alt

মুক্ত আলোচনা

গ্রামীণ অর্থনীতির বিকাশে নারীর ক্ষমতায়ন

জিনাত আরা আহমেদ

: সোমবার, ০৫ জুলাই ২০২১

রাষ্ট্রের আর্থিক কর্মকা- এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের মূলে রয়েছে গ্রামীণ অর্থনীতির সচলতা। এই সচলতার বিকাশে নারীরা বড় ভূমিকা পালন করে থাকেন। বহুযুগ আগে থেকেই এ দেশের সংস্কৃতিতে গ্রামীণ নারীরা উৎপাদনমূখী কর্মকাণ্ডে জড়িত। ঘরে রান্নার কাজে মূলত নারীরাই থাকেন। এই সূত্রে পিঠা-পায়েস থেকে শুরু করে খৈ, চিড়া, মুড়ি তৈরি এবং নানা ধরনের খাবারের ঘরোয়া আয়োজনে নারীদের অংশগ্রহণ। কিন্তু ঘরোয়া কাজের আর্থিক মূল্যায়ন না থাকায় এগুলো নারীর ক্ষমতায়নে তেমন প্রভাব ফেলেনি, অথচ নারীর ক্ষমতায়ন না হলে পরিবার পিছিয়ে যায়। পরিবার, সমাজ তথা রাষ্ট্রের অগ্রগতির পিছনে নারীর ক্ষমতায়ন অন্যতম নিয়ামক হিসেবে কাজ করে।

টেকসই উন্নয়ন অর্জনে বহুমূখী পদক্ষেপ জাতীয় অর্থনীতিকে বেগবান করেছে। এক্ষেত্রে সব উন্নয়ন পরিকল্পনায় অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভূমিকাকে ব্যাপক পরিসরে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্য নিয়ে সরকার কাজ করছে। এই প্রান্তিক জনগোষ্ঠীতে অসংখ্য নারী, বিশেষত গ্রামীণ নারীরা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে ভূমিকা রেখে চলেছেন। তাদের অর্জন জাতীয় প্রবৃদ্ধিতেও প্রভাব ফেলছে। গ্রাম বাংলায় কৃষি কাজ শুরু করে মাছ ধরা, গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগী পালন, ধান মাড়াই, চাল থেকে আটা বানানো সব কাজে রয়েছে নারীর অংশ গ্রহণ। অনেক ক্ষেত্রে নারী একাই এসব কাজ করে থাকে। তাই একথা বলার অপেক্ষা রাখে না গ্রামীণ অর্থনীতি মূলত নারীকেন্দ্রিক।

গ্রামীণ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সিংহভাগই নারীকেন্দ্রিক। এদেশে হস্ত শিল্পের প্রসারে গ্রামীণ নারীরাই প্রথমত এগিয়ে এসেছেন। এ অঞ্চলে মসলিন শিল্পের বয়ন থেকে শুরু করে তাঁত বস্ত্র তৈরির মতো অপ্রাতিষ্ঠানিক শিল্পের সূচনালগ্নে নারীরাই ভূমিকা রেখেছেন। গ্রামীণ নারীরা বহু আগে থেকেই সূচীশিল্প ও কারুশিল্পের সাথে যুক্ত ছিলেন। কাঁথা সেলাই এর মাধ্যমে গ্রামীণ নারীরা পরিবারে বাড়তি অর্থের জোগান দিয়েছেন। গবাদি পশু পালনের মাধ্যমে দুধ ও মাংসের জোগানদাতাও নারী। হাঁস-মুরগী পালনের মাধ্যমে নিজের হাত খরচের টাকা এবং অভাবের দিনে পুঁজি দিয়ে সাহায্য করা গ্রামের নারীদের জন্য সাধারণ বিষয়। গ্রামে অনেক নারী এখন ডালের বড়ি, আমসত্ত্ব তিলের নাড়ু, মোয়া ইত্যাদি বানিয়ে বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহ করে আয় করছেন। চাহিদা থাকায় মেয়েরা নিয়মিত কাজের সাথে এসব খাবার তৈরিও বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। গ্রামীণ নারীরা পরিবারে স্বচ্ছলতা আনতে ঘরের পাশে পতিত জমিতে নানারকম সবজি উৎপাদন করেও গ্রামীণ অর্থনীতিকে এগিয়ে নিচ্ছেন।

গ্রামীণ নারীরা শুধু খাদ্য ও কৃষিতেই নয়, বাংলাদেশের মতো উন্নয়ন্নশীল দেশের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন। দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করাসহ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও তাদের ভূমিকা রয়েছে। কৃষিভিত্তিক অর্থনীতিকে শিল্পভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তর করেছেন আমাদের গ্রামের নারীরা। পোষাক শিল্প বর্তমানে যে পর্যায়ে এসেছে, তার পেছনে মূখ্য ভূমিকা রেখেছেন গ্রামের প্রান্তিক নারীরা। বর্তমানে তারাই অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির প্রধান চালিকা শক্তি। পোষাক শিল্পকে কেন্দ্র করে ব্যাংক, বীমা, বন্দর, পরিবহন, পর্যটন, হোটেল সব শিল্পই বিকাশ লাভ করেছে।

নারীরা পরিবারের অন্যতম আর্থিক জোগানদাতা হওয়া সত্ত্বেও ক্ষমতায়নে একেবারেই পিছিয়ে। পারিবারিক উপার্জনে নারীদের অংশ গ্রহণ থাকাসত্ত্বেও ক্ষমতায়নের অভাবে গ্রামের অনেক নারী তাদের আর্থিক অধিকার ভোগ করতে পারছেন না। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে সিদ্ধান্ত গ্রহণে নারীর মতামতকে কখনো মূল্যায়ন করা হয় না, অথচ আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবার পাশাপাশি সিদ্ধান্ত নেয়ার সক্ষমতা অর্জন ক্ষমতায়নের প্রধান শর্ত। নারীর কাজের অধিকার এবং নিজের আয়ের উপর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সক্ষমতা তার ক্ষমতায়নকে সুসংহত করে। প্রকৃতপক্ষে প্রান্তিক নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমেই গ্রামীণ অর্থনীতির ক্রমোন্নতি সাধিত হয়।

প্রান্তিক তথা গ্রামীণ নারীদের সক্ষমতা অর্জনে সরকার সব ধরনের সুবিধার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। শিক্ষায় নারীদের শতভাগ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, নারীবান্ধব কর্ম পরিবেশ সৃষ্টি করা, আইন প্রণয়নের মাধ্যমে নারীদের সুরক্ষা ও অধিকার নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ অভাবনীয়। সরকার এসএমই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করে তোলা এবং তাদের কাজের প্রাতিষ্ঠানিক মূল্যায়নের সুযোগ করে দিয়েছেন। ব্যবসায়ে সমান সুযোগ তৈরি করার উদ্দেশ্যে ২০১১ সালে জাতীয় নারী নীতি গ্রহণ করা হয়। নারীর প্রতি সব ধরনের সহিসংতা রোধে ২০১২ সালে প্রণয়ন করা হয় পারিবারিক সহিংসতা দমন ও নিরাপত্তা আইন ২০১২। বাল্যবিবাহ নিরোধ করে মেয়ে শিশুদের সমাজে অগ্রগামী করার জন্য বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭ প্রণয়ন করা হয়েছে। এসব কিছুর মূল লক্ষ্যই হল নারীর সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা অর্জনে সহায়তা করা।

পারিবারিক অর্থের জোগান দিতে গ্রামের অনেক নারী এখন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে উদ্দ্যোক্তা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। দেশের দ্রুত ও সুষম উন্নয়নের জন্য গ্রামের প্রান্তিক নারী যারা অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে অতিক্ষুদ্র শিল্প নিয়ে কাজ করছেন তাদের জাতীয় অর্থনীতির মূলমেস্রোতে নিয়ে আসতে হলে সহজ শর্তে ঋণ দিতে হবে। কারণ ক্ষুদ্র্র শিল্পের জন্য খুব বেশি পুঁজি দরকার হয় না, তাছাড়া এতে কর্মসংস্থানও বেশি। কিন্তু পারিবারিক কারণে এবং আর্থিক সীমাবদ্ধতা থাকায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে গ্রামীণ নারীরা জামানত দিতে না পারায় অনেকেই ঋণ সুবিধা নিতে পারেন না। সম্প্রতি মন্ত্রিপরিষদে নারী উদ্দ্যোক্তাদের জামানত বিহীন ঋণ দানের সিদ্ধান্ত হয়েছে, যা গ্রামীণ নারী উদ্দ্যোক্তাদের জন্য অনেক আশাব্যঞ্জক। এক্ষেত্রে তাদের ঋণ দানে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা জরুরি। কারণ তারা ঋণের কিস্তি ফেরত দানে বৃহৎ শিল্পের তুলনায় অনেক বেশি তৎপর। এসব ছাড়াও পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) নারী উদ্দ্যোক্তাদের একটি নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত বিনা জামানতে ঋণ ও প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। গ্রামের প্রান্তিক নারীদের অনেকেই এসব ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে দারিদ্র্য জয় করেছেন।

দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির বিকাশে গ্রামীণ নারীদের আত্মবিশ^াসী হয়ে যোগ্যতার সাথে তাদের অর্জনকে তুলে ধরতে পারাই টেকসই উন্নয়নের মূল কথা। বিদ্যমান সুযোগ সুবিধা কাজে লাগিয়ে গ্রামীণ নারীরা যাতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে তৎপর হতে পারেন, সে জন্য তাদের মানসম্মত শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া জরুরি। অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী নারী শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে উপযুক্ত হয়ে ওঠেন। দেশের প্রতিটি গ্রামের হাজার হাজার নারীদের শ্রম ও উদ্দ্যোগে বিকাশমান অর্থনীতিকে প্রবৃদ্ধি হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করতে নারীর ক্ষমতায়নের কোনো বিকল্প নেই।

(পিআইডি-শিশু ও নারী উন্নয়নে যোগাযোগ কার্যক্রম বিষয়ক ফিচার)

ত্রৈমাসিক ‘অঙ্ক ভাবনা’

‘ই-এডুকেশন এন্ড লার্নিং’ এ বাংলাদেশের “গ্লোবাল আইসিটি এক্সসেলেন্স এওয়ার্ড” অর্জন ও করণীয়

ছবি

শেরেবাংলা মেডিক্যাল কলেজের ৫৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

ছবি

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়: গৌরবের ৫৫ বছর

আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী দিবস

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে গ্লোকোমিটারের সঠিক ব্যবহার জরুরি

ডায়াবেটিস অতিমারিতে বিশ্ব: রুখতে প্রয়োজন সচেতনতা

ছবি

বাংলায় প্রথম বিজ্ঞান বিষয়ক পাঠ্যপুস্তক প্রণেতা অক্ষয়কুমার দত্ত

ইন্টেলিজেন্ট ডিজাইন: বস্তুনিষ্ঠ নয়, ব্যক্তিনিষ্ঠ

গবেষণাতেই মিলবে জটিল রোগের সঠিক সমাধান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা দিবস

ছবি

হুদুড় দুর্গা : হিন্দুত্ব ও ব্রাহ্মণ্য আধিপত্যের বিরুদ্ধে সুপ্ত প্রতিবাদ

এই দুঃখ কোথায় রাখি?

বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস

ব্যাংক ইন্টারেস্ট কি সুদ, আরবিতে যা রিবা?

বিশ্ব শিক্ষক দিবস ও শিক্ষা পুনরুদ্ধারে শিক্ষকদের চ্যালেঞ্জ

তথ্য আমার অধিকার, জানা আছে কী সবার’- প্রেক্ষিত পর্যালোচনা

ছবি

ডিজিটাল বাংলাদেশ জননেত্রী শেখ হাসিনার এক সফল উন্নয়ন দর্শন

ছবি

ফুসফুসের সুরক্ষা এবং সুস্বাস্থ্যের উন্নয়ন

ছবি

চার সন্তান হত্যার দায়ে সাজাপ্রাপ্ত এক মা

নোভাভ্যাক্সের টিকাই এ মুহূর্তে সেরা

ছবি

বাংলাদেশে ফল উৎপাদন ও সম্ভাবনাময় বিদেশি ফল

ছবি

স্মরণ : তারেক মাসুদ, ‘ছবির ফেরিওয়ালা’

স্বাধীনতা সংগ্রামের অফুরান প্রেরণার উৎস মহীয়সী নারী ফজিলাতুন্নেছা মুজিব

ছবি

২১ বছরে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়

মার্কেটিং মাইওপিয়া

মানসিক সুস্থতা কতটা জরুরি?

ছবি

সৌন্দর্যের লীলাভূমি সিকিম

মায়ের বুকের দুধ পানে অগ্রগতি

মাটি দূষণ ও প্রতিকার ভাবনা

ছবি

আলাউদ্দিন আল আজাদ

ছবি

অনিরাপদ খাদ্য সুস্থ জীবনের অন্তরায়

সাঁওতাল বিদ্রোহ

হিন্দু সম্পত্তি দখলের অপচেষ্টা

ছবি

করোনাকালে নিরাপদ মাতৃত্ব

ছবি

পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু রোধ করতে চাই সচেতনতা

tab

মুক্ত আলোচনা

গ্রামীণ অর্থনীতির বিকাশে নারীর ক্ষমতায়ন

জিনাত আরা আহমেদ

সোমবার, ০৫ জুলাই ২০২১

রাষ্ট্রের আর্থিক কর্মকা- এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের মূলে রয়েছে গ্রামীণ অর্থনীতির সচলতা। এই সচলতার বিকাশে নারীরা বড় ভূমিকা পালন করে থাকেন। বহুযুগ আগে থেকেই এ দেশের সংস্কৃতিতে গ্রামীণ নারীরা উৎপাদনমূখী কর্মকাণ্ডে জড়িত। ঘরে রান্নার কাজে মূলত নারীরাই থাকেন। এই সূত্রে পিঠা-পায়েস থেকে শুরু করে খৈ, চিড়া, মুড়ি তৈরি এবং নানা ধরনের খাবারের ঘরোয়া আয়োজনে নারীদের অংশগ্রহণ। কিন্তু ঘরোয়া কাজের আর্থিক মূল্যায়ন না থাকায় এগুলো নারীর ক্ষমতায়নে তেমন প্রভাব ফেলেনি, অথচ নারীর ক্ষমতায়ন না হলে পরিবার পিছিয়ে যায়। পরিবার, সমাজ তথা রাষ্ট্রের অগ্রগতির পিছনে নারীর ক্ষমতায়ন অন্যতম নিয়ামক হিসেবে কাজ করে।

টেকসই উন্নয়ন অর্জনে বহুমূখী পদক্ষেপ জাতীয় অর্থনীতিকে বেগবান করেছে। এক্ষেত্রে সব উন্নয়ন পরিকল্পনায় অর্থনৈতিক উন্নয়নকে প্রাধান্য দিয়ে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভূমিকাকে ব্যাপক পরিসরে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্য নিয়ে সরকার কাজ করছে। এই প্রান্তিক জনগোষ্ঠীতে অসংখ্য নারী, বিশেষত গ্রামীণ নারীরা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে ভূমিকা রেখে চলেছেন। তাদের অর্জন জাতীয় প্রবৃদ্ধিতেও প্রভাব ফেলছে। গ্রাম বাংলায় কৃষি কাজ শুরু করে মাছ ধরা, গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগী পালন, ধান মাড়াই, চাল থেকে আটা বানানো সব কাজে রয়েছে নারীর অংশ গ্রহণ। অনেক ক্ষেত্রে নারী একাই এসব কাজ করে থাকে। তাই একথা বলার অপেক্ষা রাখে না গ্রামীণ অর্থনীতি মূলত নারীকেন্দ্রিক।

গ্রামীণ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের সিংহভাগই নারীকেন্দ্রিক। এদেশে হস্ত শিল্পের প্রসারে গ্রামীণ নারীরাই প্রথমত এগিয়ে এসেছেন। এ অঞ্চলে মসলিন শিল্পের বয়ন থেকে শুরু করে তাঁত বস্ত্র তৈরির মতো অপ্রাতিষ্ঠানিক শিল্পের সূচনালগ্নে নারীরাই ভূমিকা রেখেছেন। গ্রামীণ নারীরা বহু আগে থেকেই সূচীশিল্প ও কারুশিল্পের সাথে যুক্ত ছিলেন। কাঁথা সেলাই এর মাধ্যমে গ্রামীণ নারীরা পরিবারে বাড়তি অর্থের জোগান দিয়েছেন। গবাদি পশু পালনের মাধ্যমে দুধ ও মাংসের জোগানদাতাও নারী। হাঁস-মুরগী পালনের মাধ্যমে নিজের হাত খরচের টাকা এবং অভাবের দিনে পুঁজি দিয়ে সাহায্য করা গ্রামের নারীদের জন্য সাধারণ বিষয়। গ্রামে অনেক নারী এখন ডালের বড়ি, আমসত্ত্ব তিলের নাড়ু, মোয়া ইত্যাদি বানিয়ে বিভিন্ন জায়গায় সরবরাহ করে আয় করছেন। চাহিদা থাকায় মেয়েরা নিয়মিত কাজের সাথে এসব খাবার তৈরিও বিক্রি করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন। গ্রামীণ নারীরা পরিবারে স্বচ্ছলতা আনতে ঘরের পাশে পতিত জমিতে নানারকম সবজি উৎপাদন করেও গ্রামীণ অর্থনীতিকে এগিয়ে নিচ্ছেন।

গ্রামীণ নারীরা শুধু খাদ্য ও কৃষিতেই নয়, বাংলাদেশের মতো উন্নয়ন্নশীল দেশের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখছেন। দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করাসহ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনেও তাদের ভূমিকা রয়েছে। কৃষিভিত্তিক অর্থনীতিকে শিল্পভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তর করেছেন আমাদের গ্রামের নারীরা। পোষাক শিল্প বর্তমানে যে পর্যায়ে এসেছে, তার পেছনে মূখ্য ভূমিকা রেখেছেন গ্রামের প্রান্তিক নারীরা। বর্তমানে তারাই অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির প্রধান চালিকা শক্তি। পোষাক শিল্পকে কেন্দ্র করে ব্যাংক, বীমা, বন্দর, পরিবহন, পর্যটন, হোটেল সব শিল্পই বিকাশ লাভ করেছে।

নারীরা পরিবারের অন্যতম আর্থিক জোগানদাতা হওয়া সত্ত্বেও ক্ষমতায়নে একেবারেই পিছিয়ে। পারিবারিক উপার্জনে নারীদের অংশ গ্রহণ থাকাসত্ত্বেও ক্ষমতায়নের অভাবে গ্রামের অনেক নারী তাদের আর্থিক অধিকার ভোগ করতে পারছেন না। আমাদের দেশের প্রেক্ষাপটে সিদ্ধান্ত গ্রহণে নারীর মতামতকে কখনো মূল্যায়ন করা হয় না, অথচ আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হবার পাশাপাশি সিদ্ধান্ত নেয়ার সক্ষমতা অর্জন ক্ষমতায়নের প্রধান শর্ত। নারীর কাজের অধিকার এবং নিজের আয়ের উপর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সক্ষমতা তার ক্ষমতায়নকে সুসংহত করে। প্রকৃতপক্ষে প্রান্তিক নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমেই গ্রামীণ অর্থনীতির ক্রমোন্নতি সাধিত হয়।

প্রান্তিক তথা গ্রামীণ নারীদের সক্ষমতা অর্জনে সরকার সব ধরনের সুবিধার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। শিক্ষায় নারীদের শতভাগ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, নারীবান্ধব কর্ম পরিবেশ সৃষ্টি করা, আইন প্রণয়নের মাধ্যমে নারীদের সুরক্ষা ও অধিকার নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ অভাবনীয়। সরকার এসএমই ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করে তোলা এবং তাদের কাজের প্রাতিষ্ঠানিক মূল্যায়নের সুযোগ করে দিয়েছেন। ব্যবসায়ে সমান সুযোগ তৈরি করার উদ্দেশ্যে ২০১১ সালে জাতীয় নারী নীতি গ্রহণ করা হয়। নারীর প্রতি সব ধরনের সহিসংতা রোধে ২০১২ সালে প্রণয়ন করা হয় পারিবারিক সহিংসতা দমন ও নিরাপত্তা আইন ২০১২। বাল্যবিবাহ নিরোধ করে মেয়ে শিশুদের সমাজে অগ্রগামী করার জন্য বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭ প্রণয়ন করা হয়েছে। এসব কিছুর মূল লক্ষ্যই হল নারীর সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা অর্জনে সহায়তা করা।

পারিবারিক অর্থের জোগান দিতে গ্রামের অনেক নারী এখন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে উদ্দ্যোক্তা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। দেশের দ্রুত ও সুষম উন্নয়নের জন্য গ্রামের প্রান্তিক নারী যারা অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে অতিক্ষুদ্র শিল্প নিয়ে কাজ করছেন তাদের জাতীয় অর্থনীতির মূলমেস্রোতে নিয়ে আসতে হলে সহজ শর্তে ঋণ দিতে হবে। কারণ ক্ষুদ্র্র শিল্পের জন্য খুব বেশি পুঁজি দরকার হয় না, তাছাড়া এতে কর্মসংস্থানও বেশি। কিন্তু পারিবারিক কারণে এবং আর্থিক সীমাবদ্ধতা থাকায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে গ্রামীণ নারীরা জামানত দিতে না পারায় অনেকেই ঋণ সুবিধা নিতে পারেন না। সম্প্রতি মন্ত্রিপরিষদে নারী উদ্দ্যোক্তাদের জামানত বিহীন ঋণ দানের সিদ্ধান্ত হয়েছে, যা গ্রামীণ নারী উদ্দ্যোক্তাদের জন্য অনেক আশাব্যঞ্জক। এক্ষেত্রে তাদের ঋণ দানে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা জরুরি। কারণ তারা ঋণের কিস্তি ফেরত দানে বৃহৎ শিল্পের তুলনায় অনেক বেশি তৎপর। এসব ছাড়াও পল্লী কর্মসহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) নারী উদ্দ্যোক্তাদের একটি নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত বিনা জামানতে ঋণ ও প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। গ্রামের প্রান্তিক নারীদের অনেকেই এসব ঋণের কিস্তি পরিশোধ করে দারিদ্র্য জয় করেছেন।

দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির বিকাশে গ্রামীণ নারীদের আত্মবিশ^াসী হয়ে যোগ্যতার সাথে তাদের অর্জনকে তুলে ধরতে পারাই টেকসই উন্নয়নের মূল কথা। বিদ্যমান সুযোগ সুবিধা কাজে লাগিয়ে গ্রামীণ নারীরা যাতে সিদ্ধান্ত গ্রহণে তৎপর হতে পারেন, সে জন্য তাদের মানসম্মত শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া জরুরি। অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী নারী শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণে উপযুক্ত হয়ে ওঠেন। দেশের প্রতিটি গ্রামের হাজার হাজার নারীদের শ্রম ও উদ্দ্যোগে বিকাশমান অর্থনীতিকে প্রবৃদ্ধি হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করতে নারীর ক্ষমতায়নের কোনো বিকল্প নেই।

(পিআইডি-শিশু ও নারী উন্নয়নে যোগাযোগ কার্যক্রম বিষয়ক ফিচার)

back to top