alt

উপ-সম্পাদকীয়

মাদকের নেটওয়ার্ক ভেঙে দিতে হবে

মিকাইল হোসেন

: বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৫ কোটি তরুণ রয়েছে। এই তরুণরাই আমাদের অহংকার। বর্তমানে বাংলাদেশ বিশ্ব মানচিত্রে যে জায়গা করে নিয়েছে, উন্নয়নের মডেলে পরিণত হয়েছে তা সম্ভব হয়েছে তরুণদের সাহসী পদক্ষেপের কারণে। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। ২০৩০ সালে টেকসই উন্নয়নের ও রোল মডেল হবে। ২০৪১ সালে উন্নত বিশ্বে পরিণত হবে। বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ।

আগামীর বাংলাদেশ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ। আর স্মার্ট বাংলাদেশ মাদকমুক্ত স্মার্ট তরুণ ছাড়া সম্ভব না। কারণ মাদকাসক্ত তরুণরা কখনো স্মার্ট চিন্তা করতে পারবে না। বাংলাদেশ যতই উন্নত হচ্ছে ততই মাদকাসক্ত তরুণদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যে সংখ্যা বর্তমানে জ্যামিতিকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। জাতির কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিচ্ছে মাদকাসক্ত তরুণরা। সাধারণত ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের তরুণ- যুব জনগোষ্ঠী ধরা হয়। আর মাদকাসক্ত ৮০% হচ্ছে তরুণ। একটি তথ্যমতে, মাদকসেবীর সংখ্যা এখন দেশে প্রায় ২ কোটি। এর মধ্যে দেড় কোটি নিয়মিত। ৫০ লাখের মতো অনিয়মিত। দেশে সেবনকারীরা গড়ে প্রতিদিন অন্তত ২০ কোটি টাকার মাদক সেবন করে। ৫ সংস্থার ৭ লাখ ৯৩ হাজার ৩৮২ মামলায় ১০ লাখ ১০ হাজার আসামি। বিগত এক যুগে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার মাদক উদ্ধার হয়েছে।

বছরের হিসাবে মাদকের পেছনে খরচ হয় ৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। এ ব্যবসায় জড়িত ২০০ গডফাদার ও বিক্রির নেটওয়ার্কে কাজ করে ১ লাখ ৬৫ হাজার জন। এ পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া ২৫ ধরনের উল্লেযোগ্য মাদকের মধ্যে উল্লেযোগ্য হচ্ছে- ইয়াবা, হেরোইন, আফিম, গাঁজা, ফেনসিডিল, বিদেশি মদ, বিয়ার, ইনজেকটিং ড্রাগ, এল এস ডি ও আইস। মাদকদ্রব্য ও নেশা নিরোধ সংস্থার (মানস) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের উপদেষ্টা সদস্য অধ্যাপক ডা. অরুপরতন চৌধুরী বলেন, মাদকদ্রব্য উদ্ধারের চিত্র দেখলেই বিস্তারের একটা ধারণা পাওয়া যায়। যেগুলো উদ্ধার হচ্ছে সেগুলো তো শুধু যা তাদের চোখে পড়ছে। সব তো আর চোখে পড়ছে না। যা ধরা পড়ে, সেটা খুবই সামান্য। বেশির ভাগই থেকে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে। বিশেষ করে ছাত্রদের মধ্যে মাদকের বিস্তার জাতিকে ভাবিয়ে তুলেছে। প্রতিদিনই বাজারে চাহিদা বাড়ছে।

মাদকে আসক্ত হওয়ার কারণে তরুণদের চিন্তার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। তরুণরা প্রগতিশীল হতে পারছে না। তারা পরিবার ও রাষ্ট্রের বোঝা হয়ে পড়ছে। তাদের চিন্তা-চেতনায় প্রগতিশীলতা ও সৃষ্টিশীলতার ছাপ পড়ছে না। বিপুলসংখ্যক তরুণরা মাদকাসক্ত হওয়ায় রাষ্ট্রের লক্ষ্য অর্জনে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। মাদকে আসক্ত হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে অস্বাভাবিক প্রতিযোগিতা, সামাজিক অস্থিরতা, উত্তেজনা, একঘেয়েমি, একাকিত্ব এবং পারিবারিক কাঠামো পরিবর্তনের পরিবেশে ব্যর্থতার সঙ্গে লড়াই করতে অক্ষমতা। তবে মাদকের সহজলভ্যতা মাদকাসক্তের হার বহুগুণে বৃদ্ধি করে। দ্রুত নগরায়ণ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, ব্যাপক উন্নয়ন এবং ইন্টারনেট ও তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার, সামাজিক সচেতনতার অভাব ইত্যাদি ও মাদকের সমস্যার জন্য দায়ী।

পারিবারিক কলহ, ডিভোর্সের কারণে ভেঙে যাওয়া পরিবার, প্রেম ও চাকরিতে ব্যর্থতা থেকে হতাশার কারণে ও মাদকাসক্তের হার বাড়ছে। বেশির ভাগ মাদক ব্যবহারকারী ‘পিয়ার প্রেশার’ বা বন্ধু-বান্ধবের পাল্লায় পড়াকে প্রধান ‘পুল ফ্যাক্টর’ হিসেবে দোষারোপ করেছেন। প্রথমবারের মতো মাদক গ্রহণের জন্য কৌতূহল অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে কাজ করে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজের ছাত্র- ছাত্রীদের মাদকে আসক্ত হওয়ার পেছনে পরিবারের অবহেলাকে দায়ী করা হয় কারণ বাবা-মা অনেক সময় অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণে সন্তানদের বিশ্বাস করেন আর সন্তানরা সেই বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে মাদকাসক্ত হয়ে যায়। অল্প অল্প করে তারা মাদকের দিকে হাত বাড়ায়।

অভিভাবকদের সচেতন হতেই হবে। আপনার সন্তান কার সঙ্গে মিশছে তা আপনাকে খবর রাখতে হবে। কেউ কেউ একা একা মাদকাসক্ত হতে পারে না। তার আচার-আচরণ খেয়াল করতে হবে। একজন মাদকাসক্ত সন্তান কখনো স্বাভাবিক আচার-আচরণ করতে পারে না। তাদের ছোট ছোট অসঙ্গতিকে গুরুত্বারোপ করতে হবে। তাদের কোনো দাবি থাকলে তা পূরণের চেষ্টা করতে হবে। মনে রাখতে হবে আপনার সন্তান আপনার ভবিষ্যৎ। একবার নেশায় আসক্ত হলে তাকে আর ফেরানো সম্ভব নাও হতে পারে। আপনার সন্তান মাদকাসক্ত হলে আপনাকে চরম মূল্য দিতে হবে। মাদকের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে। সময়মত খোঁজ খবর না রাখলে সারাজীবন সন্তানের জন্য চোখের পানি ফেলতে হবে। তাই সন্তানকে সার্বক্ষণিক নজরদারির বিকল্প নেই।

সমাজে যখন নৈরাজ্য দেখা দেয় তখন মাদকাসক্তের সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পায়। মাদকের বিচারে দীর্ঘসূত্রিতাও অন্যতম কারণ। মাদকাসক্তদের নিরাময়ে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। তাই যে কোনো মূল্যে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে তরুণদের মাদক থেকে দূরে রাখতে হবে। অন্যথায় মাদকের বিষাক্ত ছোবলে পুরো জাতি নীল হয়ে যাবে। প্রয়োজনে রাষ্ট্রকে সর্বোশক্তি প্রয়োগ করতে হবে এবং যে কোনো রাষ্ট্রীয় সেবা পেতে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করতে হবে। রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছাড়া মাদক নির্মূল সম্ভব না। জঙ্গীবাদের মতো মাদক নিয়ন্ত্রণে জিরো টলারেন্স নীতি কার্যকর করতে হবে।

মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ীরা রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিশালী নয়। মাদক নির্মূলে গডফাদারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। জঙ্গীবাদ দমন করতে পারলে মাদক ও নির্মূল করা সম্ভব হবে। রাষ্ট্রকে সর্বশক্তি নিয়ে এগিয়ে আসতেই হবে। মাদকের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক ভেঙে দিতে হবে। মাদকের মাধ্যমে অর্জিত অর্থ সম্পদকে বাজেয়াপ্ত করতে হবে। মাদক কোনো একক সমস্যা নয় তাই মাদক বন্ধ করতে হলে জনস¦ার্থে সবাইকে নিয়ে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।

[লেখক : উপাধ্যক্ষ (শিক্ষা), পরমাণু শক্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠান কলেজ, সাভার, ঢাকা]

খুলনায় একুশে বইমেলার মুগ্ধতা

মধুরতম ভাষা ও রক্তাক্ত বাংলা

উৎসব ও প্রথার বিবর্তন

চুরমার ফিলিস্তিন ও খাদ্য রাজনীতি

কুষ্ঠজনিত মানবাধিকার লঙ্ঘন রোধে করণীয়

যুব ক্ষমতায়ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণকে ত্বরান্বিত করবে

লাইব্রেরির ভবিষ্যৎ ও ভবিষ্যতের লাইব্রেরি

একজীবনে অনেক বছর বেঁচে থেকেও নিজেকে চেনা হয়ে ওঠে না

“ছুরি-কাঁটা ও নব্যধনী”

পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে সন্দেশখালি লাইন

শিশুরও হতে পারে ক্যান্সার, প্রতিরোধে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ

চিকিৎসা নিতে কেন ভারতে গিয়েছিলাম

ইসরায়েলের গণহত্যা, দক্ষিণ আফ্রিকার মামলা

বিজ্ঞানচর্চার কেন্দ্রবিন্দু গণিত

ছবি

সুন্দরবন কি আরেকটু বেশি মনোযোগ পেতে পারে না

নিজেকে বরং নিজেই প্রশ্ন করতে শিখুন

গড়ে উঠুক সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা

ছবি

বিদ্যা দেবী মা সরস্বতী

বিশ্ব বেতার দিবস ও বাংলাদেশ বেতার

কৃষিবিদ দিবস

ছয় বছরের অর্জন ও প্রত্যাশা

জলবায়ু সম্মেলন এবং নয়া উদারবাদী কর্তৃত্ব

জিআই সনদের সন্ধানে চাঁপাইনবাবগঞ্জ

নির্বাচন ও সামাজিক অস্থিরতা

ছবি

খাদ্যে আমদানিনির্ভরতা থেকে বেরোনোর পথ কী

ছবি

ট্রাম্প দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছেন, তবে পথ মসৃণ নয়

দুর্নীতিবাজদের খতম করা যাবে কি?

মূল্যস্ফীতি কমবে কীভাবে

শিক্ষা হচ্ছে জগতের আলো

ছবি

জ্ঞানবাপী মসজিদ বিতর্ক

আমেরিকার উন্নতির ভিত্তি

সড়ক পরিবহন আইন ও ট্রাফিক পুলিশ

‘বলদ কবে চালাক হবে’

রক্তপিছল ফিলিস্তিন, অস্ত্রবাণিজ্য এবং মিথ্যা জলবায়ু অঙ্গীকার

ভারতে মসজিদ-মন্দির বির্তক ও খল রাজনীতি

ব্যাংক খাতের রোগ সারাতে রোডম্যাপ

tab

উপ-সম্পাদকীয়

মাদকের নেটওয়ার্ক ভেঙে দিতে হবে

মিকাইল হোসেন

বুধবার, ২৪ মে ২০২৩

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৫ কোটি তরুণ রয়েছে। এই তরুণরাই আমাদের অহংকার। বর্তমানে বাংলাদেশ বিশ্ব মানচিত্রে যে জায়গা করে নিয়েছে, উন্নয়নের মডেলে পরিণত হয়েছে তা সম্ভব হয়েছে তরুণদের সাহসী পদক্ষেপের কারণে। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছে। ২০৩০ সালে টেকসই উন্নয়নের ও রোল মডেল হবে। ২০৪১ সালে উন্নত বিশ্বে পরিণত হবে। বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ।

আগামীর বাংলাদেশ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ। আর স্মার্ট বাংলাদেশ মাদকমুক্ত স্মার্ট তরুণ ছাড়া সম্ভব না। কারণ মাদকাসক্ত তরুণরা কখনো স্মার্ট চিন্তা করতে পারবে না। বাংলাদেশ যতই উন্নত হচ্ছে ততই মাদকাসক্ত তরুণদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। যে সংখ্যা বর্তমানে জ্যামিতিকহারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। জাতির কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলে দিচ্ছে মাদকাসক্ত তরুণরা। সাধারণত ১৫ থেকে ২৯ বছর বয়সীদের তরুণ- যুব জনগোষ্ঠী ধরা হয়। আর মাদকাসক্ত ৮০% হচ্ছে তরুণ। একটি তথ্যমতে, মাদকসেবীর সংখ্যা এখন দেশে প্রায় ২ কোটি। এর মধ্যে দেড় কোটি নিয়মিত। ৫০ লাখের মতো অনিয়মিত। দেশে সেবনকারীরা গড়ে প্রতিদিন অন্তত ২০ কোটি টাকার মাদক সেবন করে। ৫ সংস্থার ৭ লাখ ৯৩ হাজার ৩৮২ মামলায় ১০ লাখ ১০ হাজার আসামি। বিগত এক যুগে প্রায় ১৫ হাজার কোটি টাকার মাদক উদ্ধার হয়েছে।

বছরের হিসাবে মাদকের পেছনে খরচ হয় ৭ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। এ ব্যবসায় জড়িত ২০০ গডফাদার ও বিক্রির নেটওয়ার্কে কাজ করে ১ লাখ ৬৫ হাজার জন। এ পর্যন্ত উদ্ধার হওয়া ২৫ ধরনের উল্লেযোগ্য মাদকের মধ্যে উল্লেযোগ্য হচ্ছে- ইয়াবা, হেরোইন, আফিম, গাঁজা, ফেনসিডিল, বিদেশি মদ, বিয়ার, ইনজেকটিং ড্রাগ, এল এস ডি ও আইস। মাদকদ্রব্য ও নেশা নিরোধ সংস্থার (মানস) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং জাতীয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের উপদেষ্টা সদস্য অধ্যাপক ডা. অরুপরতন চৌধুরী বলেন, মাদকদ্রব্য উদ্ধারের চিত্র দেখলেই বিস্তারের একটা ধারণা পাওয়া যায়। যেগুলো উদ্ধার হচ্ছে সেগুলো তো শুধু যা তাদের চোখে পড়ছে। সব তো আর চোখে পড়ছে না। যা ধরা পড়ে, সেটা খুবই সামান্য। বেশির ভাগই থেকে যায় ধরাছোঁয়ার বাইরে। বিশেষ করে ছাত্রদের মধ্যে মাদকের বিস্তার জাতিকে ভাবিয়ে তুলেছে। প্রতিদিনই বাজারে চাহিদা বাড়ছে।

মাদকে আসক্ত হওয়ার কারণে তরুণদের চিন্তার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। তরুণরা প্রগতিশীল হতে পারছে না। তারা পরিবার ও রাষ্ট্রের বোঝা হয়ে পড়ছে। তাদের চিন্তা-চেতনায় প্রগতিশীলতা ও সৃষ্টিশীলতার ছাপ পড়ছে না। বিপুলসংখ্যক তরুণরা মাদকাসক্ত হওয়ায় রাষ্ট্রের লক্ষ্য অর্জনে বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। মাদকে আসক্ত হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে অস্বাভাবিক প্রতিযোগিতা, সামাজিক অস্থিরতা, উত্তেজনা, একঘেয়েমি, একাকিত্ব এবং পারিবারিক কাঠামো পরিবর্তনের পরিবেশে ব্যর্থতার সঙ্গে লড়াই করতে অক্ষমতা। তবে মাদকের সহজলভ্যতা মাদকাসক্তের হার বহুগুণে বৃদ্ধি করে। দ্রুত নগরায়ণ, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, ব্যাপক উন্নয়ন এবং ইন্টারনেট ও তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার, সামাজিক সচেতনতার অভাব ইত্যাদি ও মাদকের সমস্যার জন্য দায়ী।

পারিবারিক কলহ, ডিভোর্সের কারণে ভেঙে যাওয়া পরিবার, প্রেম ও চাকরিতে ব্যর্থতা থেকে হতাশার কারণে ও মাদকাসক্তের হার বাড়ছে। বেশির ভাগ মাদক ব্যবহারকারী ‘পিয়ার প্রেশার’ বা বন্ধু-বান্ধবের পাল্লায় পড়াকে প্রধান ‘পুল ফ্যাক্টর’ হিসেবে দোষারোপ করেছেন। প্রথমবারের মতো মাদক গ্রহণের জন্য কৌতূহল অনেক সময় গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে কাজ করে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজের ছাত্র- ছাত্রীদের মাদকে আসক্ত হওয়ার পেছনে পরিবারের অবহেলাকে দায়ী করা হয় কারণ বাবা-মা অনেক সময় অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসের কারণে সন্তানদের বিশ্বাস করেন আর সন্তানরা সেই বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে মাদকাসক্ত হয়ে যায়। অল্প অল্প করে তারা মাদকের দিকে হাত বাড়ায়।

অভিভাবকদের সচেতন হতেই হবে। আপনার সন্তান কার সঙ্গে মিশছে তা আপনাকে খবর রাখতে হবে। কেউ কেউ একা একা মাদকাসক্ত হতে পারে না। তার আচার-আচরণ খেয়াল করতে হবে। একজন মাদকাসক্ত সন্তান কখনো স্বাভাবিক আচার-আচরণ করতে পারে না। তাদের ছোট ছোট অসঙ্গতিকে গুরুত্বারোপ করতে হবে। তাদের কোনো দাবি থাকলে তা পূরণের চেষ্টা করতে হবে। মনে রাখতে হবে আপনার সন্তান আপনার ভবিষ্যৎ। একবার নেশায় আসক্ত হলে তাকে আর ফেরানো সম্ভব নাও হতে পারে। আপনার সন্তান মাদকাসক্ত হলে আপনাকে চরম মূল্য দিতে হবে। মাদকের ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে। সময়মত খোঁজ খবর না রাখলে সারাজীবন সন্তানের জন্য চোখের পানি ফেলতে হবে। তাই সন্তানকে সার্বক্ষণিক নজরদারির বিকল্প নেই।

সমাজে যখন নৈরাজ্য দেখা দেয় তখন মাদকাসক্তের সংখ্যা ব্যাপক বৃদ্ধি পায়। মাদকের বিচারে দীর্ঘসূত্রিতাও অন্যতম কারণ। মাদকাসক্তদের নিরাময়ে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। তাই যে কোনো মূল্যে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে তরুণদের মাদক থেকে দূরে রাখতে হবে। অন্যথায় মাদকের বিষাক্ত ছোবলে পুরো জাতি নীল হয়ে যাবে। প্রয়োজনে রাষ্ট্রকে সর্বোশক্তি প্রয়োগ করতে হবে এবং যে কোনো রাষ্ট্রীয় সেবা পেতে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করতে হবে। রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছাড়া মাদক নির্মূল সম্ভব না। জঙ্গীবাদের মতো মাদক নিয়ন্ত্রণে জিরো টলারেন্স নীতি কার্যকর করতে হবে।

মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ীরা রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিশালী নয়। মাদক নির্মূলে গডফাদারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। জঙ্গীবাদ দমন করতে পারলে মাদক ও নির্মূল করা সম্ভব হবে। রাষ্ট্রকে সর্বশক্তি নিয়ে এগিয়ে আসতেই হবে। মাদকের জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক ভেঙে দিতে হবে। মাদকের মাধ্যমে অর্জিত অর্থ সম্পদকে বাজেয়াপ্ত করতে হবে। মাদক কোনো একক সমস্যা নয় তাই মাদক বন্ধ করতে হলে জনস¦ার্থে সবাইকে নিয়ে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।

[লেখক : উপাধ্যক্ষ (শিক্ষা), পরমাণু শক্তি গবেষণা প্রতিষ্ঠান কলেজ, সাভার, ঢাকা]

back to top