alt

চিঠিপত্র

চিঠিপত্র: সড়ক দুর্ঘটনার শেষ কোথায়?

: সোমবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

দেশের সড়কগুলোর অব্যবস্থাপনা, ভাঙাচোরা রাস্তা, খানা-খন্দ ও যানবাহনের সুনির্দিষ্ট নিয়ম-নীতিমালার প্রয়োগ না থাকায় সড়ক দুর্ঘটনার হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। রোজই টেলিভিশন কিংবা পত্রিকা খুললেই চোখে পড়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রিয়জন হারানো পরিবারের আহাজারি।

সড়ক দুর্ঘটনা শুধুই কী একটি পরিবার থেকে একজন মানুষ কেড়ে নিচ্ছে? সেই পরিবারের কাছে মানুষটি একমাত্র বেঁচে থাকার উৎস। সড়ক দুর্ঘটনায় হারিয়ে যাচ্ছে হাজারো পরিবারের এগিয়ে যাবার স্বপ্ন।

আমাদের দেশে বর্ষা মৌসুম আসলেই অধিকাংশ রাস্তা ভেঙে যায় এবং বড় বড় খানা খন্দের সৃষ্টি হয়। তাছাড়াও নির্মাণের সময় নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করা হয়। রাস্তায় ফিটনেসবিহীন যানবাহনের সংখ্যা অতিমাত্রায় বেশি। আবার কিছুক্ষেত্রে সড়ক নষ্ট হবার জন্যে সহনশীলতার অধিক ওজনবাহী পরিবহনও চলাচল করে থাক। সড়ক-মহাসড়কে বিপজ্জনক বাঁক তো রয়েছেই। তাছাড়া উচ্চগতিতে মোটগাড়ি চালানো, ট্রাফিক আইন না মানা, হেলমেট কিংবা সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার না করার মত মুর্খতার কারণেও সড়ক দুর্ঘটান ঘটে থাকে।

সড়ক দুর্ঘটনার হার কমাতে হলে সরকারি ও ব্যক্তিগত উভয় সচেতনতাই প্রয়োজন। সরকারিভাবে সড়কের সঠিক নির্মাণ ও দুর্নীতিরোধ করতে হবে। রাস্তায় ট্রাফিক আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। ব্যক্তিগতভাবে সচেতনতা বাড়াতে হবে। উচ্চ গতিতে যানবাহন, মোটরগাড়ি চালানো পরিহার করতে হবে। ট্রাফিক আইন মেনে চলতে হবে।

আহাদ মোহাম্মদ তাহমিদ

শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

স্তন ক্যান্সার : সচেতনতা প্রয়োজন

চাই ধর্মীয় সহনশীলতা

দুর্যোগ মোকাবিলার প্রস্তুতি

চিঠি : শীত বরণের প্রস্তুতি

চিঠি : বাকৃবি ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের দৌরাত্ম্য বন্ধ হোক

চিঠি : ব্যথামুক্ত স্বাভাবিক প্রসব

চিঠি : গ্যাসের অপচয় রোধে প্রয়োজন জনসচেতনতা

প্রাথমিকে শিক্ষকদের টিফিন-ভাতা বাড়ানো হোক

জাদুঘরে টিকিট সংগ্রহে ভোগান্তি

চিঠি : কাশফুল ছেঁড়া থেকে বিরত থাকুন

চিঠি : সন্তান লালন-পালন

চিঠি : সার্বজনীন নয়, সর্বজনীন

চিঠি : গ্রামের সড়কের পাশে বাতির ব্যবস্থা করা হোক

চিঠি : অপার সম্ভাবনার ব্লু-ইকোনমি

চিঠি : বাঙালির শিল্প, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য রক্ষার সময় এখনই

চিঠি : খালটি খনন করুন

চিঠি : সাপ নিয়ে কুসংস্কার পরিহার করুন

চিঠি : গণতন্ত্রের ভিত

চিঠি : শিশুদের মোবাইল ফোন ব্যবহারে সতর্কতা

চিঠি : চিকিৎসকদের লাগামছাড়া ভিজিট, অসহায় রোগীরা

চিঠি : দুর্গাপূজায় সরকারি ছুটি বাড়ানো হোক

চিঠি : সচেতনভাবে মোটরসাইকেল চালান

চিঠি : ট্রেনের টিকিট বিড়ম্বনা

চিঠি : বাংলা সাহিত্য

চিঠি : স্কুলমুখী করতে হবে ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদের

চিঠি : পিটিআই ইন্সট্রাক্টর : সংকট কাটাতে উদ্যোগ প্রয়োজন

যানজট নিরসনে সবাইকে সচেতন হতে হবে

পাহাড় কাটা রোধ করুন

চিঠি : সুস্থ থাকতে ‘বাঁশ’ খান

চিঠি : বাড়ছে পরীক্ষা, কমছে শিক্ষা

চিঠি : সেরা ব্যায়াম

চিঠি : ভুঁইফোঁড় পোর্টাল বন্ধের সিদ্ধান্ত যৌক্তিক

চিঠি : আবাসিক হলের খাবারের মান

চিঠি : হাসপাতালে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ

চিঠি : বিক্ষিপ্ত মনোজগৎ

চিঠি : মোটরসাইকেল চালকরা কবে সচেতন হবেন?

tab

চিঠিপত্র

চিঠিপত্র: সড়ক দুর্ঘটনার শেষ কোথায়?

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

সোমবার, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

দেশের সড়কগুলোর অব্যবস্থাপনা, ভাঙাচোরা রাস্তা, খানা-খন্দ ও যানবাহনের সুনির্দিষ্ট নিয়ম-নীতিমালার প্রয়োগ না থাকায় সড়ক দুর্ঘটনার হার দিন দিন বেড়েই চলেছে। রোজই টেলিভিশন কিংবা পত্রিকা খুললেই চোখে পড়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রিয়জন হারানো পরিবারের আহাজারি।

সড়ক দুর্ঘটনা শুধুই কী একটি পরিবার থেকে একজন মানুষ কেড়ে নিচ্ছে? সেই পরিবারের কাছে মানুষটি একমাত্র বেঁচে থাকার উৎস। সড়ক দুর্ঘটনায় হারিয়ে যাচ্ছে হাজারো পরিবারের এগিয়ে যাবার স্বপ্ন।

আমাদের দেশে বর্ষা মৌসুম আসলেই অধিকাংশ রাস্তা ভেঙে যায় এবং বড় বড় খানা খন্দের সৃষ্টি হয়। তাছাড়াও নির্মাণের সময় নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার করা হয়। রাস্তায় ফিটনেসবিহীন যানবাহনের সংখ্যা অতিমাত্রায় বেশি। আবার কিছুক্ষেত্রে সড়ক নষ্ট হবার জন্যে সহনশীলতার অধিক ওজনবাহী পরিবহনও চলাচল করে থাক। সড়ক-মহাসড়কে বিপজ্জনক বাঁক তো রয়েছেই। তাছাড়া উচ্চগতিতে মোটগাড়ি চালানো, ট্রাফিক আইন না মানা, হেলমেট কিংবা সুরক্ষা সরঞ্জাম ব্যবহার না করার মত মুর্খতার কারণেও সড়ক দুর্ঘটান ঘটে থাকে।

সড়ক দুর্ঘটনার হার কমাতে হলে সরকারি ও ব্যক্তিগত উভয় সচেতনতাই প্রয়োজন। সরকারিভাবে সড়কের সঠিক নির্মাণ ও দুর্নীতিরোধ করতে হবে। রাস্তায় ট্রাফিক আইনের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। ব্যক্তিগতভাবে সচেতনতা বাড়াতে হবে। উচ্চ গতিতে যানবাহন, মোটরগাড়ি চালানো পরিহার করতে হবে। ট্রাফিক আইন মেনে চলতে হবে।

আহাদ মোহাম্মদ তাহমিদ

শিক্ষার্থী, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

back to top