alt

চিঠিপত্র

চিঠি : গুরুতর অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করুন

: বৃহস্পতিবার, ০৮ জুন ২০২৩

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

সমাজই হত্যাকে অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচনা কর হয় এবং শাস্তির বিধানও রাখা হয়। হত্যায় দোষী সাব্যস্ত হওয়া ব্যক্তিকে প্রতিরোধ, পুনর্বাসন বা প্রতিশোধের উদ্দেশ্যে কঠোর শাস্তি প্রদান করা হয়। আধুনিক বিশ্বের অধিকাংশ দেশ, হত্যায় দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিকে সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি জেল বা যাবজ্জীবন কারাদন্ড বা বিশেষ ঘটনায় মৃত্যুদন্ডও কার্যকর করে আসছে।

অপরাধ নির্মূল করার জন্য আয়ন প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন কারণে আইনের বাস্তবায়নে বাধাগ্রস্ত হওয়ায় অপরাধ প্রবণতা বেড়েই চলছে। বর্তমানে আমাদের পরিবার গুলোতে মায়া, মমতা, আবেগ অনুভূতির পরিবর্তে চাওয়া-পাওয়া, অধিকার, প্রত্যাশা মুখ্য বিষয় হিসেবে দেখা যায়। ফলে পত্রপত্রিকা কিংবা টেলিভিশনের পর্দায় প্রতিনিয়ত দেখা যায় বাবার হাতে সন্তান খুন, সন্তানের হাতে বাবা-মা, ভাইবোন হত্যা হচ্ছে।

বর্তমানে পারস্পরিক বিদ্বেষ একটি স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এ বিদ্বেষ যখন দীর্ঘসূত্রিতায় রূপ নেয় তখন তা সহিংসতায় উপনীত হয়। ফলে একজন আরেকজনকে আক্রমণ করে হোমিসাইডে পরিণত করছে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। অনেকে অর্থের কারণে এধরনের কাজগুলো করে থাকেন।

পরিশেষে নিন্দনীয় নরহত্যা একটি মারাত্মক অপরাধ। অনবরত চোখের পানি, দীর্ঘস্থায়ী শূন্যতা, হাহাকার ও পরিবার তথা সমাজের শান্তি ও শৃঙ্খলা নষ্টকারী অপরাধ। আমরা সবাই চাই একটি সুখী ও সমৃদ্ধ জীবনযাপন। কিন্তু অনেকেই হোমিউসাইডের সঙ্গে নিজকে জড়িয়ে ফেলে যা কাম্য নয়।

এই ঘৃন্য অপরাধ দমেন আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর ব্যবহার ও জনসাধারণকে সচেতন হতে হবে।

সাকিবুল হাছান

ছবি

বেকারত্ব নিরসনে কুটির শিল্পের ভূমিকা

দুর্যোগ পূর্ববর্তী প্রস্তুতি

ছবি

সোনালি পাটের প্রয়োজনীয়তা

কালীকচ্ছের ধর্মতীর্থ বধ্যভূমিতে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি

চিঠি : হলে খাবারের মান উন্নত করুন

চিঠি : স্বাস্থ্য শিক্ষা বিষয়ে ডিপ্লোমাধারীদের বৈষম্য দূর করুন

চিঠি : শিক্ষার মান উন্নয়ন চাই

চিঠি : সড়ক আইন বাস্তবায়ন করুন

চিঠি : রাস্তায় বাইক সন্ত্রাস

চিঠি : কঠিন হয়ে পড়ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতা

চিঠি : ডিসেম্বরের স্মৃতি

চিঠি : টেকসই ও সাশ্রয়ী ক্লিন এনার্জি

চিঠি : নকল গুড় জব্দ হোক

চিঠি : সড়কে বাড়ছে লেন ঝরছে প্রাণ

চিঠি : ঢাকাবাসীর কাছে মেট্রোরেল আশীর্বাদ

চিঠি : কারিগরি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন জরুরি

চিঠি : পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস চাই

চিঠি : তারুণ্যের শক্তি কাজে লাগান

চিঠি : এইডস থেকে বাঁচতে সচেতন হোন

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ হোক

চিঠি : হাসুন, সুস্থ থাকুন

চিঠি : হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি বন্ধ হোক

চিঠি : রাজনীতিতে তরুণ সমাজের অংশগ্রহণ

চিঠি : মাদককে ‘না’ বলুন

চিঠি : পুনরুন্নয়ন প্রকল্প : পাল্টে যাবে পুরান ঢাকা

চিঠি : শীতার্ত মানুষের পাশে দাঁড়ান

চিঠি : চন্দ্রগঞ্জে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন চাই

চিঠি : বাড়ছে বাল্যবিয়ে

চিঠি : টিকটকের অপব্যবহার রোধ করতে হবে

চিঠি : আত্মবিশ্বাস ও আস্থা

চিঠি : শিক্ষকরা কি প্রকৃত মর্যাদা পাচ্ছে

চিঠি : শিক্ষার্থীদের সঙ্গে স্থানীয়দের সম্প্রীতি চাই

চিঠি : সকালে ও বিকেলে মেট্রোরেল চলুক

চিঠি : অতিথি পাখি নিধন বন্ধ করতে হবে

চিঠি : ঢাবি’র কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার আধুনিকায়ন করা হোক

চিঠি : নিত্যপণ্যের দাম

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : গুরুতর অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করুন

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

বৃহস্পতিবার, ০৮ জুন ২০২৩

সমাজই হত্যাকে অত্যন্ত গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচনা কর হয় এবং শাস্তির বিধানও রাখা হয়। হত্যায় দোষী সাব্যস্ত হওয়া ব্যক্তিকে প্রতিরোধ, পুনর্বাসন বা প্রতিশোধের উদ্দেশ্যে কঠোর শাস্তি প্রদান করা হয়। আধুনিক বিশ্বের অধিকাংশ দেশ, হত্যায় দোষী সাব্যস্ত ব্যক্তিকে সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি জেল বা যাবজ্জীবন কারাদন্ড বা বিশেষ ঘটনায় মৃত্যুদন্ডও কার্যকর করে আসছে।

অপরাধ নির্মূল করার জন্য আয়ন প্রণয়ন করা হয়। কিন্তু বিভিন্ন কারণে আইনের বাস্তবায়নে বাধাগ্রস্ত হওয়ায় অপরাধ প্রবণতা বেড়েই চলছে। বর্তমানে আমাদের পরিবার গুলোতে মায়া, মমতা, আবেগ অনুভূতির পরিবর্তে চাওয়া-পাওয়া, অধিকার, প্রত্যাশা মুখ্য বিষয় হিসেবে দেখা যায়। ফলে পত্রপত্রিকা কিংবা টেলিভিশনের পর্দায় প্রতিনিয়ত দেখা যায় বাবার হাতে সন্তান খুন, সন্তানের হাতে বাবা-মা, ভাইবোন হত্যা হচ্ছে।

বর্তমানে পারস্পরিক বিদ্বেষ একটি স্বাভাবিক ঘটনায় পরিণত হয়েছে। এ বিদ্বেষ যখন দীর্ঘসূত্রিতায় রূপ নেয় তখন তা সহিংসতায় উপনীত হয়। ফলে একজন আরেকজনকে আক্রমণ করে হোমিসাইডে পরিণত করছে, যা কোনোভাবেই কাম্য নয়। অনেকে অর্থের কারণে এধরনের কাজগুলো করে থাকেন।

পরিশেষে নিন্দনীয় নরহত্যা একটি মারাত্মক অপরাধ। অনবরত চোখের পানি, দীর্ঘস্থায়ী শূন্যতা, হাহাকার ও পরিবার তথা সমাজের শান্তি ও শৃঙ্খলা নষ্টকারী অপরাধ। আমরা সবাই চাই একটি সুখী ও সমৃদ্ধ জীবনযাপন। কিন্তু অনেকেই হোমিউসাইডের সঙ্গে নিজকে জড়িয়ে ফেলে যা কাম্য নয়।

এই ঘৃন্য অপরাধ দমেন আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর ব্যবহার ও জনসাধারণকে সচেতন হতে হবে।

সাকিবুল হাছান

back to top