alt

সম্পাদকীয়

নার্স সংকট নিরসন করুন

: রোববার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৩

দেশে নার্স সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। আর এ সমস্যা দীর্ঘদিনের। নার্সিং অ্যান্ড মিডওয়াইফারি কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন নার্সের প্রয়োজন তিন লাখের বেশি। সেখানে নিবন্ধিত নার্স রয়েছে মাত্র ৮৪ হাজার। সে অনুযায়ী দেশে নার্স আছে মাত্র ২৮ শতাংশ।

প্রতি চিকিৎসকের বিপরীতে তিনজন নার্স থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র দশমিক ৩০ জন। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) মানদন্ড অনুযায়ী প্রতি দশ হাজার জনসংখ্যার বিপরীতে ২৩ জন নার্স থাকার কথা। বাংলাদেশে এ সংখ্যা তিনজন। যে কারণে একজন নার্সের কাজে যতটুকু চাপ নেয়ার কথা তার থেকে তাকে ছয়গুণ বেশি চাপ নিতে হচ্ছে। এর ফলে তিনি ক্লান্ত হয়ে পড়েন। কাজের প্রতি উৎসাহও হারিয়ে ফেলেন। তখন রোগীকে যতটুকু সেবাদান করার কথা ততটুকু তিনি করতে পারেন না।

স্বাস্থ্যসেবার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হচ্ছেন নার্স। ‘হেলথ ওয়াচ-বাংলাদেশ হিউম্যান রিসোর্সেস ফর হেলথ’ গবেষণা বলছে- মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার একেবারে কমিয়ে আনতে হলে দক্ষ চিকিৎসকের পাশাপাশি দক্ষ নার্সও প্রয়োজন। প্রশ্ন হচ্ছে- দেশে নার্সের সংখ্যা এত কম কেন?

নানা সমস্যার মধ্য দিয়ে ও বাড়তি চাপ নিয়েই স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে কাজ করছেন নার্সরা। পেশাগত জীবনে তাদের নানা চাপ নিতে হয়। সামাজিক ক্ষেত্রেও তাদের যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা হয় না। তাদের দিয়ে খুব কম বেতনে কাজ করিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০২১ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, দেশের ৮৬ শতাংশ নার্স অনুপযুক্ত পরিবেশে সেবা কাজে নিয়োজিত। কর্মজীবনে পদোন্নতি পান না ৭০ শতাংশ। অনেক ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক দ্বন্দ্বেও তারা মানসিক যন্ত্রণায় ভোগেন।

সরকারি যেসব প্রতিষ্ঠানে নার্সিং প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় সেখানে আসন সীমিত। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে খরচ বেশি। ফলে অনেকের পক্ষেই প্রশিক্ষণ নেওয়া সম্ভব হয় না। নার্সিং পেশা গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রয়োজন অনুযায়ী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলা এবং প্রশিক্ষণের ব্যয় মানুষের সাধ্যের মধ্যে রাখা দরকার। প্রশিক্ষণ শেষে তারা যখন কাজে যোগ দেবেন তখন তারা যেন জীবিকা নির্বাহের মতো বেতন-ভাতা পায় সেটাও নিশ্চিত করতে হবে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, পেশাগত কাজ করতে গিয়ে অনেক নার্স মানসিক উদ্বেগে ভোগেন। কর্মক্ষেত্রে তাদের মানসিক চাপ কমানোর ব্যবস্থা করা, কর্মঘণ্টা হ্রাস করা দরকার।

লঞ্চ চালাতে হবে নিয়ম মেনে

নতুন বছররে শুভচ্ছো

বিষ ঢেলে মাছ নিধনের অভিযোগ আমলে নিন

ঈদের আনন্দ স্পর্শ করুক সবার জীবন

মীরসরাইয়ের বন রক্ষায় সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া জরুরি

স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ বাড়ানো জরুরি

কৃষকরা কেন তামাক চাষে ঝুঁকছে

রেলক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায় কার

আর কত অপেক্ষার পর সেতু পাবে রানিশংকৈলের মানুষ^

পাহাড়ে ব্যাংক হামলা কেন

সিসা দূষণ রোধে আইনের কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

হার্টের রিংয়ের নির্ধারিত দর বাস্তবায়নে মনিটরিং জরুরি

রইচপুর খালে সেতু নির্মাণে আর কত অপেক্ষা

রাজধানীকে যানজটমুক্ত করা যাচ্ছে না কেন

জেলেরা কেন বরাদ্দকৃত চাল পাচ্ছে না

নিয়মতান্ত্রিক সংগঠনের সুযোগ থাকা জরুরি, বন্ধ করতে হবে অপরাজনীতি

ঢাকা-ময়মনসিংহ চার লেন সড়কের ক্ষতিগ্রস্ত অংশে সংস্কার করুন

শিক্ষা খাতে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে

স্লুইসগেটের ফাটল মেরামতে উদ্যোগ নিন

পরিবেশ দূষণ বন্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নিতে হবে

রংপুর শিশু হাসপাতাল চালু হতে কালক্ষেপণ কেন

দেশে এত খাবার অপচয়ের কারণ কী

রায়গঞ্জে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের দুর্ভোগ দূর করুন

প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে থাকা জনগোষ্ঠী নিয়ে ভাবতে হবে

জলাশয় দূষণের জন্য দায়ী কারখানার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন

নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা বন্ধ করুন

বহরবুনিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভবন নির্মাণে আর কত বিলম্ব

মশার উপদ্রব থেকে নগরবাসীকে মুক্তি দিন

সিলেট ‘ইইডি’ কার্যালয়ের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ

পাহাড় কাটা বন্ধ করুন

স্বাধীনতার ৫৪ বছর : মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা কতটা পূরণ হলো

চিকিৎসক সংকট দূর করুন

আজ সেই কালরাত্রি : গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি আদায়ে প্রচেষ্টা চালাতে হবে

সাতক্ষীরা হাসপাতালের ডায়ালাসিস মেশিন সংকট দূর করুন

পানি সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা জরুরি

আর কত অপেক্ষার পর বিধবা ছালেহার ভাগ্যে ঘর মিলবে

tab

সম্পাদকীয়

নার্স সংকট নিরসন করুন

রোববার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৩

দেশে নার্স সংকট প্রকট আকার ধারণ করেছে। আর এ সমস্যা দীর্ঘদিনের। নার্সিং অ্যান্ড মিডওয়াইফারি কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, দেশে এখন নার্সের প্রয়োজন তিন লাখের বেশি। সেখানে নিবন্ধিত নার্স রয়েছে মাত্র ৮৪ হাজার। সে অনুযায়ী দেশে নার্স আছে মাত্র ২৮ শতাংশ।

প্রতি চিকিৎসকের বিপরীতে তিনজন নার্স থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র দশমিক ৩০ জন। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) মানদন্ড অনুযায়ী প্রতি দশ হাজার জনসংখ্যার বিপরীতে ২৩ জন নার্স থাকার কথা। বাংলাদেশে এ সংখ্যা তিনজন। যে কারণে একজন নার্সের কাজে যতটুকু চাপ নেয়ার কথা তার থেকে তাকে ছয়গুণ বেশি চাপ নিতে হচ্ছে। এর ফলে তিনি ক্লান্ত হয়ে পড়েন। কাজের প্রতি উৎসাহও হারিয়ে ফেলেন। তখন রোগীকে যতটুকু সেবাদান করার কথা ততটুকু তিনি করতে পারেন না।

স্বাস্থ্যসেবার একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হচ্ছেন নার্স। ‘হেলথ ওয়াচ-বাংলাদেশ হিউম্যান রিসোর্সেস ফর হেলথ’ গবেষণা বলছে- মাতৃমৃত্যু ও শিশুমৃত্যুর হার একেবারে কমিয়ে আনতে হলে দক্ষ চিকিৎসকের পাশাপাশি দক্ষ নার্সও প্রয়োজন। প্রশ্ন হচ্ছে- দেশে নার্সের সংখ্যা এত কম কেন?

নানা সমস্যার মধ্য দিয়ে ও বাড়তি চাপ নিয়েই স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে কাজ করছেন নার্সরা। পেশাগত জীবনে তাদের নানা চাপ নিতে হয়। সামাজিক ক্ষেত্রেও তাদের যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা হয় না। তাদের দিয়ে খুব কম বেতনে কাজ করিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। ২০২১ সালের এক গবেষণায় দেখা গেছে, দেশের ৮৬ শতাংশ নার্স অনুপযুক্ত পরিবেশে সেবা কাজে নিয়োজিত। কর্মজীবনে পদোন্নতি পান না ৭০ শতাংশ। অনেক ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক দ্বন্দ্বেও তারা মানসিক যন্ত্রণায় ভোগেন।

সরকারি যেসব প্রতিষ্ঠানে নার্সিং প্রশিক্ষণ দেওয়া হয় সেখানে আসন সীমিত। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে খরচ বেশি। ফলে অনেকের পক্ষেই প্রশিক্ষণ নেওয়া সম্ভব হয় না। নার্সিং পেশা গ্রহণে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করতে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রয়োজন অনুযায়ী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র গড়ে তোলা এবং প্রশিক্ষণের ব্যয় মানুষের সাধ্যের মধ্যে রাখা দরকার। প্রশিক্ষণ শেষে তারা যখন কাজে যোগ দেবেন তখন তারা যেন জীবিকা নির্বাহের মতো বেতন-ভাতা পায় সেটাও নিশ্চিত করতে হবে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, পেশাগত কাজ করতে গিয়ে অনেক নার্স মানসিক উদ্বেগে ভোগেন। কর্মক্ষেত্রে তাদের মানসিক চাপ কমানোর ব্যবস্থা করা, কর্মঘণ্টা হ্রাস করা দরকার।

back to top