alt

চিঠিপত্র

চিঠি : পিরিয়ড নিয়ে যত কুসংস্কার

: বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

মা হওয়ার পূর্ববর্তী শর্ত পিরিয়ড। প্রতিটি সুস্থ স্বাস্থ্যের অধিকারী নারীর ২১-২৮ দিন অন্তর অন্তর রক্তস্রাব হয় তাই পিরিয়ড। আমাদের দেশের মেয়েরা এ সময়ে অনেক নিয়মনীতি মেনে চলে। যার বেশির ভাগই অনর্থক এবং কুসংস্কারপূর্ণ। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম এই কুসংস্কারগুলো চলে আসছে।

যেমন, বলা হয় পিরিয়ডরত অবস্থায় মেয়েরা থাকে অশুচি, অপবিত্র, তাদের ছোঁয়ায় সব অপবিত্র হয়ে যায়। এই সময় চুল খোলা যাবে না, সন্ধ্যার পর খোলা চুলে থাকা যাবে না, মসলাযুক্ত খাবার খাওয়া যাবে না, চুলে শ্যাম্পু করা যাবে না, সন্ধ্যার পর ঘরের বাইরে যাওয়া যাবে না, এমনকি গোসলও করা যাবে না। এমন আজব, অযৌক্তিক ও ভিত্তিহীন কুসংস্কার সমাজে প্রচলিত। গ্রাম হোক বা শহর হোক যেখানেই অজ্ঞতার ছোঁয়া সেখানেই এই কুসংস্কারের চর্চা।

অজ্ঞতা এবং দারিদ্র্যতার কারণে স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটারি প্যাডের বদলে এখনো অনেকে পুরোনো কাপড় ব্যবহার করে। অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ও পরিবেশের ফলেই আমাদের দেশের নারীরা স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিভিন্ন জটিলতায় ভোগে। জরায়ুতে টিউমার, ক্যানসার, মূত্রনালিতে ইনফেকশন, অনিয়মিত পিরিয়ড এবং অনেক সময় মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।

সুস্থভাবে বাঁচতে হলে আমাদের জানতে হবে, পিরিয়ড লজ্জা নয়। এটি একটি শারীরিক প্রক্রিয়া। সব সুস্থ নারী এই প্রক্রিয়া বেড়ে ওঠে। তাই কুসংস্কার ত্যাগ করে সঠিক স্বাস্থ্যবিধি জানতে হবে এবং স্যানিটারি প্যাডের দাম কমিয়ে সবার ব্যবহার উপযোগী করতে হবে। নারীর পিরিয়ডজনিত যে কোন স্বাস্থ্য সমস্যায় ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। পিরিয়ড মানে অসুস্থতা বা অপবিত্রতা নয়। এই সময় বরং আরও বেশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও সচেতন থাকা এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত। পিরিয়ড কোনো রোগ বা বাঁধা নয়, তাই পিরিয়ডে কুসংস্কার নয়।

আনিকা শাহ্ সাথী

চিঠি : কুষ্টিয়ায় বিমানবন্দর চাই

চিঠি : যাত্রা পথে দুর্ঘটনা

চিঠি : নিয়োগ পরীক্ষায় মোবাইল ও ব্যাগের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে

চিঠি : ছাপা কাগজে খাবার বিক্রি বন্ধ হোক

চিঠি : তৃতীয় লিঙ্গের চাঁদাবাজি বন্ধ হোক

চিঠি : শারদীয় দুর্গাপূজা

চিঠি : আন্দোলনের নামে নৈরাজ্য নয়

চিঠি : ফরিদাবাদে স্ট্রিট লাইট সংকট

চিঠি : ডিজিটাল ভূমি জরিপ নির্ভুল করার উপায়

চিঠি : মুগদাপাড়ায় তীব্র গ্যাস সংকট

চিঠি : মামলা জটের কারণ কী?

চিঠি : যাঁতাকলে মধ্যবিত্ত

চিঠি : অব্যবস্থাপনার যাঁতাকল

চিঠি : পাবলিক টয়লেটের সংখ্যা বাড়ান

চিঠি : মহাসড়কের নিরাপত্তাব্যবস্থা

চিঠি : আত্মহত্যা কোন সমাধান নয়

চিঠি : ইবিতে পরিবহন সমস্যা

চিঠি : অবৈধ ফার্মেসির লাগাম টানুন

চিঠি : রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দ্রুত পদক্ষেপ প্রয়োজন

চিঠি : অটোরিকশার লাইসেন্স প্রসঙ্গে

চিঠি : সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক

চিঠি : নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি

চিঠি : পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যুহার কমাতে পদক্ষেপ নিন

চিঠি : এশিয়া কাপে টাইগারদের নিয়ে প্রত্যাশা

চিঠি : উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যম হোক মাতৃভাষা

চিঠি : সোশ্যাল মিডিয়া ও ব্যক্তিগত জীবন

চিঠি : ইবির আধুনিকায়ন চাই

চিঠি : অগ্রগতির প্রতিবন্ধকতা কুসংস্কার

চিঠি : কাগজের ঠোঙার খাবারের স্বাস্থ্যঝুঁকি

চিঠি : ঝুঁকিপূর্ণ বিলবোর্ড অপসারণ করুন

চিঠি : নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ গড়ে তুলতে হবে

চিঠি : ঢাকা কলেজে নতুন শহীদ মিনার

চিঠি : ডিপ্রেশন এবং আত্মহত্যা!

চিঠি : বন্ধুত্বের যত্ন নিন

চিঠি : ট্রাফিক পুলিশ ও ব্যবস্থাপনা

চিঠি : বিমানবন্দরে প্রবাসীদের হয়রানি

tab

চিঠিপত্র

চিঠি : পিরিয়ড নিয়ে যত কুসংস্কার

মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২

মা হওয়ার পূর্ববর্তী শর্ত পিরিয়ড। প্রতিটি সুস্থ স্বাস্থ্যের অধিকারী নারীর ২১-২৮ দিন অন্তর অন্তর রক্তস্রাব হয় তাই পিরিয়ড। আমাদের দেশের মেয়েরা এ সময়ে অনেক নিয়মনীতি মেনে চলে। যার বেশির ভাগই অনর্থক এবং কুসংস্কারপূর্ণ। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম এই কুসংস্কারগুলো চলে আসছে।

যেমন, বলা হয় পিরিয়ডরত অবস্থায় মেয়েরা থাকে অশুচি, অপবিত্র, তাদের ছোঁয়ায় সব অপবিত্র হয়ে যায়। এই সময় চুল খোলা যাবে না, সন্ধ্যার পর খোলা চুলে থাকা যাবে না, মসলাযুক্ত খাবার খাওয়া যাবে না, চুলে শ্যাম্পু করা যাবে না, সন্ধ্যার পর ঘরের বাইরে যাওয়া যাবে না, এমনকি গোসলও করা যাবে না। এমন আজব, অযৌক্তিক ও ভিত্তিহীন কুসংস্কার সমাজে প্রচলিত। গ্রাম হোক বা শহর হোক যেখানেই অজ্ঞতার ছোঁয়া সেখানেই এই কুসংস্কারের চর্চা।

অজ্ঞতা এবং দারিদ্র্যতার কারণে স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটারি প্যাডের বদলে এখনো অনেকে পুরোনো কাপড় ব্যবহার করে। অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন ও পরিবেশের ফলেই আমাদের দেশের নারীরা স্বাস্থ্যসংক্রান্ত বিভিন্ন জটিলতায় ভোগে। জরায়ুতে টিউমার, ক্যানসার, মূত্রনালিতে ইনফেকশন, অনিয়মিত পিরিয়ড এবং অনেক সময় মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।

সুস্থভাবে বাঁচতে হলে আমাদের জানতে হবে, পিরিয়ড লজ্জা নয়। এটি একটি শারীরিক প্রক্রিয়া। সব সুস্থ নারী এই প্রক্রিয়া বেড়ে ওঠে। তাই কুসংস্কার ত্যাগ করে সঠিক স্বাস্থ্যবিধি জানতে হবে এবং স্যানিটারি প্যাডের দাম কমিয়ে সবার ব্যবহার উপযোগী করতে হবে। নারীর পিরিয়ডজনিত যে কোন স্বাস্থ্য সমস্যায় ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। পিরিয়ড মানে অসুস্থতা বা অপবিত্রতা নয়। এই সময় বরং আরও বেশি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ও সচেতন থাকা এবং পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ খাবার খাওয়া উচিত। পিরিয়ড কোনো রোগ বা বাঁধা নয়, তাই পিরিয়ডে কুসংস্কার নয়।

আনিকা শাহ্ সাথী

back to top