alt

চিঠিপত্র

চিঠি : ঢাকাবাসীর কাছে মেট্রোরেল আশীর্বাদ

: শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২৩

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

রাজধানী ঢাকা দেশের মধ্যে সবচেয়ে জনবহুল শহর। যানজট শহরের একটি ভয়াবহ সমস্যা। প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ যানজটে আটকা পড়েন। এটি মানুষের সময় এবং অর্থের অপচয় ঘটায়। মেট্রোরেল ঢাকার যানজট সমস্যা সমাধানের একটি কার্যকর উপায়।

২০১৩ সালে ঢাকার যানজট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে একটি নতুন কৌশলগত পরিবহন পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এই পরিকল্পনার অধীনে ঢাকায় মেট্রোরেলের নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।ঢাকায় মেট্রোরেলের মোট চারটি লাইন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে এমআরটি লাইন ১: মতিঝিল থেকে উত্তরা,এমআরটি লাইন ২: কালাচাঁদপুর থেকে কেরানীগঞ্জ, এমআরটি লাইন ৩: পূর্বাচল থেকে কুড়িল, এমআরটি লাইন ৪: পান্থপথ থেকে টঙ্গী। এই লাইনগুলো নির্মিত হলে ঢাকার যানজট সমস্যা অনেকাংশে সমাধান হবে এবং ঢাকা একটি আরও বাসযোগ্য শহর হবে।

মেট্রোরেল চালু হওয়ার পর, অনেক মানুষ তাদের ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করা বন্ধ করেছে এবং মেট্রোরেলের উপর নির্ভর করছে। এটি সড়কের উপর যানবাহনের সংখ্যা কমাতে সাহায্য করছে। যানজট এখন থেকেই কমতে শুরু করেছে উত্তরা থেকে মতিঝিলের রাস্তায়। স্টেশনগুলো কাছাকাছি থাকায় সবাই স্বাচ্ছন্দে যাত্রার বাহন হিসেবে মেট্রোরেল কে বেছে নিচ্ছে। বায়ুদূষণ কমলে, শ্বাসযন্ত্রের রোগের ঝুঁকি কমবে। মেট্রোরেল নির্মাণ এবং পরিচালনায় অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এটি ঢাকার অর্থনীতিকে প্রসারিত করবে। মেট্রোরেল ঢাকাকে একটি আরও আকর্ষণীয় পর্যটন গন্তব্যে পরিণত করবে।

বাংলাদেশে মেট্রোরেলের নির্মাণ একটি যুগান্তকারী ঘটনা। মেট্রোরেলের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হওয়ার ফলে ঢাকার অর্থনীতি, পরিবেশ এবং জনজীবনকে বেশ কিছু সুবিধা হবে। এটি ঢাকাকে একটি আরও সমৃদ্ধ, পরিবেশবান্ধব এবং বাসযোগ্য শহর করে তুলবে।

রাজিন হাসান রাজ

কালীকচ্ছের ধর্মতীর্থ বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি

চিঠি : হলে খাবারের মান উন্নত করুন

চিঠি : স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ে ডিপ্লোমাধারীদের বৈষম্য দূর করুন

চিঠি : শিক্ষার মান উন্নয়ন চাই

চিঠি : সড়ক আইন বাস্তবায়ন করুন

চিঠি : রাস্তায় বাইক সন্ত্রাস

চিঠি : কঠিন হয়ে পড়ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা

চিঠি : ডিসেম্বরের স্মৃতি

চিঠি : টেকসই ও সাশ্রয়ী ক্লিন এনার্জি

চিঠি : নকল গুড় জব্দ হোক

চিঠি : সড়কে বাড়ছে লেন ঝরছে প্রাণ

চিঠি : কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন জরুরি

চিঠি : পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস চাই

চিঠি : তারুণ্যের শক্তি কাজে লাগান

চিঠি : এইডস থেকে বাঁচতে সচেতন হোন

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ হোক

চিঠি : হাসুন, সুস্থ থাকুন

চিঠি : হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ হোক

চিঠি : রাজনীতিতে তরুণ সমাজের অংশগ্রহণ

চিঠি : মাদককে ‘না’ বলুন

চিঠি : পুনরুন্নয়ন প্রকল্প : পাল্টে যাবে পুরান ঢাকা

চিঠি : শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান

চিঠি : চন্দ্রগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চাই

চিঠি : বাড়ছে বাল্যবিয়ে

চিঠি : টিকটকের অপব্যবহার রোধ করতে হবে

চিঠি : আত্মবিশ্বাস ও আস্থা

চিঠি : শিক্ষকরা কি প্রকৃত মর্যাদা পাচ্ছে

চিঠি : শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সম্প্রীতি চাই

চিঠি : সকালে ও বিকেলে মেট্রোরেল চলুক

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ করতে হবে

চিঠি : ঢাবি’র কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার আধুনিকায়ন করা হোক

চিঠি : নিত্যপণ্যের দাম

চিঠি : শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চাই পরিচ্ছন্ন শৌচাগার

চিঠি : বায়ুদূষণ থেকে রাজধানীকে রক্ষা করুন

চিঠি : পর্যটনকেন্দ্রে খাবারের অস্বাভাবিক মূল্য

চিঠি : ঐতিহ্যবাহী গ্রামীণ খেলাধুলা

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : ঢাকাবাসীর কাছে মেট্রোরেল আশীর্বাদ

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০২৩

রাজধানী ঢাকা দেশের মধ্যে সবচেয়ে জনবহুল শহর। যানজট শহরের একটি ভয়াবহ সমস্যা। প্রতিদিন লাখ লাখ মানুষ যানজটে আটকা পড়েন। এটি মানুষের সময় এবং অর্থের অপচয় ঘটায়। মেট্রোরেল ঢাকার যানজট সমস্যা সমাধানের একটি কার্যকর উপায়।

২০১৩ সালে ঢাকার যানজট সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে একটি নতুন কৌশলগত পরিবহন পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এই পরিকল্পনার অধীনে ঢাকায় মেট্রোরেলের নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।ঢাকায় মেট্রোরেলের মোট চারটি লাইন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে এমআরটি লাইন ১: মতিঝিল থেকে উত্তরা,এমআরটি লাইন ২: কালাচাঁদপুর থেকে কেরানীগঞ্জ, এমআরটি লাইন ৩: পূর্বাচল থেকে কুড়িল, এমআরটি লাইন ৪: পান্থপথ থেকে টঙ্গী। এই লাইনগুলো নির্মিত হলে ঢাকার যানজট সমস্যা অনেকাংশে সমাধান হবে এবং ঢাকা একটি আরও বাসযোগ্য শহর হবে।

মেট্রোরেল চালু হওয়ার পর, অনেক মানুষ তাদের ব্যক্তিগত গাড়ি ব্যবহার করা বন্ধ করেছে এবং মেট্রোরেলের উপর নির্ভর করছে। এটি সড়কের উপর যানবাহনের সংখ্যা কমাতে সাহায্য করছে। যানজট এখন থেকেই কমতে শুরু করেছে উত্তরা থেকে মতিঝিলের রাস্তায়। স্টেশনগুলো কাছাকাছি থাকায় সবাই স্বাচ্ছন্দে যাত্রার বাহন হিসেবে মেট্রোরেল কে বেছে নিচ্ছে। বায়ুদূষণ কমলে, শ্বাসযন্ত্রের রোগের ঝুঁকি কমবে। মেট্রোরেল নির্মাণ এবং পরিচালনায় অনেক মানুষের কর্মসংস্থান হবে। এটি ঢাকার অর্থনীতিকে প্রসারিত করবে। মেট্রোরেল ঢাকাকে একটি আরও আকর্ষণীয় পর্যটন গন্তব্যে পরিণত করবে।

বাংলাদেশে মেট্রোরেলের নির্মাণ একটি যুগান্তকারী ঘটনা। মেট্রোরেলের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল হওয়ার ফলে ঢাকার অর্থনীতি, পরিবেশ এবং জনজীবনকে বেশ কিছু সুবিধা হবে। এটি ঢাকাকে একটি আরও সমৃদ্ধ, পরিবেশবান্ধব এবং বাসযোগ্য শহর করে তুলবে।

রাজিন হাসান রাজ

back to top