alt

সম্পাদকীয়

রাজধানীর খাল রক্ষায় সুষ্ঠু পরিকল্পনা থাকতে হবে

: রোববার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রাজধানীর আরও ৩০টি খালের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে (ডিএসসিসি)। এর আগে ২৬টি খালের দায়িত্ব ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে দেয়া হয়েছিল। দায়িত্ব পাওয়ার পর সেসব খাল রক্ষায় নগর কর্তৃপক্ষ কতটা সফল হয়েছে সেই প্রশ্ন উঠেছে।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে রাজধানীর খালগুলো হস্তান্তরের কাজ শুরু হয় ২০২০ সালের শেষের দিকে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যরে কারণে অনেক খাল অস্তিত্ব হারিয়েছে, অনেকগুলো মৃতপ্রায়। এমন খালও রয়েছে যেগুলোর নাম শুধু কাগজে-কলমেই খুঁজে পাওয়া যায়। আশা করা হয়েছিল, সিটি করপোরেশন দায়িত্ব পেলে খালগুলো রক্ষা করা সহজ হবে। দায়িত্ব বুঝে পাওয়া খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযানও শুরু হয়।

রাজধানীর খাল সংস্কারের কাজে সিটি করপোরেশনের পরিকল্পনাহীনতার অভিযোগ রয়েছে। খাল কখন সংস্কার করা হবে, কতটুকু খনন করা হবে, ময়লা-আবর্জনা কোথায় ফেলা হবে প্রভৃতি কাজে তাদের সংশ্লিষ্টদের দূরদর্শীতার ঘাটতি রয়েছে। বর্ষার আগে সংস্কার করা হলে খালের গভীরতা বাড়ানো সহজ হয়। কিন্তু সময়মতো সংস্কারের কাজ করা হয় না বলে অভিযোগ রয়েছে। আবার যে কাজ করার কথা দুই মাসে, সেই কাজ কোনমতে এক মাসে করা হয়। বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রয়েছে দুর্বলতা। অপসারিত বর্জ্য খালের তীরেই ফেলে রাখা হয়। পরবর্তীতে সেই বর্জ্য আবারো খালে গিয়ে জমে। এজন্য খাল সংস্কারের পূর্ণাঙ্গ সুফল মিলছে না বা স্থায়ী হচ্ছে না। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়।

খাল থেকে বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। দেশে এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। কাজেই অপসারিত বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

টেকসইভাবে খাল সংস্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থাও করতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন কোনো খালে না যায়, সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে। রাজধানীর খাল রক্ষায় দুই সিটি করপোরেশন সফল হচ্ছে এমনটাই আমরা দেখতে চাই।

ভোলাডুবা হাওরের বোরো খেতের পানি নিষ্কাশনে ব্যবস্থা নিন

কিশোর গ্যাংয়ের প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে

আদমজী ইপিজেড সড়ক মেরামতে আর কত কালক্ষেপণ

নদ-নদীর নাব্য রক্ষায় কার্যকর ব্যবস্থা নিন

চকরিয়ায় পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

গরমে দুর্বিষহ জনজীবন

ভালুকায় খাবার পানির সংকট নিরসনে ব্যবস্থা নিন

সড়কে চাই সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

tab

সম্পাদকীয়

রাজধানীর খাল রক্ষায় সুষ্ঠু পরিকল্পনা থাকতে হবে

রোববার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩

রাজধানীর আরও ৩০টি খালের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে (ডিএসসিসি)। এর আগে ২৬টি খালের দায়িত্ব ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে দেয়া হয়েছিল। দায়িত্ব পাওয়ার পর সেসব খাল রক্ষায় নগর কর্তৃপক্ষ কতটা সফল হয়েছে সেই প্রশ্ন উঠেছে।

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে রাজধানীর খালগুলো হস্তান্তরের কাজ শুরু হয় ২০২০ সালের শেষের দিকে। অবৈধ দখল এবং বর্জ্যরে কারণে অনেক খাল অস্তিত্ব হারিয়েছে, অনেকগুলো মৃতপ্রায়। এমন খালও রয়েছে যেগুলোর নাম শুধু কাগজে-কলমেই খুঁজে পাওয়া যায়। আশা করা হয়েছিল, সিটি করপোরেশন দায়িত্ব পেলে খালগুলো রক্ষা করা সহজ হবে। দায়িত্ব বুঝে পাওয়া খালগুলো পরিষ্কার করার অভিযানও শুরু হয়।

রাজধানীর খাল সংস্কারের কাজে সিটি করপোরেশনের পরিকল্পনাহীনতার অভিযোগ রয়েছে। খাল কখন সংস্কার করা হবে, কতটুকু খনন করা হবে, ময়লা-আবর্জনা কোথায় ফেলা হবে প্রভৃতি কাজে তাদের সংশ্লিষ্টদের দূরদর্শীতার ঘাটতি রয়েছে। বর্ষার আগে সংস্কার করা হলে খালের গভীরতা বাড়ানো সহজ হয়। কিন্তু সময়মতো সংস্কারের কাজ করা হয় না বলে অভিযোগ রয়েছে। আবার যে কাজ করার কথা দুই মাসে, সেই কাজ কোনমতে এক মাসে করা হয়। বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় রয়েছে দুর্বলতা। অপসারিত বর্জ্য খালের তীরেই ফেলে রাখা হয়। পরবর্তীতে সেই বর্জ্য আবারো খালে গিয়ে জমে। এজন্য খাল সংস্কারের পূর্ণাঙ্গ সুফল মিলছে না বা স্থায়ী হচ্ছে না। এতে অর্থের যেমন অপচয় হয় তেমনি অভিযানের লক্ষ্য অধরাই থেকে যায়।

খাল থেকে বর্জ্য পরিষ্কার করার সঙ্গে সঙ্গেই সেগুলো অপসারণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। দেশে এখন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার অনেক অধুনিক যন্ত্রপাতি ও যানবাহন রয়েছে। কাজেই অপসারিত বর্জ্য খালের তীরে না রেখে সরাসরি এসব যানবাহনে উঠিয়ে সঙ্গে সঙ্গেই অপসারণ করা যায়।

টেকসইভাবে খাল সংস্কারের জন্য সমন্বিত কর্মসূচি হাতে নিতে হবে। শুধু নালা বা খাল পরিষ্কার করলেই সমস্যার স্থায়ী সমাধান হবে না। নগরের বসিন্দারা যাতে খালে বর্জ্য না ফেলেন সেই ব্যবস্থাও করতে হবে। পয়ঃবর্জ্য যেন কোনো খালে না যায়, সেটা কঠোরভাবে নিশ্চিত করতে হবে। রাজধানীর খাল রক্ষায় দুই সিটি করপোরেশন সফল হচ্ছে এমনটাই আমরা দেখতে চাই।

back to top