alt

মুক্ত আলোচনা

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইন দুই লেনে উন্নীত করার কাজ দ্রুত শেষ করুন

: রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২

ছয় বছরেও শেষ হয়নি ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনের ৭২ কিলোমিটার অংশের দুই লেনে উন্নীত করার কাজ। রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আখাউড়া থেকে লাকসাম পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প ২০১৪ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পায়। প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালে, যা শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের জুন মাসে।

নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় প্রকল্পের মেয়াদ দুই দফা বাড়িয়ে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এ প্রকল্পের ৮৪ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে; কিন্তু এরই মধ্যে সাতবার প্রকল্প পরিচালক পরিবর্তন করা হয়েছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রকল্পটি যথাসময়ে বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণ হিসেবে মহামারি করোনা পরিস্থিতিকে সবচেয়ে বড় বাধা হিসেবে উল্লেখ করছেন সংশ্লিষ্টরা। ছিল জমি অধিগ্রহণ ও লোকজনকে পুনর্বাসন নিয়েও জটিলতা। এছাড়া সীমান্তবর্তী এলাকায় রেললাইন নির্মাণ নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। কসবা ও সালদা নদী এলাকায় সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে রেললাইন নির্মাণ নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ।

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনর দূরত্ব ৩২০ কিলোমিটারেরও বেশি। আগে থেকেই ১১৮ কিলোমিটার পর্যন্ত দুই লেনের ছিল। এরপর তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১৩১ কিলোমিটার দুই লেনে উন্নীত করা হয়। চলমান প্রকল্পের ৭২ কিলোমিটারের কাজ শেষ হলে পুরোটাই দুই লেন হয়ে যাবে। তখন ট্রেনে ঢাকা-চট্টগ্রাম যাতায়াতে অন্তত পৌনে এক ঘণ্টা সময় কম লাগবে। যাত্রীসাধারণ স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ করতে পারবেন, পণ্য পরিবহনেও বিশেষ সুবিধা পাওয়া যাবে। উভয় ক্ষেত্রেই সময় ও খরচ কমে যাবে। অথচ এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের কাজ বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে।

দেশে কোন প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ হওয়ার নজির খুব কমই রয়েছে। প্রকল্পের সময় যেমন বেড়ে যায়, তেমনি বেড়ে যায় ব্যয়ও। উক্ত প্রকল্পের পরিচালক সাতবার পরিবর্তন করতে হয়েছে কেন-সেটা একটা প্রশ্ন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বারবার প্রকল্প পরিচালকের পরিবর্তন হলে উন্নয়নকাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরিচালক প্রকল্প বাস্তবায়নে নেতৃত্বের ভূমিকায় থাকেন। তাই নেতা পাল্টে গেলে পরবর্তী কাজে দিকনির্দেশনা কার্যকরে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

প্রকল্প বাস্তবায়নের যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে তা দূর করতে হবে। যে কোনভাবেই হোক দ্রুত কাজ শেষ করতে হবে। ঢাকা-চট্টগ্রামে বাধাহীনভাবে ট্রেন চলাচলে প্রকল্পটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

কোটা সমাচার

বাজেট ২০২৪-২৫: তথ্যপ্রযুক্তি খাতের স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের যাত্রা শুরু হোক এবার

সীমান্ত সড়ক পশ্চাদপদ পার্বত্য অঞ্চলকে উন্নয়নের স্রোতধারায় একীভূত করেছে

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১: উন্নত ও সমৃদ্ধ আগামীর স্বপ্ন পূরণে বাংলাদেশের মহাকাশ জয়

ছবি

নাটোরের সম্ভাব্য জিআই পণ্য

রিলিফ

মুজিবনগরে স্বাধীনতার সূর্যোদয়

বঙ্গাব্দ প্রচলনের ইতিকথা

পহেলা বৈশাখ বাঙালির প্রাণের উৎসব

কেউতো অপেক্ষায় নেই

ফরগেট মি নট

ছবি

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ সমার্থক

স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে বীমা শিল্পের গুরুত্ব

একুশে ফেব্রুয়ারি আত্মপরিচয়ের দিন

দিদি, আপা, “বু” খালা

হিজল-করচ-আড়াংবন

ছবি

শেখ হাসিনা, এক উৎসারিত আলোকধারা

মনমাঝি

সেই ইটনা

ছবি

আংকর ওয়াট : উন্নত সভ্যতার স্মৃতিচিহ্ন যেখানে

নিয়ত ও নিয়তি

হারিয়ে যাওয়া ট্রেন

টম সয়ার না রবিনহুড

ছবি

‘ঝড়-বৃষ্টি আঁধার রাতে, আমরা আছি তোমার সাথে’

বাংলাদেশ-জাপান সহযোগিতা স্মারক: স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে অনন্য মাইলফলক

রাষ্ট্রের কূটনৈতিক মিশনের পরিবর্তন আশু প্রয়োজন

কুয়েতের জীবনযাত্রার সাতকাহন: পর্ব-১-বিয়ে

বিবেকের লড়াই

ছবি

ছবি যেন শুধু ছবি নয়

বাত ব্যথার কারণ ও আধুনিক চিকিৎসা

ছবি

স্বাধীন স্বদেশে মুক্ত বঙ্গবন্ধু

ছবি

মহান নেতার স্বভূমিতে ফিরে আসা

ছবি

মেট্রোরেল : প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী চিন্তার ফসল

ছবি

আমার মা

ডিজিটাল বাংলাদেশ: প্রগতিশীল প্রযুক্তি, অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নতি

ছবি

৩ নভেম্বর: ১৫ আগস্টের হত্যাকান্ডের ধারাবাহিকতা

tab

মুক্ত আলোচনা

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইন দুই লেনে উন্নীত করার কাজ দ্রুত শেষ করুন

রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২

ছয় বছরেও শেষ হয়নি ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনের ৭২ কিলোমিটার অংশের দুই লেনে উন্নীত করার কাজ। রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আখাউড়া থেকে লাকসাম পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প ২০১৪ সালে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পায়। প্রকল্পের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালে, যা শেষ হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের জুন মাসে।

নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়ায় প্রকল্পের মেয়াদ দুই দফা বাড়িয়ে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত এ প্রকল্পের ৮৪ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে; কিন্তু এরই মধ্যে সাতবার প্রকল্প পরিচালক পরিবর্তন করা হয়েছে। এ নিয়ে গণমাধ্যমে বিস্তারিত প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

প্রকল্পটি যথাসময়ে বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণ হিসেবে মহামারি করোনা পরিস্থিতিকে সবচেয়ে বড় বাধা হিসেবে উল্লেখ করছেন সংশ্লিষ্টরা। ছিল জমি অধিগ্রহণ ও লোকজনকে পুনর্বাসন নিয়েও জটিলতা। এছাড়া সীমান্তবর্তী এলাকায় রেললাইন নির্মাণ নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। কসবা ও সালদা নদী এলাকায় সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে রেললাইন নির্মাণ নিয়ে আপত্তি জানিয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ।

ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনর দূরত্ব ৩২০ কিলোমিটারেরও বেশি। আগে থেকেই ১১৮ কিলোমিটার পর্যন্ত দুই লেনের ছিল। এরপর তিনটি প্রকল্পের মাধ্যমে ১৩১ কিলোমিটার দুই লেনে উন্নীত করা হয়। চলমান প্রকল্পের ৭২ কিলোমিটারের কাজ শেষ হলে পুরোটাই দুই লেন হয়ে যাবে। তখন ট্রেনে ঢাকা-চট্টগ্রাম যাতায়াতে অন্তত পৌনে এক ঘণ্টা সময় কম লাগবে। যাত্রীসাধারণ স্বাচ্ছন্দ্যে ভ্রমণ করতে পারবেন, পণ্য পরিবহনেও বিশেষ সুবিধা পাওয়া যাবে। উভয় ক্ষেত্রেই সময় ও খরচ কমে যাবে। অথচ এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের কাজ বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে।

দেশে কোন প্রকল্পের কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ হওয়ার নজির খুব কমই রয়েছে। প্রকল্পের সময় যেমন বেড়ে যায়, তেমনি বেড়ে যায় ব্যয়ও। উক্ত প্রকল্পের পরিচালক সাতবার পরিবর্তন করতে হয়েছে কেন-সেটা একটা প্রশ্ন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বারবার প্রকল্প পরিচালকের পরিবর্তন হলে উন্নয়নকাজ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরিচালক প্রকল্প বাস্তবায়নে নেতৃত্বের ভূমিকায় থাকেন। তাই নেতা পাল্টে গেলে পরবর্তী কাজে দিকনির্দেশনা কার্যকরে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয়।

প্রকল্প বাস্তবায়নের যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে তা দূর করতে হবে। যে কোনভাবেই হোক দ্রুত কাজ শেষ করতে হবে। ঢাকা-চট্টগ্রামে বাধাহীনভাবে ট্রেন চলাচলে প্রকল্পটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

back to top