alt

চিঠিপত্র

চিঠি : সচেতন হোন, ভালো থাকুন

: শনিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২১

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

বর্তমান যান্ত্রিক জীবনের শত ব্যস্ততার ভিড়ে এবং সময় স্বল্পতায় আমরা অল্প সময়ে সহজ পদ্ধতিতে কাজ করার পথ খোঁজার চেষ্টা করি। অন্যান্য ব্যবহার্য নানা উপাদানের মতো বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত হচ্ছে একবার ব্যবহার্য বিভিন্ন সামগ্রী; বিশেষ করে ওয়ান টাইম প্লেট, কাপ, গ্লাস, বক্স প্রভৃতি। এটির ব্যবহার একদিকে যেমন সময়ের অপচয় রোধ করে; অন্যদিকে ধোয়ামোছা বা পরিষ্কারের ঝামেলা থাকে না। মূল্যও অপেক্ষাকৃত অনেক কম এবং সহজে বহনযোগ্য। ফলে যেকোনো অনুষ্ঠান, করপোরেট মিটিং, হোটেল রেস্টুরেন্ট, চায়ের দোকান সর্বত্রই এসবে চাহিদা ও ব্যবহার দিনদিন বেড়েই চলেছে।

প্রকৃতির নিয়ম অনুসারে প্রতিটি জিনিসের ইতিবাচক ও নেতিবাচক উভয় দিকই বিদ্যমান। ওয়ান টাইম সামগ্রীর কএসত্রেও প্রজোয্য। শুধু একবার ব্যবহারযোগ্য বলে ব্যবহারের পর অসেচতনভাবে যত্রতত্র ফেলে দেয়া হয়। কিন্তু এসব সামগ্রী প্লাস্টিক হওয়ায় মাটিতে মিশে না। এতে মাটি দূষণ হয়। আবার এসব পুড়িয়ে দিলে কালো ও বিষাক্ত ধোঁয়ার সৃষ্টি করে; যা বায়ু দূষণ করে। অনেকে এসব ব্যবহারের পর জলাশয়ে ছুড়ে ফেলে; যার ফলে পানি দূষণ হয়। এসব অপচনশীল দ্রব্যে জলাশয়ের গভীরতা হারায়, জলজ প্রাণীদের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

শুধু তাই নয়, এসব একবার ব্যবহার্য সামগ্রীর অসচেতনমূলক ব্যবহারের ফলে পরোক্ষভাবে মানবজাতিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিভিন্ন উপায়ে এসব প্লাস্টিক আমাদের শরীরে প্রবেশ করে সৃষ্টি করে প্রাণঘাতী ক্যান্সারসহ জন্মগত ত্রুটি, জেনেটিক পরিবর্তন, দীর্ঘস্থায়ী ব্রংকাইটিস, আলসার, বধিরতা, চর্মরোগ, লিভার সমস্যা ইত্যাদি। তাই এসব সচেতনভাবে ব্যবহার করতে হবে। ব্যবহারের পর যত্রতত্র না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে। এগুলো প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে পুনরায় ব্যবহার করা গেলে একদিকে যেমন পরিবেশ দূষণ রোধ হবে, তেমন অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

হোমায়রা আঞ্জুম অন্তু

চিঠি : দুমকিতে বাসস্ট্যান্ড চাই

চিঠি : স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই

চিঠি : জন্মসনদে এত ভুল কেন?

চিঠি : স্পিড ব্রেকার প্রসঙ্গে

চিঠি : জাবি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবীমা নিশ্চিত করুন

চিঠি : অসতর্কতায় সড়ক দুর্ঘটনা

চিঠি : তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করুন

চিঠি : নিরাপদ সড়কের দাবি

চিঠি : বিদেশের কারাগারে আটক বাংলাদেশিদের মুক্তির ব্যবস্থা নিন

চিঠি : শীতার্ত মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসুন

চোরচক্র থকেে সাবধান

প্রিয়জনের চিঠি পেতে গুনতে হয় না প্রহর

চিঠি : গণপরিবহনে যাত্রী ভোগান্তি

চিঠি : হাতিয়া গণহত্যা

চিঠি : আদালতের কর্মচারীদের অবৈধ অর্থ আদায় প্রসঙ্গে

চিঠি : মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা

চিঠি : এসেছে হেমন্ত

চিঠি : বিদায় অনুষ্ঠানের একাল-সেকাল

প্লাস্টিকের বিনিময়

বন্যহাতি রক্ষা করতে হবে

চিঠি : ছিন্নমূল মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসুন

চিঠি : বিন্নি ধানের খই

চিঠি : অস্থায়ী আবাসনে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ

চিঠি : বাকৃবির গণরুম সমস্যার সমাধান চাই

চিঠি : পরিবেশবান্ধব বাহন

চিঠি : স্মার্টফোনের দাম কমানো হোক

ফেনীতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় চাই

পনির-এ আছে পুষ্টি

চিঠি : ইপিজেড : সম্ভাবনার নতুন দ্বার

চিঠি : স্বেচ্ছায় রক্তদান

চিঠি : নিরাপদ সড়ক চাই

চিঠি : বাকৃবিতে ছাত্রী হলে নিরাপত্তা সংকট

চিঠি : জানার জন্য পড়তে হবে

ডাচণ্ডবাংলা ব্যাংকের শিক্ষাবৃত্তি

নবায়নযোগ্য জ্বালানি

চিঠি : তামাক কোম্পানির প্রচারের কূটকৌশল

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : সচেতন হোন, ভালো থাকুন

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

শনিবার, ৩০ অক্টোবর ২০২১

বর্তমান যান্ত্রিক জীবনের শত ব্যস্ততার ভিড়ে এবং সময় স্বল্পতায় আমরা অল্প সময়ে সহজ পদ্ধতিতে কাজ করার পথ খোঁজার চেষ্টা করি। অন্যান্য ব্যবহার্য নানা উপাদানের মতো বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত হচ্ছে একবার ব্যবহার্য বিভিন্ন সামগ্রী; বিশেষ করে ওয়ান টাইম প্লেট, কাপ, গ্লাস, বক্স প্রভৃতি। এটির ব্যবহার একদিকে যেমন সময়ের অপচয় রোধ করে; অন্যদিকে ধোয়ামোছা বা পরিষ্কারের ঝামেলা থাকে না। মূল্যও অপেক্ষাকৃত অনেক কম এবং সহজে বহনযোগ্য। ফলে যেকোনো অনুষ্ঠান, করপোরেট মিটিং, হোটেল রেস্টুরেন্ট, চায়ের দোকান সর্বত্রই এসবে চাহিদা ও ব্যবহার দিনদিন বেড়েই চলেছে।

প্রকৃতির নিয়ম অনুসারে প্রতিটি জিনিসের ইতিবাচক ও নেতিবাচক উভয় দিকই বিদ্যমান। ওয়ান টাইম সামগ্রীর কএসত্রেও প্রজোয্য। শুধু একবার ব্যবহারযোগ্য বলে ব্যবহারের পর অসেচতনভাবে যত্রতত্র ফেলে দেয়া হয়। কিন্তু এসব সামগ্রী প্লাস্টিক হওয়ায় মাটিতে মিশে না। এতে মাটি দূষণ হয়। আবার এসব পুড়িয়ে দিলে কালো ও বিষাক্ত ধোঁয়ার সৃষ্টি করে; যা বায়ু দূষণ করে। অনেকে এসব ব্যবহারের পর জলাশয়ে ছুড়ে ফেলে; যার ফলে পানি দূষণ হয়। এসব অপচনশীল দ্রব্যে জলাশয়ের গভীরতা হারায়, জলজ প্রাণীদের বসবাসের অনুপযোগী হয়ে পড়ে।

শুধু তাই নয়, এসব একবার ব্যবহার্য সামগ্রীর অসচেতনমূলক ব্যবহারের ফলে পরোক্ষভাবে মানবজাতিও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিভিন্ন উপায়ে এসব প্লাস্টিক আমাদের শরীরে প্রবেশ করে সৃষ্টি করে প্রাণঘাতী ক্যান্সারসহ জন্মগত ত্রুটি, জেনেটিক পরিবর্তন, দীর্ঘস্থায়ী ব্রংকাইটিস, আলসার, বধিরতা, চর্মরোগ, লিভার সমস্যা ইত্যাদি। তাই এসব সচেতনভাবে ব্যবহার করতে হবে। ব্যবহারের পর যত্রতত্র না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ফেলতে হবে। এগুলো প্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমে পুনরায় ব্যবহার করা গেলে একদিকে যেমন পরিবেশ দূষণ রোধ হবে, তেমন অনেকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

হোমায়রা আঞ্জুম অন্তু

back to top