alt

নগর-মহানগর

বিরোধীদল ছাড়া স্বচ্ছ নির্বাচনও গ্রহণযোগ্যতা হারাতে পারে : সিইসি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট : সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

‘বিরোধীদলের অংশগ্রহণ ছাড়া স্বচ্ছ নির্বাচনও গ্রহণযোগ্যতা হারাতে পারে। নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হওয়া খুবই প্রয়োজন। যদি মূল বিরোধী দল নির্বাচনে না আসে, তাহলে নির্বাচন স্বচ্ছ-অস্বচ্ছ যাই হোক, সেটার গুরুত্ব ও গ্রহণযোগ্যতা অনেক কমে যাবে। কারণ ডেমোক্রেসির মূল কথাই হচ্ছে পজিশন এবং অপজিশন’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

সোমবার (১৩ জুন) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) একটি প্রতিনিধি দল সিইসির সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সিইসি এসব মন্তব্য করেন।

সিইসি বলেন, ‘নির্বাচনে মনোনয়ন নিতে প্রার্থীকে যে পরিমাণ অর্থ খরচ করতে হয়, এতে প্রার্থীর মধ্যে ‘জয়ী হতেই হবে’ এরকম একটা মনস্তাত্ত্বিক চাপ তৈরি হয়। প্রার্থী কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ করে মনোনয়ন নিয়ে বিজয়ী হওয়ার পরই সেই টাকা তুলে আনতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে কিন্তু একটা সহিংস চরিত্র গড়ে ওঠে। এটি কীভাবে নিয়ন্ত্রণ হবে জানি না। তবে দলগুলোর শীর্ষ নেতৃত্বকে উপলিব্ধ করা উচিত যে, নির্বাচন যেন বাণিজ্যে পরিণত না হয়। বাণিজ্যের জন্য এমপি হতে হবে, মনোনয়ন নিয়ে যে করেই হোক নির্বাচনে জিততে হবে, এ ধরনের মানসিকতা থেকে প্রার্থীদের বের করে আনতে পারলে আমাদের গণতন্ত্র ও নির্বাচনী ব্যবস্থা বর্তমান অবস্থার চেয়ে আরও উন্নত হবে।’

নির্বাচনী বিধি মোতাবেক নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) সহযোগিতা করতে বাধ্য উল্লেখ করে সিইসি বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের সঙ্গে বর্তমান সরকারের ধরন পাল্টে যাবে। তখন সরকার শুধু পলিসি নিয়ে কাজ করবে। বিশ্বের সব দেশেই এটা আছে। নির্বাচনী কাজে সরকার আমাদের সহায়তা দেবে। আইন অনুযায়ী এটা দিতে সরকার বাধ্য। সব নির্বাচনে আমরা সরকারের সহায়তা চাইবো। সরকারও সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে আশা করি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের কাছ থেকে মূলত তিনটি মন্ত্রণালয়ের সহায়তা প্রয়োজন। অন্য কোন মন্ত্রণালয় নিয়ে আমাদের মাথা ঘামানোর দরকার নেই। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের নিয়ন্ত্রণ করে, পুলিশ প্রশাসন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আর সশস্ত্র বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ থাকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের হাতে। সরকারের এ তিনটি মন্ত্রণালয় নির্বাচনকালীন ইসিকে সহযোগিতা দেবে।

টিআইবির সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ওনাদের বলেছি, আপনারা সরাসরি রাজনীতি না করলেও রাজনীতির ঊর্ধ্বে আপনাদের একটা অবস্থান আছে। প্রতিদিনের আক্রমণাত্মক মন্তব্যগুলো থেকে সরে এসে টেবিলে মুখোমুখি বসলে আলোচনা হবে গঠনমূলক। টেবিলের বাইরে গিয়ে ধারাবাহিকভাবে আক্রমণাত্মক বক্তব্য পারস্পরিক বিরুদ্ধাচারণই বাড়াবে। এতে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে দূরত্ব কমবে না। আমরা এ ধরনের দূরত্ব ঘোচাতে চাই।

সিইসি বলেন, আইনে আমাদের কী ক্ষমতা তা আমাদের জানা। আমরা কিন্তু সে সহায়তা নিতে পারবো। পুলিশ প্রশাসনকে নিরপেক্ষ থাকতে হবে। সহিংসতার কারণে নির্বাচন বিঘ্নিত হলে যেকোন কেন্দ্রের ভোট বাতিলের ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। আমরা সে ব্যাপারে সতর্ক থাকবো। পরিবেশ যেন বিরূপ না হয়, ভোটাররা যেন কেন্দ্রে যেতে পারে এবং নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে, সেটা আমরা নিশ্চিত করার চেষ্টা করবো। কোথাও বড় ধরনের সহিংসতা হলে নির্বাচন পরিচালনায় দায়িত্বরতরা ভোট স্থগিত বা আসন বাতিল করে দিতে পারবেন।

নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে জানতে চাইলে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, নির্বাচনের সময় যে সরকার থাকবে সেটাই নির্বাচনকালীন সরকার। অপজিশন থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ যেসব দাবি করা হচ্ছে এগুলো নিয়ে আমাদের কোন মন্তব্য নেই। এগুলো আমাদের বিষয়ও নয়। এটা সাংবিধানিক বিষয়। রাজনৈতিক নেতারা একমত হয়ে এগুলো দেখবেন। আমরা শুধু চাই, বিধি মোতাবেক নির্বাচনকালীন সরকার ইসিকে সহযোগিতা করুক।

কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বাহারের এলাকা ছাড়তে ইসির চিঠি সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নে সিইসি বলেন, এমপিদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো কি-না জানি না। ওনাকে (এমপি বাহার) চিঠি দিয়েছিলাম যেন উনি এলাকায় না থাকেন। কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঘিরে বলা হয়েছে সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নির্বাচনী এলাকায় থাকতে পারবেন না। তিনি (এমপি বাহার) আচরণবিধি ভঙ্গ করছেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে, আমরা ওনাকে চিঠির মাধ্যমে এলাকা ছাড়তে বলেছিলাম। উনি এলাকা ছাড়েননি।

‘যখন সংসদ নির্বাচন হবে, তখন তো ওনারা এলাকায়ই থাকবেন। কিন্তু স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ক্ষেত্রে এ ধরনের ভিভিআইপিদের কিছু আচরণবিধি ফলো করা উচিত। এটা তো আপেক্ষিক বিষয়, আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো কি পারবো না জানি না। তবে আমাদের চেষ্টা থাকবে’ বলে আশা প্রকাশ করেন সিইসি।

দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন প্রসঙ্গে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, সব দেশেই তো এটা হচ্ছে। ভারতে হচ্ছে, যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্রেও দলীয় সরকারের অধীনেই নির্বাচন হচ্ছে। সরকার তো সরকারই। দল ভিন্ন জিনিস। আমরা সরকার ও দলের মধ্যে এ পার্থক্য এবং বিভাজনটা স্পষ্ট করতে পারলে সমস্যা অনেকাংশে কমে যাবে। কারণ, একটি দেশের সরকার পক্ষপাতিত্ব না করার শপথ নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করে। সরকার সবসময়ই সম আচরণ করে। আমার বিশ্বাস, সরকার তার শপথটা ভালো করেই জানে।

ছবি

নারায়ণগঞ্জে ট্রাক চাপায় কলেজছাত্র নিহত

ছবি

বড় ভাইয়ের মৃত্যু: প্যারোলে মুক্ত হাজী সেলিম

ছবি

অধ্যাপক রতন সিদ্দিকীর বাসায় ‘হামলা’

ছবি

বিক্রি শুরুর আড়াই ঘণ্টায় শেষ টিকিট

ছবি

নারায়ণগঞ্জে জাপা নেতার অনুমোদনহীন ভবন ভেঙে দিয়েছে রাজউক, জরিমানা ২ লাখ

ছবি

ড্রোন দিয়ে ডেঙ্গু মশা খুঁজবে ডিএনসিসি

ছবি

ডিএনসিসির ৬ গরুর হাটে হবে ডিজিটাল লেনদেন

রাজধানীতে ৪৩ চোরাই মোবাইল উদ্ধার, মালিক খুঁজছে পুলিশ

এবার ঢাকা দক্ষিণে ৬টি ‘কৃষকের বাজার’ হচ্ছে

রাজধানীতে মলম পার্টি ও ছনতাইকারী চক্রের ২৬ গ্রেপ্তার

ছবি

শাহবাগে ট্রাকের ধাক্কায় কলেজশিক্ষার্থী নিহত

ছবি

দক্ষিণ সিটির উপ-কর কর্মকর্তাসহ চাকরি হারালেন ৩২ জন

রাজধানীতে মলম পার্টি ও ছিনতাইকারী চক্রের ২৬ সদস্য গ্রেপ্তার

ছবি

মতিঝিলে ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার মাদক কারবারি

ছবি

মাদকবিরোধী অভিযান: রাজধানীতে আটক ৪২

রাজধানীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল চালক নিহত

রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধর, মামলা ছাত্রলীগকর্মীর নামে

গাড়ীর ধাক্কায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত

ছবি

বংশালে বিস্ফোরণে একই পরিবারের দগ্ধ ৪

ছবি

পদ্মা সেতু উদ্বোধন: বর্ণিল সাজে সেজেছে ঢাকা উত্তর সিটি

ছবি

রামপুরায় গৃহকর্মীর মৃত্যুর রহস্য খুঁজছে পুলিশ

ছবি

রাজধানীতে মদ-হেরোইনসহ গ্রেপ্তার ৬৮

বন্যা, খরা ও লবণাক্ততা সহিষ্ণু জাতের উদ্ভাবনের দিকে জোর কৃষিমন্ত্রীর

ছবি

তিন দিনব্যাপী ‘ঢাকা মোটর শো-২০২২’ শুরু কাল

১ সেপ্টেম্বর তিন রুটে ২০০ বাস দিয়ে চালু হবে ঢাকা নগর পরিবহন

ছবি

ইউনিলিভার ও সার্কুলার এর যৌথ অংশীদারিত্বে প্লাস্টিক সংগ্রহের উদ্যোগ

ছবি

আর্টিকেল নাইনটিনের আয়োজনে বিদ্বেষমূলক বক্তব্য প্রতিরোধ বিষয়ক ওয়েবিনার

ছবি

‘১ সেপ্টেম্বর থেকে আরও তিন রুটে ঢাকা নগর পরিবহনের ২০০ বাস নামবে’

ছবি

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযান, ৫৪ মামলায় গ্রেফতার ৭৪

ছবি

বাংলাদেশ ব্যাংকের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি

রন্ধন শিল্পী তৈরির কারিগরদের সম্মাননা দিলো বেকিং এন্ড কুকিং এন্টারপ্রেনারস বিডি

ছবি

আজ রন্ধন শিল্পীদের সম্মাননা

ছবি

‘গৃহ সুখন’ এর রিমা জুলফিকার, দিন বদলের পালাকার

ছবি

মুনিরা সুলতানার ‘আপন ঘর’, চলছে আপন গতিতে

ছবি

রাজধানীতে হেরোইন-ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ৫২

ছবি

আন্তর্জাতিক জলবায়ু তহবিল সংগ্রহে স্থানীয় সরকার কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

tab

নগর-মহানগর

বিরোধীদল ছাড়া স্বচ্ছ নির্বাচনও গ্রহণযোগ্যতা হারাতে পারে : সিইসি

সংবাদ অনলাইন রিপোর্ট

সোমবার, ১৩ জুন ২০২২

‘বিরোধীদলের অংশগ্রহণ ছাড়া স্বচ্ছ নির্বাচনও গ্রহণযোগ্যতা হারাতে পারে। নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হওয়া খুবই প্রয়োজন। যদি মূল বিরোধী দল নির্বাচনে না আসে, তাহলে নির্বাচন স্বচ্ছ-অস্বচ্ছ যাই হোক, সেটার গুরুত্ব ও গ্রহণযোগ্যতা অনেক কমে যাবে। কারণ ডেমোক্রেসির মূল কথাই হচ্ছে পজিশন এবং অপজিশন’ বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল।

সোমবার (১৩ জুন) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) একটি প্রতিনিধি দল সিইসির সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সিইসি এসব মন্তব্য করেন।

সিইসি বলেন, ‘নির্বাচনে মনোনয়ন নিতে প্রার্থীকে যে পরিমাণ অর্থ খরচ করতে হয়, এতে প্রার্থীর মধ্যে ‘জয়ী হতেই হবে’ এরকম একটা মনস্তাত্ত্বিক চাপ তৈরি হয়। প্রার্থী কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ করে মনোনয়ন নিয়ে বিজয়ী হওয়ার পরই সেই টাকা তুলে আনতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। এতে কিন্তু একটা সহিংস চরিত্র গড়ে ওঠে। এটি কীভাবে নিয়ন্ত্রণ হবে জানি না। তবে দলগুলোর শীর্ষ নেতৃত্বকে উপলিব্ধ করা উচিত যে, নির্বাচন যেন বাণিজ্যে পরিণত না হয়। বাণিজ্যের জন্য এমপি হতে হবে, মনোনয়ন নিয়ে যে করেই হোক নির্বাচনে জিততে হবে, এ ধরনের মানসিকতা থেকে প্রার্থীদের বের করে আনতে পারলে আমাদের গণতন্ত্র ও নির্বাচনী ব্যবস্থা বর্তমান অবস্থার চেয়ে আরও উন্নত হবে।’

নির্বাচনী বিধি মোতাবেক নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশনকে (ইসি) সহযোগিতা করতে বাধ্য উল্লেখ করে সিইসি বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের সঙ্গে বর্তমান সরকারের ধরন পাল্টে যাবে। তখন সরকার শুধু পলিসি নিয়ে কাজ করবে। বিশ্বের সব দেশেই এটা আছে। নির্বাচনী কাজে সরকার আমাদের সহায়তা দেবে। আইন অনুযায়ী এটা দিতে সরকার বাধ্য। সব নির্বাচনে আমরা সরকারের সহায়তা চাইবো। সরকারও সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে আশা করি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, নির্বাচনকালীন সরকারের কাছ থেকে মূলত তিনটি মন্ত্রণালয়ের সহায়তা প্রয়োজন। অন্য কোন মন্ত্রণালয় নিয়ে আমাদের মাথা ঘামানোর দরকার নেই। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের নিয়ন্ত্রণ করে, পুলিশ প্রশাসন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আর সশস্ত্র বাহিনীর নিয়ন্ত্রণ থাকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের হাতে। সরকারের এ তিনটি মন্ত্রণালয় নির্বাচনকালীন ইসিকে সহযোগিতা দেবে।

টিআইবির সঙ্গে বৈঠক প্রসঙ্গে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ওনাদের বলেছি, আপনারা সরাসরি রাজনীতি না করলেও রাজনীতির ঊর্ধ্বে আপনাদের একটা অবস্থান আছে। প্রতিদিনের আক্রমণাত্মক মন্তব্যগুলো থেকে সরে এসে টেবিলে মুখোমুখি বসলে আলোচনা হবে গঠনমূলক। টেবিলের বাইরে গিয়ে ধারাবাহিকভাবে আক্রমণাত্মক বক্তব্য পারস্পরিক বিরুদ্ধাচারণই বাড়াবে। এতে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে দূরত্ব কমবে না। আমরা এ ধরনের দূরত্ব ঘোচাতে চাই।

সিইসি বলেন, আইনে আমাদের কী ক্ষমতা তা আমাদের জানা। আমরা কিন্তু সে সহায়তা নিতে পারবো। পুলিশ প্রশাসনকে নিরপেক্ষ থাকতে হবে। সহিংসতার কারণে নির্বাচন বিঘ্নিত হলে যেকোন কেন্দ্রের ভোট বাতিলের ক্ষমতা আমাদের রয়েছে। আমরা সে ব্যাপারে সতর্ক থাকবো। পরিবেশ যেন বিরূপ না হয়, ভোটাররা যেন কেন্দ্রে যেতে পারে এবং নির্বিঘ্নে ভোট দিতে পারে, সেটা আমরা নিশ্চিত করার চেষ্টা করবো। কোথাও বড় ধরনের সহিংসতা হলে নির্বাচন পরিচালনায় দায়িত্বরতরা ভোট স্থগিত বা আসন বাতিল করে দিতে পারবেন।

নির্বাচনকালীন সরকার সম্পর্কে জানতে চাইলে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, নির্বাচনের সময় যে সরকার থাকবে সেটাই নির্বাচনকালীন সরকার। অপজিশন থেকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারসহ যেসব দাবি করা হচ্ছে এগুলো নিয়ে আমাদের কোন মন্তব্য নেই। এগুলো আমাদের বিষয়ও নয়। এটা সাংবিধানিক বিষয়। রাজনৈতিক নেতারা একমত হয়ে এগুলো দেখবেন। আমরা শুধু চাই, বিধি মোতাবেক নির্বাচনকালীন সরকার ইসিকে সহযোগিতা করুক।

কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বাহারের এলাকা ছাড়তে ইসির চিঠি সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নে সিইসি বলেন, এমপিদের নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো কি-না জানি না। ওনাকে (এমপি বাহার) চিঠি দিয়েছিলাম যেন উনি এলাকায় না থাকেন। কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন ঘিরে বলা হয়েছে সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা নির্বাচনী এলাকায় থাকতে পারবেন না। তিনি (এমপি বাহার) আচরণবিধি ভঙ্গ করছেন বলে প্রতীয়মান হয়েছে, আমরা ওনাকে চিঠির মাধ্যমে এলাকা ছাড়তে বলেছিলাম। উনি এলাকা ছাড়েননি।

‘যখন সংসদ নির্বাচন হবে, তখন তো ওনারা এলাকায়ই থাকবেন। কিন্তু স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ক্ষেত্রে এ ধরনের ভিভিআইপিদের কিছু আচরণবিধি ফলো করা উচিত। এটা তো আপেক্ষিক বিষয়, আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো কি পারবো না জানি না। তবে আমাদের চেষ্টা থাকবে’ বলে আশা প্রকাশ করেন সিইসি।

দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন প্রসঙ্গে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, সব দেশেই তো এটা হচ্ছে। ভারতে হচ্ছে, যুক্তরাজ্য-যুক্তরাষ্ট্রেও দলীয় সরকারের অধীনেই নির্বাচন হচ্ছে। সরকার তো সরকারই। দল ভিন্ন জিনিস। আমরা সরকার ও দলের মধ্যে এ পার্থক্য এবং বিভাজনটা স্পষ্ট করতে পারলে সমস্যা অনেকাংশে কমে যাবে। কারণ, একটি দেশের সরকার পক্ষপাতিত্ব না করার শপথ নিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করে। সরকার সবসময়ই সম আচরণ করে। আমার বিশ্বাস, সরকার তার শপথটা ভালো করেই জানে।

back to top