্চিত করবে। আমরা সারা ইসলামের শিক্ষক মায়ের সিদ্ধান্তকে অভিবাদন জানাই। এ ঘটনা ব্রেন ডেড হওয়া রোগীদের কিডনি দানে স্বজনদের উৎসাহ জোগাবে। যে সিদ্ধান্তের কল্যাণে বেঁচে যাবে অনেক মানুষ।

বিএসএমএমইউর উপাচার্য মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রথম অঙ্গদাতা সারাহ ইসলামের নাম চিকিৎসাক্ষেত্রে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। তার এ ত্যাগের মাধ্যমে মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরি হবে। অনেক মানুষ নতুন জীবন পাবে।’

মৃত্যুর চার দিন আগে মস্তিষ্ক অপারেশনের জন্য একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয় সারাহকে। সেখানথেকে নেয়া হয় বিএসএমএমইউতে। যখন সারাহ বুঝতে পারেন তার অবস্থা ভালো না তখন তার মাকে বলে যান মৃত্যুর পর যেন তার অঙ্গ দান করা হয়।

সারাহ তার পুরো অঙ্গটাই দান করে গেছেন। আমাদের দেশে হার্ট ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট এখনও সেভাবে শুরু হয়নি বলে এ দুটি অঙ্গ নেওয়া হয়নি।

বিএসএমএমইউর প্রক্টর অধ্যাপক হাবিবুর রহমান দুলাল বলেন, সারাহকে বীরের মর্যাদা দেওয়া উচিত। মরণোত্তর কিডনি দানে উদ্বুদ্ধ করতে সারাহর এই দান মানুষের কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]

টেকসই উন্নয়নের জন্য মানসম্মত শিক্ষা

একজন ইউএনওর বিদায়ে মানুষ কাঁদল কেন

ছবি

সাপলুডু খেলার অবসান চাই

কৃষি খাতে যান্ত্রিকীকরণ

দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে হবে

ধর্মীয় সংখ্যালঘু খ্রিস্টানরা ভালো নেই

বঙ্গবন্ধু, বাংলা ও বাঙালি

ডিসি সম্মেলন : ধান ভানতে শিবের গীত

সন্তানের অভিভাবক হিসেবে মায়ের স্বীকৃতি ও বাস্তবতা

নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিখন-শেখানো কেমন হবে

নতুন কারিকুলামে ইংরেজি শিখন-শেখানো কেমন হবে

বিপর্যয়ের মুখে ধান ও পাট আবাদ : বিপাকে কৃষককুল

বিশ্ব কুষ্ঠ দিবস

নগরে আগুন লাগলে দেবালয় কি অক্ষত থাকে

স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে বিকেন্দ্রীকরণ জরুরি

পাঠ্য বইয়ে ডারউইনের তত্ত্ব

ভাঙ্গা-মাওয়া এক্সপ্রেস সড়কে দুর্ঘটনা রোধে ব্যবস্থা নিন

প্রাণীর জন্য ভালোবাসা

সন্দেহের বশে ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার

শিক্ষকরাই পারেন শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধ শেখাতে

ফ্লোর প্রাইস ও স্থিতিশীল শেয়ারবাজার

ছবি

বায়ুদূষণের ঝুঁকিতে দেশ

বিএনপি নেতৃত্বের সংকট ও আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ

তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার রোধে সচেতনতা

‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়তে চাই দক্ষ জনসম্পদ

মডেল গ্রাম মুশুদ্দির গল্প

ফাইভ-জি : ডিজিটাল শিল্পযুগের মহাসড়ক

ছবি

স্মৃতির পাতায় ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান

ছবি

দক্ষিণডিহির স্মৃতিতে রবীন্দ্রনাথ

একাডেমিক পড়াশোনার পাশাপাশি এক্সট্রা কারিকুলাম জরুরি

বায়ুদূষণে বাংলাদেশের শীর্ষ অবস্থান আর কতকাল

স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সুশাসনের প্রধান উপাদান

নিয়মের বেড়াজালে ‘অপারেশন জ্যাকপট’

নতুন কারিকুলামে বিজ্ঞান শিক্ষা

নির্বাচন কমিশনের বিশ্বাসযোগ্যতা

খেলার মাঠের বিকল্প নেই

tab

উপ-সম্পাদকীয়

অঙ্গদানের অনন্য উদাহরণ

আর কে চৌধুরী

image

সারাহ ইসলাম

মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২৩

বাংলাদেশে কিডনি রোগে প্রতি বছরই প্রাণ হারায় বিপুল সংখ্যক মানুষ। দেশে কিডনি প্রতিস্থাপনের সুযোগ থাকলেও কুসংস্কারের কারণে বিপদাপন্ন রোগীদের জন্য কিডনি পাওয়া যায় না। প্রথমবারের মতো ‘ব্রেন ডেড’ রোগীর শরীর থেকে নেওয়া দুটি কিডনি দুজনের শরীরে সফলভাবে প্রতিস্থাপন হলো বাংলাদেশে। এতে নেতৃত্ব দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ) রেনাল ট্রান্সপ্লান্ট সার্জন অধ্যাপক হাবিবুর রহমান দুলাল।

২০ বছর বয়সী ‘ব্রেন ডেড’ নারী সারার শরীর থেকে নেওয়া দুটি কিডনি দুই নারী কিডনি রোগীর শরীরে প্রতিস্থাপন করা হয়েছে বুধবার রাতে। একটি কিডনি প্রতিস্থাপন বিএসএমএমইউতে হয়েছে, আরেকটি প্রতিস্থাপন করেছে ন্যাশনাল কিডনি ফাউন্ডেশন। বর্তমানে দুজনই ভালো আছেন।

জেনেটিক ডিজিজে আক্রান্ত ২০ বছর বয়সী সারাহ ইসলাম নামের এক রোগীর বিএসএমএমইউতে সার্জারি হয়। তারপর অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে রাখা হয়। তিনি যখন ব্রেন ডেডের দিকে যাচ্ছেন তখন তার মাকে কাউন্সিলিং করেন চিকিৎসকরা। তার স্কুলশিক্ষক মা ব্রেন ডেড সারার দুটি কিডনি ও দুটি কর্নিয়া ট্রান্সপ্লান্টের অনুমতি দেন। স্কুলশিক্ষক মা তার কন্যা সারাহ ইসলামকে হারিয়েছেন জীবনের জন্য।

কিন্তু ব্রেন ডেড হয়ে যাওয়া কন্যার দুটি কিডনি প্রতিস্থাপন করে বেঁচে গেল দুটি জীবন। তার দুটি কর্নিয়া দুজন অন্ধ মানুষকে পৃথিবীর আলো দেখার সৌভাগ্য নিশ্চিত করবে। আমরা সারা ইসলামের শিক্ষক মায়ের সিদ্ধান্তকে অভিবাদন জানাই। এ ঘটনা ব্রেন ডেড হওয়া রোগীদের কিডনি দানে স্বজনদের উৎসাহ জোগাবে। যে সিদ্ধান্তের কল্যাণে বেঁচে যাবে অনেক মানুষ।

বিএসএমএমইউর উপাচার্য মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘প্রথম অঙ্গদাতা সারাহ ইসলামের নাম চিকিৎসাক্ষেত্রে স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। তার এ ত্যাগের মাধ্যমে মানুষের মাঝে সচেতনতা তৈরি হবে। অনেক মানুষ নতুন জীবন পাবে।’

মৃত্যুর চার দিন আগে মস্তিষ্ক অপারেশনের জন্য একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয় সারাহকে। সেখানথেকে নেয়া হয় বিএসএমএমইউতে। যখন সারাহ বুঝতে পারেন তার অবস্থা ভালো না তখন তার মাকে বলে যান মৃত্যুর পর যেন তার অঙ্গ দান করা হয়।

সারাহ তার পুরো অঙ্গটাই দান করে গেছেন। আমাদের দেশে হার্ট ও লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট এখনও সেভাবে শুরু হয়নি বলে এ দুটি অঙ্গ নেওয়া হয়নি।

বিএসএমএমইউর প্রক্টর অধ্যাপক হাবিবুর রহমান দুলাল বলেন, সারাহকে বীরের মর্যাদা দেওয়া উচিত। মরণোত্তর কিডনি দানে উদ্বুদ্ধ করতে সারাহর এই দান মানুষের কাছে উদাহরণ হয়ে থাকবে।

[লেখক : সাবেক চেয়ারম্যান, রাজউক]

back to top