alt

অপরাধ ও দুর্নীতি

দলবদ্ধ ধর্ষণ ছাড়াও একাধিক নারীর শ্লীলতাহানি করে ডাকাত দল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক : সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

কুষ্টিয়া থেকে নারায়ণগঞ্জগামী ঈগল এক্সপ্রেসের বাসে ডাকাতি ও দলবদ্ধ ধর্ষণ ছাড়াও একাধিক নারী যাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন ডাকাত দলের সদস্যরা।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ১০ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের পর আজ সোমবার সংবাদ সম্মেলন করে এই তথ্য জানায় র‍্যাব। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, গতকাল রোববার ঢাকা, সাভার, গাজীপুর, সিরাজগঞ্জ, সাভার ও টাঙ্গাইলে অভিযান চালিয়ে ডাকাত চক্রটির ১০ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে মূল পরিকল্পনাকারী রয়েছেন।

র‍্যাবের বিবরণ অনুযায়ী, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন—মো. রতন হোসেন (২১), মো. আলাউদ্দিন (২৪), সোহাগ মন্ডল (২০), খন্দকার মো. হাসমত আলী (২১), বাবু হোসেন (২১), মো. জীবন (২১), আব্দুল মান্নান (২২), নাঈম সরকার (১৯), রাসেল তালুকদার (১৮) ও আসলাম তালুকদার (১৮)। তাঁদের মধ্যে রতন মূল পরিকল্পনাকারী। তাঁর বিরুদ্ধে ডাকাতির একাধিক মামলা রয়েছে।

র‍্যাব বলছে, বাসটিতে মোট ২৪ জন যাত্রী ছিলেন। তাঁদের মধ্যে পাঁচ থেকে ছয়জন ছিলেন নারী যাত্রী। তাঁদের মধ্যে একজনকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করেন ডাকাত দলের সদস্যরা। এ ছাড়া তাঁরা একাধিক নারী যাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এ কথা স্বীকার করেছেন।

খন্দকার আল মঈন বলেন, চক্রটির নেতা রতন। তিনি ছদ্মবেশে ২০১৮ সাল থেকে যাত্রীবাহী বাসসহ বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি করে আসছিলেন। তাঁর অধীনে ডাকাত চক্রটিতে ১৩ থেকে ১৫ জন সদস্য রয়েছেন। ডাকাতির ঘটনায় আগে তিনি দুই দুই দফায় কারাভোগ করেছেন। ৯ মাস আগে তিনি জামিনে বের হয়ে আসেন। আবার ডাকাতি শুরু করেন। এই সময় তাঁর পরিকল্পনা-নেতৃত্বে ১০ টির মতো ডাকাতের ঘটনা ঘটে। সবশেষ গত মঙ্গলবার রাতে ঈগল এক্সপ্রেসের চলন্ত বাসে তাঁর পরিকল্পনায় ডাকাতি হয়। বাসে ডাকাতিকালে দলবদ্ধ ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‍্যাব জানায়, বাসে ডাকাতির জন্য ৫ হাজার টাকার একটি প্রাথমিক তহবিল গঠন করা হয়। রতন এই টাকা সরবরাহ করেন। ২ আগস্ট টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা মোড় থেকে ছুরি, খুরসহ দেশি অস্ত্র কেনেন তিনি। পরিকল্পনা অনুযায়ী, তাঁর অন্যতম সহযোগী রাজু ডাকাতির জন্য অন্যদের জোগাড় করেন।

খন্দকার আল মঈন বলেন, সব ধরনের প্রস্তুতি শেষে ডাকাত দলের সদস্যরা বাসে ডাকাতের উদ্দেশ্যে সিরাজগঞ্জ মোড়ে অবস্থান নেন। যাত্রীবেশে রতন, রাজা, মান্নান ও নূর নবী বাসটিতে ওঠেন। পরবর্তীতে আরও দুই দফায় এই চক্রের বাকি সদস্যরা যাত্রী সেজে বাসে ওঠেন। তাঁরা বাসের পেছনের বিভিন্ন ফাঁকা সিটে অবস্থান নেন। বাসটি বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু অতিক্রম করলে রতনসহ অন্যরা চালক ও তাঁর সহকারীকে বেঁধে ফেলেন। তাঁরা বাসের নিয়ন্ত্রণ নেন। পরে তাঁরা দেশীয় অস্ত্রের মুখে বাসের যাত্রীদের হাত-পা-চোখ বেঁধে ফেলেন।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক বলেন, নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শুরুর দিকে রতন বাসটি চালাতে থাকেন। এলেঙ্গা এলাকায় আসার পর রতন চালকের সিট থেকে উঠে যান। তাঁর স্থলে চালকের সিটে বসে বাস চালাতে থাকেন রাজু। তাঁরা একে একে সব যাত্রীর কাছ থেকে নগদ অর্থ, মোবাইল, অলংকার ছিনিয়ে নেন। একপর্যায়ে তাঁরা বাসে থাকা এক নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ করেন। অন্য একাধিক নারী যাত্রীতে তাঁরা শ্লীলতাহানি করেন।

বাসে ডাকাতি ও দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় ইতিমধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁরা হলেন—রাজা মিয়া, আবদুল আওয়াল ও নুর নবী।

মুন্সীগঞ্জে হাসপাতালে ভর্তি কিশোরীকে ধর্ষণ, ওয়ার্ড বয় গ্রেফতার

ঘোড়াঘাটে মাদকাসক্ত ছেলের ৬ মাসের কারাদন্ড

ছবি

গভীর ষড়যন্ত্র হয়েছে, আমি নির্দোষ: জিকে শামীম

ছবি

স্বর্ণ চোরাচালান মামলা, চীনা নাগরিকের ৭ বছর কারাদণ্ড

ছবি

বনজ কুমারের বিরুদ্ধে বাবুল আক্তারের মামলার আবেদন খারিজ

ময়মনসিংহে মোটর সাইকেলের সাথে ধাক্কা লাগায় সিএনজি চালককে পিটিয়ে হত্যা

ছবি

জি কে শামীম ও ৭ দেহরক্ষীর যাবজ্জীবন, প্রথম মামলার রায়

সখীপুরে ভূমিহীন নারীর চেক নিয়ে প্রতারণা

ছবি

গৃহবধূকে ধর্ষণের চেষ্টা, গ্রেপ্তার এক

ছবি

আজ জি কে শামীমসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে রায়

ছবি

এক দশক পর ধরা পড়লেন ফাঁসির আসামি

ভোলায় স্ত্রীকে উক্তত্যের প্রতিবাদ করায় পুলিশ কনস্টেবলকে কূপিয়ে জখম

ধামইরহাটে সরকারী রাস্তা দখল করে স্থাপনা নির্মানের অভিযোগ

ড্রাইভার দেলোয়ার হোসেনকে অবশেষে গ্রেফতার করেছে পুলিশ

কারাগারে আটক জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান প্রার্থী মান্নানের নামে আরো ১ টি মামলা দায়ের

সাভারে ছুরিকাঘাতে যুবকের মৃত্যু

ছবি

ডিজিটাল প্রতারণার মাধ্যমে গ্রাহকের টাকা আত্মসাৎ করেন ই-অরেঞ্জের সোহেল

ছবি

পরিচয় পাল্টেও শেষ রক্ষা হলো না, ৮ বছর পর ধরা পড়লেন খুনের আসামি

নোয়াখালীতে অষ্টম শ্রেণির ছাত্রীকে গলা কেটে হত্যা

ছবি

পি কে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

ছবি

ইয়াবা পাচার মামলায় তৃতীয় লিঙ্গের রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন

ছবি

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক মাঝিকে কুপিয়ে হত্যা

ছবি

হোশি কুনিও হত্যা : ৪ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল, খালাস ১

‘ত্রুটিযুক্ত’ লিজে দুর্বলতা কী, খতিয়ে দেখছে দুদক

ছবি

সাংসদ জাফর আলম ও তার স্ত্রী-সন্তানকে জিজ্ঞাসাবাদ করল দুদক

ছবি

বিয়ের ৭ দিনের মাথায় স্ত্রীকে গলাকেটে খুন, স্বামীর যাবজ্জীবন

ছবি

ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধ চেয়ে হাইকোর্টে রিট

ছবি

দুই নারী মাদক কারবারি গ্রেপ্তার

রোগ নির্ণয়ে মেয়াদ উত্তীর্ণ রিএজেন্ট ব্যবহার: ৫০ হাজার টাকা জরিমানা

ছবি

সেলিম চেয়ারম্যানের জামিন স্থগিত, ৭ দিনের মধ্যে আত্মসমর্পণের নির্দেশ

ছবি

বহিষ্কৃত সেই সাত ডিবি পুলিশের ৭ বছরের কারাদণ্ড

ছবি

ভিজিএফের ২ ট্রাক চালসহ আটক ৩

উপজেলা চেয়ারম্যানের হুমকি ‘পাড়াইয়া মাইরালামু’

চট্টগ্রামে কয়েকশ’ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়া প্রতারক গ্রেপ্তার

সখীপুরে দ্বিতীয় বিয়ে করায় স্বামীর গোপনাঙ্গ কর্তন

র‌্যাবের অভিযানে অস্ত্রসহ ১১ ডাকাত গ্রেফতার

tab

অপরাধ ও দুর্নীতি

দলবদ্ধ ধর্ষণ ছাড়াও একাধিক নারীর শ্লীলতাহানি করে ডাকাত দল

নিজস্ব বার্তা পরিবেশক

সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২

কুষ্টিয়া থেকে নারায়ণগঞ্জগামী ঈগল এক্সপ্রেসের বাসে ডাকাতি ও দলবদ্ধ ধর্ষণ ছাড়াও একাধিক নারী যাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন ডাকাত দলের সদস্যরা।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ১০ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারের পর আজ সোমবার সংবাদ সম্মেলন করে এই তথ্য জানায় র‍্যাব। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এই সংবাদ সম্মেলন হয়।

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, গতকাল রোববার ঢাকা, সাভার, গাজীপুর, সিরাজগঞ্জ, সাভার ও টাঙ্গাইলে অভিযান চালিয়ে ডাকাত চক্রটির ১০ সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের মধ্যে মূল পরিকল্পনাকারী রয়েছেন।

র‍্যাবের বিবরণ অনুযায়ী, গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন—মো. রতন হোসেন (২১), মো. আলাউদ্দিন (২৪), সোহাগ মন্ডল (২০), খন্দকার মো. হাসমত আলী (২১), বাবু হোসেন (২১), মো. জীবন (২১), আব্দুল মান্নান (২২), নাঈম সরকার (১৯), রাসেল তালুকদার (১৮) ও আসলাম তালুকদার (১৮)। তাঁদের মধ্যে রতন মূল পরিকল্পনাকারী। তাঁর বিরুদ্ধে ডাকাতির একাধিক মামলা রয়েছে।

র‍্যাব বলছে, বাসটিতে মোট ২৪ জন যাত্রী ছিলেন। তাঁদের মধ্যে পাঁচ থেকে ছয়জন ছিলেন নারী যাত্রী। তাঁদের মধ্যে একজনকে দলবদ্ধভাবে ধর্ষণ করেন ডাকাত দলের সদস্যরা। এ ছাড়া তাঁরা একাধিক নারী যাত্রীর শ্লীলতাহানি করেন। গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা র‍্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এ কথা স্বীকার করেছেন।

খন্দকার আল মঈন বলেন, চক্রটির নেতা রতন। তিনি ছদ্মবেশে ২০১৮ সাল থেকে যাত্রীবাহী বাসসহ বিভিন্ন স্থানে ডাকাতি করে আসছিলেন। তাঁর অধীনে ডাকাত চক্রটিতে ১৩ থেকে ১৫ জন সদস্য রয়েছেন। ডাকাতির ঘটনায় আগে তিনি দুই দুই দফায় কারাভোগ করেছেন। ৯ মাস আগে তিনি জামিনে বের হয়ে আসেন। আবার ডাকাতি শুরু করেন। এই সময় তাঁর পরিকল্পনা-নেতৃত্বে ১০ টির মতো ডাকাতের ঘটনা ঘটে। সবশেষ গত মঙ্গলবার রাতে ঈগল এক্সপ্রেসের চলন্ত বাসে তাঁর পরিকল্পনায় ডাকাতি হয়। বাসে ডাকাতিকালে দলবদ্ধ ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‍্যাব জানায়, বাসে ডাকাতির জন্য ৫ হাজার টাকার একটি প্রাথমিক তহবিল গঠন করা হয়। রতন এই টাকা সরবরাহ করেন। ২ আগস্ট টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা মোড় থেকে ছুরি, খুরসহ দেশি অস্ত্র কেনেন তিনি। পরিকল্পনা অনুযায়ী, তাঁর অন্যতম সহযোগী রাজু ডাকাতির জন্য অন্যদের জোগাড় করেন।

খন্দকার আল মঈন বলেন, সব ধরনের প্রস্তুতি শেষে ডাকাত দলের সদস্যরা বাসে ডাকাতের উদ্দেশ্যে সিরাজগঞ্জ মোড়ে অবস্থান নেন। যাত্রীবেশে রতন, রাজা, মান্নান ও নূর নবী বাসটিতে ওঠেন। পরবর্তীতে আরও দুই দফায় এই চক্রের বাকি সদস্যরা যাত্রী সেজে বাসে ওঠেন। তাঁরা বাসের পেছনের বিভিন্ন ফাঁকা সিটে অবস্থান নেন। বাসটি বঙ্গবন্ধু বহুমুখী সেতু অতিক্রম করলে রতনসহ অন্যরা চালক ও তাঁর সহকারীকে বেঁধে ফেলেন। তাঁরা বাসের নিয়ন্ত্রণ নেন। পরে তাঁরা দেশীয় অস্ত্রের মুখে বাসের যাত্রীদের হাত-পা-চোখ বেঁধে ফেলেন।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক বলেন, নিয়ন্ত্রণ নিয়ে শুরুর দিকে রতন বাসটি চালাতে থাকেন। এলেঙ্গা এলাকায় আসার পর রতন চালকের সিট থেকে উঠে যান। তাঁর স্থলে চালকের সিটে বসে বাস চালাতে থাকেন রাজু। তাঁরা একে একে সব যাত্রীর কাছ থেকে নগদ অর্থ, মোবাইল, অলংকার ছিনিয়ে নেন। একপর্যায়ে তাঁরা বাসে থাকা এক নারীকে দলবদ্ধ ধর্ষণ করেন। অন্য একাধিক নারী যাত্রীতে তাঁরা শ্লীলতাহানি করেন।

বাসে ডাকাতি ও দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় ইতিমধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁরা হলেন—রাজা মিয়া, আবদুল আওয়াল ও নুর নবী।

back to top