alt

সম্পাদকীয়

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

: বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২২

সড়ক বা ফুটপাত দখলকে এক সময় মনে করা হতো শুধু মেগাসিটি ঢাকারই সমস্যা; কিন্তু এ সমস্যা এখন ছোট-বড় শহর-নগরগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী পৌরশহর বাজারের বিভিন্ন রাস্তা ব্যবসায়ীদের দখলে বলে জানা গেছে। ব্যবসায়ীরা তাদের চাহিদামতো রাস্তার উপর বিভিন্ন সামগ্রীর পসরা সজিয়ে বেচাকেনা করছেন। শুধু তাই নয়, ফল বাজারের দোকান মালিকরা রীতিমতো যার যার দোকানের সামনের রাস্তা ভাড়া দিয়ে মোটা অংকের টাকা কামাচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা যখন-তখন রাস্তায় ট্রাক থামিয়ে মালামাল খালাস করে। পৌর শহরে মালবাহী ট্রাক বা যনাবাহন ঢোকার নির্দিষ্ট যে সময়সীমা রয়েছে সেটা তারা মানছেন না। স্থানীয় প্রশাসনকেও এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। ফলে চরম ভোগন্তির শিকার হচ্ছে শহরের বাসিন্দারা। সৃষ্টি হচ্ছে দীর্ঘ যাটজটের। শিক্ষার্থীরা সময়মতো তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া-আসা করতে পারছে না। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে রোগী ও তার স্বজনদের।

সড়ক বা ফুটপাত দখলের এমন চিত্র শুধু টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীরই নয়। দেশের প্রায় সব বিভাগীয় শহরসহ জেলা শহরের একই অবস্থা। বাদ নেই উপজেলা শহরগুলোও। রাজাধানীর পার্শ্ববর্তী গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জের অবস্থা আরও খারাপ। ফুটপাত, সড়ক পেরিয়ে মাহাসড়কেও বসছে দোকান। আর এর সবকিছুই হচ্ছে প্রশাসনের নাকের ডগায়।

দখলের অপসংস্কৃতি দেশজুড়ে বিস্তৃত হয়েছে। গোড়াতেই যদি কোন সংক্রামক ব্যাধির চিকিৎসা করা না হয়, তাহলে রোগ হু হু করে ছড়াবে সেটাই স্বাভাবিক। রাস্তা, ফুটপাত দখলের অপসংস্কৃতি বিস্তৃত হওয়ার কারণ হচ্ছে এর বিরুদ্ধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। মাঝে মধ্যে লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তারপর আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে।

রাস্তা ও ফুটপাতকে কেন্দ্র করে কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য হয়। যাদের ওপর এ দখল উচ্ছেদের দায়িত্ব থাকে, তারাই এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান যতই চালানো হয় বাণিজ্যের পরিমাণ ততই বাড়তে থাকে। এটা বন্ধ না করলে রাস্তা বা ফুটপাত দখল স্থায়ীভাবে বন্ধ হবে না।

অপ্রয়োজনে সেতু, প্রয়োজনে নাই

শাবিপ্রবি সংকট : প্রকৃত কারণ কি জানা যাবে

বাঘ রক্ষায় বাংলাদেশের অর্জন কী

প্রশ্নফাঁস চক্রের শেকড় অনুসন্ধান করতে হবে

বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা : এই শিরোপা আমরা চাই না

গণপরিবহন শ্রমিকদের মনোজগতে কী ঘটছে

ইমিগ্রেশন পুলিশকে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে

অবৈধ ইটভাটা বন্ধের নির্দেশের বাস্তবায়ন দেখতে চাই

প্রেরণাদায়ী সাফল্য

কিশোর গ্যাং : দায়িত্ব নিতে হবে সবাইকেই

রেণু চিংড়ি আহরণ বন্ধ করুন

গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব কিসের জন্য

বঙ্গবন্ধু রেল সেতু : যথাসময়ে প্রকল্পের কাজ শেষ করুন

শাবিপ্রবির এ পরিস্থিতির দায় কার

ফগলাইট কেনায় দুর্নীতি

ভালো নির্বাচনের উদাহরণ

দিবাযত্ন কেন্দ্র হোক শিশুবান্ধব

পুলিশ কেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের বাড়ি বাড়ি যাচ্ছে

গ্যাস সিলিন্ডারে বেলুন ফোলানো বন্ধে অভিযান চালান

পাসপোর্ট পেতে কেন ঘুষ দিতে হবে

যাত্রী ছাউনিগুলো ব্যবহারের উপযোগী করুন

উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসকের উপস্থিতি নিশ্চিত করুন

প্রশ্নবিদ্ধ কারাগারের নিরাপত্তা

সেচ প্রকল্পের পুকুর ভরাট প্রসঙ্গে

কারখানা পরিদর্শন : সব পক্ষের পারস্পরিক সহযোগিতা প্রয়োজন

ভবদহের জলাবদ্ধতা : স্থানীয় বাসিন্দাদের আস্থায় নিয়ে কাজ করুন

বিধিনিষেধ ও গণপরিবহনের ভাড়া

হালদা রক্ষায় সমন্বিত পদক্ষেপ নিন

অনেক শিক্ষার্থী এখনো কেন পাঠ্যবই পায়নি

আতশবাজি ও পটকা : শব্দ দূষণের আরেক রূপ

সড়কে শৃঙ্খলা ফিরবে কবে

রক্ষিত বনের লক্ষ্য অর্জনে বাধা কোথায়

ফেলানী হত্যার বিচার প্রতীক্ষার অবসান ঘটুক

এই কি নিরাময় কেন্দ্র, না টর্চার সেল?

পরিবেশ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিন

ডিএসসিসির খাল পরিষ্কার প্রসঙ্গে

tab

সম্পাদকীয়

সড়ক দখলের অপসংস্কৃতি

বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২২

সড়ক বা ফুটপাত দখলকে এক সময় মনে করা হতো শুধু মেগাসিটি ঢাকারই সমস্যা; কিন্তু এ সমস্যা এখন ছোট-বড় শহর-নগরগুলোতে ছড়িয়ে পড়েছে। টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী পৌরশহর বাজারের বিভিন্ন রাস্তা ব্যবসায়ীদের দখলে বলে জানা গেছে। ব্যবসায়ীরা তাদের চাহিদামতো রাস্তার উপর বিভিন্ন সামগ্রীর পসরা সজিয়ে বেচাকেনা করছেন। শুধু তাই নয়, ফল বাজারের দোকান মালিকরা রীতিমতো যার যার দোকানের সামনের রাস্তা ভাড়া দিয়ে মোটা অংকের টাকা কামাচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে গত মঙ্গলবার সংবাদ-এ সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

ব্যবসায়ীরা যখন-তখন রাস্তায় ট্রাক থামিয়ে মালামাল খালাস করে। পৌর শহরে মালবাহী ট্রাক বা যনাবাহন ঢোকার নির্দিষ্ট যে সময়সীমা রয়েছে সেটা তারা মানছেন না। স্থানীয় প্রশাসনকেও এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায় না। ফলে চরম ভোগন্তির শিকার হচ্ছে শহরের বাসিন্দারা। সৃষ্টি হচ্ছে দীর্ঘ যাটজটের। শিক্ষার্থীরা সময়মতো তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া-আসা করতে পারছে না। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে রোগী ও তার স্বজনদের।

সড়ক বা ফুটপাত দখলের এমন চিত্র শুধু টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীরই নয়। দেশের প্রায় সব বিভাগীয় শহরসহ জেলা শহরের একই অবস্থা। বাদ নেই উপজেলা শহরগুলোও। রাজাধানীর পার্শ্ববর্তী গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জের অবস্থা আরও খারাপ। ফুটপাত, সড়ক পেরিয়ে মাহাসড়কেও বসছে দোকান। আর এর সবকিছুই হচ্ছে প্রশাসনের নাকের ডগায়।

দখলের অপসংস্কৃতি দেশজুড়ে বিস্তৃত হয়েছে। গোড়াতেই যদি কোন সংক্রামক ব্যাধির চিকিৎসা করা না হয়, তাহলে রোগ হু হু করে ছড়াবে সেটাই স্বাভাবিক। রাস্তা, ফুটপাত দখলের অপসংস্কৃতি বিস্তৃত হওয়ার কারণ হচ্ছে এর বিরুদ্ধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয় না। মাঝে মধ্যে লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। তারপর আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে আসে।

রাস্তা ও ফুটপাতকে কেন্দ্র করে কোটি কোটি টাকার বাণিজ্য হয়। যাদের ওপর এ দখল উচ্ছেদের দায়িত্ব থাকে, তারাই এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। লোক দেখানো উচ্ছেদ অভিযান যতই চালানো হয় বাণিজ্যের পরিমাণ ততই বাড়তে থাকে। এটা বন্ধ না করলে রাস্তা বা ফুটপাত দখল স্থায়ীভাবে বন্ধ হবে না।

back to top