alt

চিঠিপত্র

প্লাস্টিকের বিনিময়

: সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

পরিবেশের সচেতনতা বাড়াতে এখনই উদ্যোগ নিতে হবে। সারাদেশের শিশু-কিশোরদের ইন্টারনেট নির্ভরতা বেড়েছে। তাই শহরে-গ্রামে-পাড়া-মহল্লায় পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানোর জন্য তাদের বই পড়ায় আগ্রহী করে তুলতে হবে। প্লাস্টিকের বিনিময়ে তাদের বই হাতে তুলে দেয়া যেতে পারে। এ উদ্যোগটি নিতে হবে প্রতিটি লাইব্রেরির লাইব্রেরিয়ানকে। বইগুলি সরকারের পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে দিতে হবে। লাইব্রেরিয়ান তিন চাকার গাড়ি নিয়ে একটা নিয়ম করে বিভিন্ন এলাকায় যাবেন। শিশুরা কুড়িয়ে আনা প্লাস্টিক তুলে দিবে লাইব্রেরিয়ানের হাতে, এর বিনিময়ে শিশু -কিশোররা পাবে মজার মজার বই।

এমন ব্যবস্থা চালু করতে পারলে একদিকে শিশু-কিশোরদের বই পড়তে উদ্ধুদ্ধ করা যাবে। পাশাপাশি পরিবেশ সচেতনতাও বাড়ানো যাবে। কুড়িয়ে পাওয়া প্লস্টিকের কাপ, বোতল, ব্যাগ ইত্যাদির বিনিময়ে ভ্রাম্যমাণ পাঠাগার থেকে বই নিয়ে শিশু-কিশোররাই যে শুধু উপকৃত হবে, তা কিন্তু নয়। বাংলাদেশের পরিবেশ দূষণে অন্যতম কারণ প্লাস্টিক। আর সংগৃহীত এসব প্লাস্টিক পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে হবে। পরবর্তীতে এগুলো পুনরায় ব্যবহারের উপযোগী করা যাবে। সারাদেশে তিন চাকার পাঠাগার গড়ে প্লাস্টিকের সামগ্রী নিয়ে বই দেয়ার কর্মসূচি এখনই নেয়া দরকার।

কারণ, জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে লড়াই করে পৃথিবীকে রক্ষা করতে হলে এ ধরনের আবর্জনা কমানোর কাজ গুরুত্ব দিয়ে করতে হবে। প্লাস্টিকের বিনিময়ে বই দেয়া হলে পরিবেশ দূষণ রোধ করা সম্ভব হবে। আশা করি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ভেবে দেখবেন।

লিয়াকত হোসেন খোকন

মিরপুর, ঢাকা

চিঠি : দুমকিতে বাসস্ট্যান্ড চাই

চিঠি : স্বাস্থ্যবিধি মানার বিকল্প নেই

চিঠি : জন্মসনদে এত ভুল কেন?

চিঠি : স্পিড ব্রেকার প্রসঙ্গে

চিঠি : জাবি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যবীমা নিশ্চিত করুন

চিঠি : অসতর্কতায় সড়ক দুর্ঘটনা

চিঠি : তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের মূল ধারায় সম্পৃক্ত করুন

চিঠি : নিরাপদ সড়কের দাবি

চিঠি : বিদেশের কারাগারে আটক বাংলাদেশিদের মুক্তির ব্যবস্থা নিন

চিঠি : শীতার্ত মানুষের সাহায্যে এগিয়ে আসুন

চোরচক্র থকেে সাবধান

প্রিয়জনের চিঠি পেতে গুনতে হয় না প্রহর

চিঠি : গণপরিবহনে যাত্রী ভোগান্তি

চিঠি : হাতিয়া গণহত্যা

চিঠি : আদালতের কর্মচারীদের অবৈধ অর্থ আদায় প্রসঙ্গে

চিঠি : মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা

চিঠি : এসেছে হেমন্ত

চিঠি : বিদায় অনুষ্ঠানের একাল-সেকাল

বন্যহাতি রক্ষা করতে হবে

চিঠি : ছিন্নমূল মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসুন

চিঠি : বিন্নি ধানের খই

চিঠি : অস্থায়ী আবাসনে শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ

চিঠি : বাকৃবির গণরুম সমস্যার সমাধান চাই

চিঠি : পরিবেশবান্ধব বাহন

চিঠি : স্মার্টফোনের দাম কমানো হোক

ফেনীতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় চাই

পনির-এ আছে পুষ্টি

চিঠি : ইপিজেড : সম্ভাবনার নতুন দ্বার

চিঠি : স্বেচ্ছায় রক্তদান

চিঠি : নিরাপদ সড়ক চাই

চিঠি : বাকৃবিতে ছাত্রী হলে নিরাপত্তা সংকট

চিঠি : জানার জন্য পড়তে হবে

ডাচণ্ডবাংলা ব্যাংকের শিক্ষাবৃত্তি

নবায়নযোগ্য জ্বালানি

চিঠি : তামাক কোম্পানির প্রচারের কূটকৌশল

চিঠি : কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কের দুর্দশা

tab

চিঠিপত্র

প্লাস্টিকের বিনিময়

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

পরিবেশের সচেতনতা বাড়াতে এখনই উদ্যোগ নিতে হবে। সারাদেশের শিশু-কিশোরদের ইন্টারনেট নির্ভরতা বেড়েছে। তাই শহরে-গ্রামে-পাড়া-মহল্লায় পরিবেশ সচেতনতা বাড়ানোর জন্য তাদের বই পড়ায় আগ্রহী করে তুলতে হবে। প্লাস্টিকের বিনিময়ে তাদের বই হাতে তুলে দেয়া যেতে পারে। এ উদ্যোগটি নিতে হবে প্রতিটি লাইব্রেরির লাইব্রেরিয়ানকে। বইগুলি সরকারের পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে দিতে হবে। লাইব্রেরিয়ান তিন চাকার গাড়ি নিয়ে একটা নিয়ম করে বিভিন্ন এলাকায় যাবেন। শিশুরা কুড়িয়ে আনা প্লাস্টিক তুলে দিবে লাইব্রেরিয়ানের হাতে, এর বিনিময়ে শিশু -কিশোররা পাবে মজার মজার বই।

এমন ব্যবস্থা চালু করতে পারলে একদিকে শিশু-কিশোরদের বই পড়তে উদ্ধুদ্ধ করা যাবে। পাশাপাশি পরিবেশ সচেতনতাও বাড়ানো যাবে। কুড়িয়ে পাওয়া প্লস্টিকের কাপ, বোতল, ব্যাগ ইত্যাদির বিনিময়ে ভ্রাম্যমাণ পাঠাগার থেকে বই নিয়ে শিশু-কিশোররাই যে শুধু উপকৃত হবে, তা কিন্তু নয়। বাংলাদেশের পরিবেশ দূষণে অন্যতম কারণ প্লাস্টিক। আর সংগৃহীত এসব প্লাস্টিক পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে জমা দিতে হবে। পরবর্তীতে এগুলো পুনরায় ব্যবহারের উপযোগী করা যাবে। সারাদেশে তিন চাকার পাঠাগার গড়ে প্লাস্টিকের সামগ্রী নিয়ে বই দেয়ার কর্মসূচি এখনই নেয়া দরকার।

কারণ, জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে লড়াই করে পৃথিবীকে রক্ষা করতে হলে এ ধরনের আবর্জনা কমানোর কাজ গুরুত্ব দিয়ে করতে হবে। প্লাস্টিকের বিনিময়ে বই দেয়া হলে পরিবেশ দূষণ রোধ করা সম্ভব হবে। আশা করি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ভেবে দেখবেন।

লিয়াকত হোসেন খোকন

মিরপুর, ঢাকা

back to top