alt

নগর-মহানগর

বেইলি রোডে আগুন

কেটলির শর্টসার্কিট থেকে লিকেজের গ্যাসে বিস্তার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : রোববার, ০৭ এপ্রিল ২০২৪

বেইলি রোডের ‘গ্রিন কোজি কটেজ’ ভবনের নিচতলায় চা-কফির দোকানে ইলেকট্রিক কেটলি থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল বলে তদন্তের পর জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস। আর সেই আগুন প্রাণঘাতি রূপ পেয়েছিল লিকেজ থেকে ছড়ানো গ্যাসের কারণে। ফায়ার সার্ভিস বলছে, গ্যাস জমে থাকার কারণেই কেটলির শর্টসার্কিটের আগুন খুব অল্প সময়ের মধ্যে পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। আর ভবনটির একটামাত্র সিঁড়িতে সিলিন্ডার রাখার কারণে মানুষ নামতে পারেনি।

ওই ভবনে বেশ কিছু ‘আইনি ব্যত্যয়’ দেখার কথা জানিয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান, সংস্থার পরিচালক (অপারেশন্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম চৌধুরী রোববার (৭ এপ্রিল) বলেন, ‘ভবনে একটা এক্সিট সিঁড়ি থাকলেই এত লোক মারা যেত না।’

গত ২৯ ফেব্রুয়ারি রাতে বেইলি রোডের ওই ৮তলা ভবনে আগুন লেগে ৪৬ জনের মৃত্যু হয়। ভবনের নিচতলা থেকে ছাদ পর্যন্ত ডজনখানেক রেস্তোরাঁ ও কফিশপ ব্যবসা করছিল। সাপ্তাহিক ছুটির আগের রাতে রেস্তোরাঁগুলোতে ভিড় করেছিল অনেক মানুষ, যাদের বরণ করতে হয়েছে করুণ পরিণতি। ওই ঘটনার পর রাজউকসহ ভবনের নকশা ও নিরাপত্তা অনুমোদনকারী সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধেও গাফিলতির অভিযোগ ওঠে। ঘটনা তদন্তে ফায়ার সার্ভিস, রাজউক পৃথক তদন্ত কমিটি করে।

এছাড়া ঢাকা শহরের আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন-স্থাপনায় পর্যাপ্ত অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা আছে কিনা, আইন-বিধি অনুসারে প্রয়োজনীয় অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কিনা, তা খতিয়ে দেখতে উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি করে দেয় হাই কোর্ট। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের নেতৃত্বে ওই কমিটিতে ফায়ার সার্ভিস, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, রাজউক এবং বুয়েটের প্রতিনিধিদের রাখা হয়। চারমাসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলেছে উচ্চ আদালত। কমিটিগুলোর মধ্যে ফায়ার সার্ভিস নির্ধারিত সময়ে তদন্ত শেষ করে গত সপ্তাহে নিজেদের অধিদপ্তরে প্রতিবেদন জমা দেয়।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল তাজুল বলেন, ‘ভবনের নিচতলায় ‘চা চুমুক’ নামের কফিশপের ইলেকট্রিক কেটলির শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। সেই আগুনটাকে অতিমাত্রায় ছড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে লিকেজের কারণে জমে থাকা গ্যাস। চার-পাঁচ মিনিটের মধ্যে আগুন পুরো নিচতলা গ্রাস করে নেয়।’ তিনি বলেন, শুধু শর্টসার্কিট বা বৈদ্যুতিক সমস্যা থেকে আগুন ধরলে এত দ্রুত ছড়ায় না বা আগুন এত বড় আকার ধারণ করে না।

‘আগুনের একেবারে প্রাথমিক অবস্থার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে সেগুলোতে আমরা দেখেছি, প্রথম চার-পাঁচ মিনিটের মধ্যেই আগুনটা ‘ডেভেলপড সেটজে’ চলে যায় (আগুনের চারটি স্তর আছে)।’

তদন্ত কমিটির প্রধান বলেন, বৈদ্যুতিক আগুন ছড়ায় প্রথমতো কেবলের মাধ্যমে। পরে সেটি আশপাশের দাহ্য বস্তুর মাধ্যমে ছড়ায়। কিন্তু সেই আগুন এত বড় আকার হয় না। ‘এই ক্ষেত্রে বৈদ্যুতিক উৎস থেকে লেগে আগুনটা গ্যাসে ছড়িয়েছে। প্রাথমিকভাবে ফায়ার এক্সটিংগুইশার দিয়ে অনেকে আগুন নেভাতে চেষ্টাও করেছেন। সেখানে একজন পুলিশও ছিলেন। কিন্তু গ্যাসের কারণে তারা ব্যর্থ হন। ছয় মিনিটের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের প্রথম গাড়ি যখন সেখানে পৌঁছায়, ততক্ষণে পুরো নিচতলা আগুনে ব্লক হয়ে যায়।’

এই কর্মকর্তা আক্ষেপ করে বলেন, ‘এতজন মানুষ মারা যেত না, যদি খালি একটা সিঁড়ি থাকত। এগুলো তো বিল্ডিংয়ের মেজর ইস্যু। এই ভবনে একটামাত্র সিঁড়ি রয়েছে, সেটিতে আবার গ্যাস সিলিন্ডার রেখে ব্লক করে রাখা হয়েছিল। এই সিঁড়ির মতো মেজর ইস্যুসহ আমরা ভবনটিতে অনেকগুলো ব্যত্যয় পেয়েছি।’

যেখানে নিয়মের ‘ব্যত্যয়’

ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন, তদন্তে তারা ওই ভবনে অন্তত ১৩টি ‘ব্যত্যয়’ পেয়েছেন, এর মধ্যে কয়েকটি গুরুতর। ‘প্রথম বাত্যয়টি হচ্ছে সিঁড়ি। তাদের ভবনের যে আয়তন ও যত লোকের আনাগোনা, তাতে অন্তত দুটো সিঁড়ি থাকা আবশ্যক ছিল। কিন্তু ভবনের একটিই সিঁড়ি, সেটিতেও গ্যাস সিলিন্ডার রাখা অবস্থায় পেয়েছি আমরা। একটা এক্সিট সিঁড়ি থাকলেই মানুষগুলো বেঁচে যেত।

‘অকুপেন্সি অনুযায়ী সিঁড়ি হওয়ার কথা। টোটাল জনবল ৫০ জন হলে একটা সিঁড়ি। পঞ্চাশ থেকে ৫০০ হলে দুটো সিঁড়ি। এক্সিট সিঁড়ি মাত্র একটা ছিল। যেটা হওয়ার কথা ছিল ভবনের আয়তন অনুযায়ী ন্যূনতম দুটো। সেই সিঁড়িও অকুপাইড ছিল, সিলিন্ডার রেখে পথ আটকানো ছিল।’ তখনকার পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে তদন্ত কমিটির প্রধান বলেন, ‘ভবনের ওপর তলায় আটকে পড়া মানুষজন আগুন লাগার পর নিচে নামার জন্য এসে দেখছে নিচতলায় আগুন, টেম্পারেচার খুবই হাই। যেই নিচের দিকে নামতে পারে নাই, তখন ওরা বিভিন্ন রুমের মধ্যে ঢুকে গেছে।

‘তারা ভাবছে তিন-চার তলা মনে হয় নিরাপদ। ওই ভবনের ছাদও খোলা ছিল না। আর বাংলাদেশের ৯৫ শতাংশ মানুষই চিন্তা করে সিঁড়িতে তালা আছে। যারা ফ্ল্যাট বাসায় থাকে তারা দেখে অভ্যস্ত সিঁড়িতে তালা আছে। সে কারণে তারা ভবনের বিভিন্ন কক্ষে ঢুকে যায়। সেসব কক্ষে ন্যূনতম কোনো ভেন্টিলেশন ছিল না। আমরা একটা রুমেই ৪০ জনের মতো পেয়েছি। ভেন্টিলেশন থাকলে হয়ত বিষয়টা অন্যরকম হতে পারত।’ ভবনের কাঠামোগত পরিবর্তন করতে গিয়ে আরেকটি ‘গুরুতর ব্যত্যয় ঘটানো হয়েছে’ বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘রাজউকের কাছ থেকে অফিস কাম বাসার (এফ টাইপ) অনুমোদন নিয়েছে ভবনটি। কিন্তু সেখানে রেস্তোরাঁ ও দোকান করা হয়েছে। এটা বেসিক্যালি আই টাইপ ভবন। উনারা এফ টাইপটাকে আই টাইপ বানিয়ে ফেলেছে। কিছু ডিজাইন চেঞ্জ করছে, কিছু বাড়িয়েছেও।’

তাজুল ইসলাম বলছেন, ভবনটি আমিন মোহাম্মদ গ্রুপ করার পর ফ্লোর হিসেবে বিক্রি করে দেয়। এর ছাদও বিক্রি করা হয়েছে। এখন ভবনের আটজনের মতো মালিক রয়েছে। এই ভবন মালিকেরা কখনোই ফায়ার সেইফটি প্ল্যানের জন্য আবেদন করেননি। শুধু ছাদে অ্যামব্রোশিয়া নামে যে রেস্তোরাঁটি আছে, তারা একটি ফায়ার লাইসেন্সের আবেদন করেছিল। ভবনের আরেকটি গুরুতর ব্যত্যয় ঘটেছে ওয়াটার রিজার্ভার না থাকায়।

তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এই ধরনের ভবনে কমপক্ষে ৫০ হাজার গ্যালন পানি ধারণ ক্ষমতার ওয়াটার রিজার্ভার না থাকলে আমরা ছাড়পত্র দিই না। কিন্তু সেখানে পানির ক্যাপাসিটি ১০ হাজার গ্যালন। পানি ছিল আরও কম।’ এ ধরনের অগ্নি দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য ফায়ার সেইফটি প্ল্যান ২০০৩ এবং রাজউক থেকে অনুমোদন করা নকশা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি।

ছবি

বিদ্যুৎ বিভ্রাট কাটিয়ে মেট্রোরেল চলাচল চালু

ছবি

বৈদ্যুতিক বিভ্রাটে বন্ধ মেট্রোরেল

ছবি

ঢাকায় ছুরিকাঘাতে এক যুবক নিহত

ছবি

তেজগাঁওয়ে ভাড়াটিয়ার ছুরিকাঘাতে বাড়ির মালিক খুন

ছবি

আনসার আল ইসলামের প্রশিক্ষক ও রিক্রুটিং শাখার প্রধান গ্রেপ্তার

ছবি

জাতীয় প্রেস ক্লাবে কিডনি ও চক্ষু ক্যাম্প অনুষ্ঠিত

ছবি

এমপি আনার হত্যায় তিনজনকে ৮ দিনের রিমান্ডে

ছবি

শান্তিনগরে বহুতল ভবনে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ২ ইউনিট

ছবি

চার্জার লাইটের ভেতরে ৫ কোটি টাকার সোনা, ২ বিদেশি গ্রেপ্তার

ছবি

ঢাকার বাতাস আজও ‘অস্বাস্থ্যকর’

ছবি

জ্বালানি খাতে অবদানের জন্য সম্মাননা পেল এফইআরবি, সংবাদের রিপোর্টার ও ১১ সাংবাদিক

ছবি

জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা ছাড়া এককভাবে মশা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব না : তাজুল ইসলাম

ছবি

বাড্ডায় ঘিরে রাখা বাড়ি থেকে ৬৫ হাতবোমা উদ্ধার, আটক ৩

ছবি

গোলাম মাওলা রনির গাড়িতে হামলা

ছবি

ধানমন্ডিতে গলায় চাপাতি ঠেকিয়ে ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৪

ছবি

২৭ মে সারাদেশে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি অটোরিকশা চালকদের

ছবি

রাজধানীর বাবুবাজারে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

ছবি

ইভ্যালির এমডি: দুই বছরের মধ্যে সবার টাকা ফেরত

ছবি

মিরপুরে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকদের বিক্ষোভ ট্রাফিক বক্সে আগুন, পথচারী গুলিবিদ্ধ

ছবি

২৫ মে বঙ্গবাজারে নতুন মার্কেটের কাজ শুরু

ছবি

মিরপুরে পুলিশ-অটোরিকশা চালকদের পাল্টাপাল্টি ধাওয়া, পুলিশ বক্সে আগুন

ছবি

মেট্রোরেলে উত্তরা থেকে টঙ্গীর মাঝে হবে ৫ স্টেশন

ছবি

মিরপুরে লাঠিসোটা নিয়ে বিক্ষোভে ব্যাটারিচালিত রিকশাচালকরা

ছবি

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মসূচি : ছাত্রলীগ কর্মী খুন

ছবি

পুরান ঢাকার ব্যাংকের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি

পুরান ঢাকায় ব্যাংকে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৫ ইউনিট

ছবি

রত্নগর্ভা মা সম্মাননা স্মারক পেলেন সুরাইয়া আহমেদ

ছবি

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

সিদ্ধেশ্বরীর মনোয়ারা হাসপাতালে আগুন

ছবি

ট্রেনের দরজা থেকে পড়ে শিশুর নিহত

ছবি

পুলিশের কাজ মিশে যাওয়া, মিলে যাওয়া নয় : তেজগাঁও বিভাগের ডিসি

ছবি

গেটলক সিস্টেম না মানলেই মামলা : ডিএমপি কমিশনার

ছবি

স্টার্টআপ বাংলাদেশ ও মনের বন্ধু’র মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর

ছবি

শুক্রবারও মেট্রোরেল চালানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত

ছবি

সিলেটে হোল্ডিংট্যাক্সে ‘তুঘলকি কান্ড’, এক লাফে বাড়লো কয়েকশ’ গুণ

ছবি

ফোন করে বলে ‘ও তো আমার লোক’ কিশোর গ্যাং আটক প্রসঙ্গে ডিবি প্রধান

tab

নগর-মহানগর

বেইলি রোডে আগুন

কেটলির শর্টসার্কিট থেকে লিকেজের গ্যাসে বিস্তার

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

রোববার, ০৭ এপ্রিল ২০২৪

বেইলি রোডের ‘গ্রিন কোজি কটেজ’ ভবনের নিচতলায় চা-কফির দোকানে ইলেকট্রিক কেটলি থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল বলে তদন্তের পর জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস। আর সেই আগুন প্রাণঘাতি রূপ পেয়েছিল লিকেজ থেকে ছড়ানো গ্যাসের কারণে। ফায়ার সার্ভিস বলছে, গ্যাস জমে থাকার কারণেই কেটলির শর্টসার্কিটের আগুন খুব অল্প সময়ের মধ্যে পুরো ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। আর ভবনটির একটামাত্র সিঁড়িতে সিলিন্ডার রাখার কারণে মানুষ নামতে পারেনি।

ওই ভবনে বেশ কিছু ‘আইনি ব্যত্যয়’ দেখার কথা জানিয়ে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটির প্রধান, সংস্থার পরিচালক (অপারেশন্স) লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম চৌধুরী রোববার (৭ এপ্রিল) বলেন, ‘ভবনে একটা এক্সিট সিঁড়ি থাকলেই এত লোক মারা যেত না।’

গত ২৯ ফেব্রুয়ারি রাতে বেইলি রোডের ওই ৮তলা ভবনে আগুন লেগে ৪৬ জনের মৃত্যু হয়। ভবনের নিচতলা থেকে ছাদ পর্যন্ত ডজনখানেক রেস্তোরাঁ ও কফিশপ ব্যবসা করছিল। সাপ্তাহিক ছুটির আগের রাতে রেস্তোরাঁগুলোতে ভিড় করেছিল অনেক মানুষ, যাদের বরণ করতে হয়েছে করুণ পরিণতি। ওই ঘটনার পর রাজউকসহ ভবনের নকশা ও নিরাপত্তা অনুমোদনকারী সংস্থাগুলোর বিরুদ্ধেও গাফিলতির অভিযোগ ওঠে। ঘটনা তদন্তে ফায়ার সার্ভিস, রাজউক পৃথক তদন্ত কমিটি করে।

এছাড়া ঢাকা শহরের আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন-স্থাপনায় পর্যাপ্ত অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা আছে কিনা, আইন-বিধি অনুসারে প্রয়োজনীয় অগ্নি নির্বাপন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে কিনা, তা খতিয়ে দেখতে উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি করে দেয় হাই কোর্ট। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিবের নেতৃত্বে ওই কমিটিতে ফায়ার সার্ভিস, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, রাজউক এবং বুয়েটের প্রতিনিধিদের রাখা হয়। চারমাসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলেছে উচ্চ আদালত। কমিটিগুলোর মধ্যে ফায়ার সার্ভিস নির্ধারিত সময়ে তদন্ত শেষ করে গত সপ্তাহে নিজেদের অধিদপ্তরে প্রতিবেদন জমা দেয়।

লেফটেন্যান্ট কর্নেল তাজুল বলেন, ‘ভবনের নিচতলায় ‘চা চুমুক’ নামের কফিশপের ইলেকট্রিক কেটলির শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত। সেই আগুনটাকে অতিমাত্রায় ছড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে লিকেজের কারণে জমে থাকা গ্যাস। চার-পাঁচ মিনিটের মধ্যে আগুন পুরো নিচতলা গ্রাস করে নেয়।’ তিনি বলেন, শুধু শর্টসার্কিট বা বৈদ্যুতিক সমস্যা থেকে আগুন ধরলে এত দ্রুত ছড়ায় না বা আগুন এত বড় আকার ধারণ করে না।

‘আগুনের একেবারে প্রাথমিক অবস্থার ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে সেগুলোতে আমরা দেখেছি, প্রথম চার-পাঁচ মিনিটের মধ্যেই আগুনটা ‘ডেভেলপড সেটজে’ চলে যায় (আগুনের চারটি স্তর আছে)।’

তদন্ত কমিটির প্রধান বলেন, বৈদ্যুতিক আগুন ছড়ায় প্রথমতো কেবলের মাধ্যমে। পরে সেটি আশপাশের দাহ্য বস্তুর মাধ্যমে ছড়ায়। কিন্তু সেই আগুন এত বড় আকার হয় না। ‘এই ক্ষেত্রে বৈদ্যুতিক উৎস থেকে লেগে আগুনটা গ্যাসে ছড়িয়েছে। প্রাথমিকভাবে ফায়ার এক্সটিংগুইশার দিয়ে অনেকে আগুন নেভাতে চেষ্টাও করেছেন। সেখানে একজন পুলিশও ছিলেন। কিন্তু গ্যাসের কারণে তারা ব্যর্থ হন। ছয় মিনিটের মধ্যে ফায়ার সার্ভিসের প্রথম গাড়ি যখন সেখানে পৌঁছায়, ততক্ষণে পুরো নিচতলা আগুনে ব্লক হয়ে যায়।’

এই কর্মকর্তা আক্ষেপ করে বলেন, ‘এতজন মানুষ মারা যেত না, যদি খালি একটা সিঁড়ি থাকত। এগুলো তো বিল্ডিংয়ের মেজর ইস্যু। এই ভবনে একটামাত্র সিঁড়ি রয়েছে, সেটিতে আবার গ্যাস সিলিন্ডার রেখে ব্লক করে রাখা হয়েছিল। এই সিঁড়ির মতো মেজর ইস্যুসহ আমরা ভবনটিতে অনেকগুলো ব্যত্যয় পেয়েছি।’

যেখানে নিয়মের ‘ব্যত্যয়’

ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম বলেন, তদন্তে তারা ওই ভবনে অন্তত ১৩টি ‘ব্যত্যয়’ পেয়েছেন, এর মধ্যে কয়েকটি গুরুতর। ‘প্রথম বাত্যয়টি হচ্ছে সিঁড়ি। তাদের ভবনের যে আয়তন ও যত লোকের আনাগোনা, তাতে অন্তত দুটো সিঁড়ি থাকা আবশ্যক ছিল। কিন্তু ভবনের একটিই সিঁড়ি, সেটিতেও গ্যাস সিলিন্ডার রাখা অবস্থায় পেয়েছি আমরা। একটা এক্সিট সিঁড়ি থাকলেই মানুষগুলো বেঁচে যেত।

‘অকুপেন্সি অনুযায়ী সিঁড়ি হওয়ার কথা। টোটাল জনবল ৫০ জন হলে একটা সিঁড়ি। পঞ্চাশ থেকে ৫০০ হলে দুটো সিঁড়ি। এক্সিট সিঁড়ি মাত্র একটা ছিল। যেটা হওয়ার কথা ছিল ভবনের আয়তন অনুযায়ী ন্যূনতম দুটো। সেই সিঁড়িও অকুপাইড ছিল, সিলিন্ডার রেখে পথ আটকানো ছিল।’ তখনকার পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে তদন্ত কমিটির প্রধান বলেন, ‘ভবনের ওপর তলায় আটকে পড়া মানুষজন আগুন লাগার পর নিচে নামার জন্য এসে দেখছে নিচতলায় আগুন, টেম্পারেচার খুবই হাই। যেই নিচের দিকে নামতে পারে নাই, তখন ওরা বিভিন্ন রুমের মধ্যে ঢুকে গেছে।

‘তারা ভাবছে তিন-চার তলা মনে হয় নিরাপদ। ওই ভবনের ছাদও খোলা ছিল না। আর বাংলাদেশের ৯৫ শতাংশ মানুষই চিন্তা করে সিঁড়িতে তালা আছে। যারা ফ্ল্যাট বাসায় থাকে তারা দেখে অভ্যস্ত সিঁড়িতে তালা আছে। সে কারণে তারা ভবনের বিভিন্ন কক্ষে ঢুকে যায়। সেসব কক্ষে ন্যূনতম কোনো ভেন্টিলেশন ছিল না। আমরা একটা রুমেই ৪০ জনের মতো পেয়েছি। ভেন্টিলেশন থাকলে হয়ত বিষয়টা অন্যরকম হতে পারত।’ ভবনের কাঠামোগত পরিবর্তন করতে গিয়ে আরেকটি ‘গুরুতর ব্যত্যয় ঘটানো হয়েছে’ বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘রাজউকের কাছ থেকে অফিস কাম বাসার (এফ টাইপ) অনুমোদন নিয়েছে ভবনটি। কিন্তু সেখানে রেস্তোরাঁ ও দোকান করা হয়েছে। এটা বেসিক্যালি আই টাইপ ভবন। উনারা এফ টাইপটাকে আই টাইপ বানিয়ে ফেলেছে। কিছু ডিজাইন চেঞ্জ করছে, কিছু বাড়িয়েছেও।’

তাজুল ইসলাম বলছেন, ভবনটি আমিন মোহাম্মদ গ্রুপ করার পর ফ্লোর হিসেবে বিক্রি করে দেয়। এর ছাদও বিক্রি করা হয়েছে। এখন ভবনের আটজনের মতো মালিক রয়েছে। এই ভবন মালিকেরা কখনোই ফায়ার সেইফটি প্ল্যানের জন্য আবেদন করেননি। শুধু ছাদে অ্যামব্রোশিয়া নামে যে রেস্তোরাঁটি আছে, তারা একটি ফায়ার লাইসেন্সের আবেদন করেছিল। ভবনের আরেকটি গুরুতর ব্যত্যয় ঘটেছে ওয়াটার রিজার্ভার না থাকায়।

তাজুল ইসলাম বলেন, ‘এই ধরনের ভবনে কমপক্ষে ৫০ হাজার গ্যালন পানি ধারণ ক্ষমতার ওয়াটার রিজার্ভার না থাকলে আমরা ছাড়পত্র দিই না। কিন্তু সেখানে পানির ক্যাপাসিটি ১০ হাজার গ্যালন। পানি ছিল আরও কম।’ এ ধরনের অগ্নি দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য ফায়ার সেইফটি প্ল্যান ২০০৩ এবং রাজউক থেকে অনুমোদন করা নকশা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে তদন্ত কমিটি।

back to top