alt

চিঠিপত্র

চিঠি : জানি কিন্তু মানি না

: শনিবার, ০৬ মে ২০২৩

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

তীব্র দাবদাহে পুড়ছে প্রকৃতি। গরমে হাঁসফাঁস করছে শিশু থেকে বৃদ্ধ। অনেকে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালেও ছোটাছুটি করছে। আবহাওয়ার এই দশার পেছনে আমরাই অনেকাংশে দায়ী। প্রকৃতির প্রাণ গাছ কেটে প্রতিনিয়ত সাবাড় করছি। ‘গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান’ বাক্যটির সঙ্গে আমরা সবাইই পরিচিত। এমনকি বাস, লঞ্চ, ট্রাক, সিএনজিতেও এই বাক্যটি প্রায়শই চোখে পড়ে। টেলিভিশন, পত্রিকা, সোশ্যাল মিডিয়া সব জায়গাতেই এই বিজ্ঞাপনে ভরপুর।

আমরা সবাইই জানি গাছ প্রকৃতির ও আমাদের জন্য ঠিক কতখানি উপকারী। সব জেনেও তেমন উদ্যোগ নিতে দেখা যায় না কাউকে। এমনকি যারা সেমিনার-সিম্পোজিয়ামে গাছ লাগানোর ব্যাপারে বড় বড় বক্তব্য দিয়ে আসেন তারাও নিজেরা গাছ লাগানোর ব্যাপারে ততটা সচেতন নন।

বিভিন্ন সংগঠন মাঝেমধ্যে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির নামে গাছ লাগালেও পরবর্তীতে পরিচর্যার অভাবে গাছ মারা যায়। আমরা সহপাঠী, সিনিয়র কিংবা জুনিয়রদের বিভিন্ন উপলক্ষে বিভিন্ন উপহারসামগ্রী প্রদান করি। এসবের পাশাপাশি উপহার হিসেবে আমরা চারাগাছের প্রচলন করতে পারি।

আসুন আমরা প্রকৃতিকে নিজ হাতে মেরে না ফেলে বেশি করে গাছ লাগাই। এতে প্রকৃতির ও আমাদেরই উপকার হবে। কথায় আছে ‘আপন ভালো সবাই চায়’। বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে এ প্রবাদের প্রতিফলন ঘটানো এখন সময়ের দাবি।

শ্যামলী খাতুন

ছবি

বেকারত্ব নিরসনে কুটির শিল্পের ভূমিকা

দুর্যোগ পূর্ববর্তী প্রস্তুতি

ছবি

সোনালি পাটের প্রয়োজনীয়তা

কালীকচ্ছের ধর্মতীর্থ বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি

চিঠি : হলে খাবারের মান উন্নত করুন

চিঠি : স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ে ডিপ্লোমাধারীদের বৈষম্য দূর করুন

চিঠি : শিক্ষার মান উন্নয়ন চাই

চিঠি : সড়ক আইন বাস্তবায়ন করুন

চিঠি : রাস্তায় বাইক সন্ত্রাস

চিঠি : কঠিন হয়ে পড়ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা

চিঠি : ডিসেম্বরের স্মৃতি

চিঠি : টেকসই ও সাশ্রয়ী ক্লিন এনার্জি

চিঠি : নকল গুড় জব্দ হোক

চিঠি : সড়কে বাড়ছে লেন ঝরছে প্রাণ

চিঠি : ঢাকাবাসীর কাছে মেট্রোরেল আশীর্বাদ

চিঠি : কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন জরুরি

চিঠি : পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস চাই

চিঠি : তারুণ্যের শক্তি কাজে লাগান

চিঠি : এইডস থেকে বাঁচতে সচেতন হোন

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ হোক

চিঠি : হাসুন, সুস্থ থাকুন

চিঠি : হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ হোক

চিঠি : রাজনীতিতে তরুণ সমাজের অংশগ্রহণ

চিঠি : মাদককে ‘না’ বলুন

চিঠি : পুনরুন্নয়ন প্রকল্প : পাল্টে যাবে পুরান ঢাকা

চিঠি : শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান

চিঠি : চন্দ্রগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চাই

চিঠি : বাড়ছে বাল্যবিয়ে

চিঠি : টিকটকের অপব্যবহার রোধ করতে হবে

চিঠি : আত্মবিশ্বাস ও আস্থা

চিঠি : শিক্ষকরা কি প্রকৃত মর্যাদা পাচ্ছে

চিঠি : শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সম্প্রীতি চাই

চিঠি : সকালে ও বিকেলে মেট্রোরেল চলুক

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ করতে হবে

চিঠি : ঢাবি’র কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার আধুনিকায়ন করা হোক

চিঠি : নিত্যপণ্যের দাম

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : জানি কিন্তু মানি না

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

শনিবার, ০৬ মে ২০২৩

তীব্র দাবদাহে পুড়ছে প্রকৃতি। গরমে হাঁসফাঁস করছে শিশু থেকে বৃদ্ধ। অনেকে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালেও ছোটাছুটি করছে। আবহাওয়ার এই দশার পেছনে আমরাই অনেকাংশে দায়ী। প্রকৃতির প্রাণ গাছ কেটে প্রতিনিয়ত সাবাড় করছি। ‘গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান’ বাক্যটির সঙ্গে আমরা সবাইই পরিচিত। এমনকি বাস, লঞ্চ, ট্রাক, সিএনজিতেও এই বাক্যটি প্রায়শই চোখে পড়ে। টেলিভিশন, পত্রিকা, সোশ্যাল মিডিয়া সব জায়গাতেই এই বিজ্ঞাপনে ভরপুর।

আমরা সবাইই জানি গাছ প্রকৃতির ও আমাদের জন্য ঠিক কতখানি উপকারী। সব জেনেও তেমন উদ্যোগ নিতে দেখা যায় না কাউকে। এমনকি যারা সেমিনার-সিম্পোজিয়ামে গাছ লাগানোর ব্যাপারে বড় বড় বক্তব্য দিয়ে আসেন তারাও নিজেরা গাছ লাগানোর ব্যাপারে ততটা সচেতন নন।

বিভিন্ন সংগঠন মাঝেমধ্যে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির নামে গাছ লাগালেও পরবর্তীতে পরিচর্যার অভাবে গাছ মারা যায়। আমরা সহপাঠী, সিনিয়র কিংবা জুনিয়রদের বিভিন্ন উপলক্ষে বিভিন্ন উপহারসামগ্রী প্রদান করি। এসবের পাশাপাশি উপহার হিসেবে আমরা চারাগাছের প্রচলন করতে পারি।

আসুন আমরা প্রকৃতিকে নিজ হাতে মেরে না ফেলে বেশি করে গাছ লাগাই। এতে প্রকৃতির ও আমাদেরই উপকার হবে। কথায় আছে ‘আপন ভালো সবাই চায়’। বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে এ প্রবাদের প্রতিফলন ঘটানো এখন সময়ের দাবি।

শ্যামলী খাতুন

back to top