alt

চিঠিপত্র

চিঠি : এসি বিস্ফোরণ এড়াতে সচেতন হোন

: বৃহস্পতিবার, ১৬ মার্চ ২০২৩

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

দিন দিন বাড়ছে এসির ব্যবহার। সেই সঙ্গে বাড়ছে এসি দুর্ঘটনা। মাঝে মধ্যে এসি বিস্ফোরণে হতাহতের খবর পাওয়া যায়। গত এক সাপ্তাহের ব্যবধানে দুটি ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে। যেখানে দোকানের মালিক কর্মচারী এবং পথচারীদের অনেকেই প্রাণ হারান; যা খুবই দুঃখজনক। কিন্তু কী কারণে ঘটে এসি দুর্ঘটনা, সেটা সবার জানা দরকার। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, অনেকে রুমের লোড অনুপাতে এসি ব্যবহার করেন না। ফলে এসিটি অনেক্ষণ ধরে চলতে থাকে। তাই অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়।

বাতাসকে শীতল করার জন্য এসিতে উচ্চচাপে রেফ্রিজারেন্ট গ্যাস ব্যবহার করা হয়। যদি রেফ্রিজারেন্টে লিক হয়, তবে বিপজ্জনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া কিছু এসি দীর্ঘ সময় চালালে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিগুলো অতিরিক্ত গরম হতে পারে, যার ফলে বিস্ফোরণ ঘটে। সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ না করার কারণেও এসির বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।

এসি দুর্ঘটনা এড়াতে রুমের আকার অনুযায়ী সঠিকমাত্রার এসি নির্ধারণ করা। পেশাদারদের মাধ্যমে নিয়মিত সার্ভিসিং করানো। দীর্ঘসময় একটানা এসি না চালিয়ে মাঝে মাঝে বিরতি দেয়া। নির্ভরযোগ্য ব্র্যান্ডের এসি কেনা। বৃষ্টি ও বজ্রপাতের সময় এসির ব্যবহার বন্ধ রাখা। হাই ভোল্টেজ এড়াতে বাড়তি সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করা। একনাগাড়ে আট ঘণ্টার বেশি ব্যবহার করা উচিত নয়। বৈদ্যুতিক সংযোগ, সকেট, ফিল্টার নিয়মিত পরীক্ষা করা। এসি ব্যবহারে সতর্কতা ও সচেতনতা বাড়াতে হবে। তাহলে এসি দুর্ঘঘটনা থেকে নিজেদের রক্ষা করা যাবে।

সাকিবুল হাছান

ছবি

বেকারত্ব নিরসনে কুটির শিল্পের ভূমিকা

দুর্যোগ পূর্ববর্তী প্রস্তুতি

ছবি

সোনালি পাটের প্রয়োজনীয়তা

কালীকচ্ছের ধর্মতীর্থ বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি

চিঠি : হলে খাবারের মান উন্নত করুন

চিঠি : স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ে ডিপ্লোমাধারীদের বৈষম্য দূর করুন

চিঠি : শিক্ষার মান উন্নয়ন চাই

চিঠি : সড়ক আইন বাস্তবায়ন করুন

চিঠি : রাস্তায় বাইক সন্ত্রাস

চিঠি : কঠিন হয়ে পড়ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা

চিঠি : ডিসেম্বরের স্মৃতি

চিঠি : টেকসই ও সাশ্রয়ী ক্লিন এনার্জি

চিঠি : নকল গুড় জব্দ হোক

চিঠি : সড়কে বাড়ছে লেন ঝরছে প্রাণ

চিঠি : ঢাকাবাসীর কাছে মেট্রোরেল আশীর্বাদ

চিঠি : কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন জরুরি

চিঠি : পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস চাই

চিঠি : তারুণ্যের শক্তি কাজে লাগান

চিঠি : এইডস থেকে বাঁচতে সচেতন হোন

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ হোক

চিঠি : হাসুন, সুস্থ থাকুন

চিঠি : হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ হোক

চিঠি : রাজনীতিতে তরুণ সমাজের অংশগ্রহণ

চিঠি : মাদককে ‘না’ বলুন

চিঠি : পুনরুন্নয়ন প্রকল্প : পাল্টে যাবে পুরান ঢাকা

চিঠি : শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান

চিঠি : চন্দ্রগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চাই

চিঠি : বাড়ছে বাল্যবিয়ে

চিঠি : টিকটকের অপব্যবহার রোধ করতে হবে

চিঠি : আত্মবিশ্বাস ও আস্থা

চিঠি : শিক্ষকরা কি প্রকৃত মর্যাদা পাচ্ছে

চিঠি : শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সম্প্রীতি চাই

চিঠি : সকালে ও বিকেলে মেট্রোরেল চলুক

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ করতে হবে

চিঠি : ঢাবি’র কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার আধুনিকায়ন করা হোক

চিঠি : নিত্যপণ্যের দাম

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : এসি বিস্ফোরণ এড়াতে সচেতন হোন

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

বৃহস্পতিবার, ১৬ মার্চ ২০২৩

দিন দিন বাড়ছে এসির ব্যবহার। সেই সঙ্গে বাড়ছে এসি দুর্ঘটনা। মাঝে মধ্যে এসি বিস্ফোরণে হতাহতের খবর পাওয়া যায়। গত এক সাপ্তাহের ব্যবধানে দুটি ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছে। যেখানে দোকানের মালিক কর্মচারী এবং পথচারীদের অনেকেই প্রাণ হারান; যা খুবই দুঃখজনক। কিন্তু কী কারণে ঘটে এসি দুর্ঘটনা, সেটা সবার জানা দরকার। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, অনেকে রুমের লোড অনুপাতে এসি ব্যবহার করেন না। ফলে এসিটি অনেক্ষণ ধরে চলতে থাকে। তাই অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়।

বাতাসকে শীতল করার জন্য এসিতে উচ্চচাপে রেফ্রিজারেন্ট গ্যাস ব্যবহার করা হয়। যদি রেফ্রিজারেন্টে লিক হয়, তবে বিপজ্জনক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া কিছু এসি দীর্ঘ সময় চালালে বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতিগুলো অতিরিক্ত গরম হতে পারে, যার ফলে বিস্ফোরণ ঘটে। সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ না করার কারণেও এসির বিস্ফোরণ ঘটতে পারে।

এসি দুর্ঘটনা এড়াতে রুমের আকার অনুযায়ী সঠিকমাত্রার এসি নির্ধারণ করা। পেশাদারদের মাধ্যমে নিয়মিত সার্ভিসিং করানো। দীর্ঘসময় একটানা এসি না চালিয়ে মাঝে মাঝে বিরতি দেয়া। নির্ভরযোগ্য ব্র্যান্ডের এসি কেনা। বৃষ্টি ও বজ্রপাতের সময় এসির ব্যবহার বন্ধ রাখা। হাই ভোল্টেজ এড়াতে বাড়তি সার্কিট ব্রেকার ব্যবহার করা। একনাগাড়ে আট ঘণ্টার বেশি ব্যবহার করা উচিত নয়। বৈদ্যুতিক সংযোগ, সকেট, ফিল্টার নিয়মিত পরীক্ষা করা। এসি ব্যবহারে সতর্কতা ও সচেতনতা বাড়াতে হবে। তাহলে এসি দুর্ঘঘটনা থেকে নিজেদের রক্ষা করা যাবে।

সাকিবুল হাছান

back to top