alt

সম্পাদকীয়

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

: বুধবার, ০২ জুন ২০২১

আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের অন্ত নেই। এমন কোন দিন নেই যেদিন এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় না। গতকাল মঙ্গলবার সংবাদে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। বরিশাল সদর উপজেলার রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়নের শোলনা গ্রামে ঘর বরাদ্দ পাওয়া ব্যক্তিরা নির্মাণ কাজ দেখে গভীর হতাশা প্রকাশ করেছেন। তাদের আশঙ্কা, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে যেভাবে ঘর তৈরি করা হচ্ছে তা টেকসই হবে না। আশ্রয়ণ প্রকল্পের এসব ঘর উঠলে একদিন ঘরচাপা পড়ে মারা যেতে হবে বলে তারা আশঙ্কা করছেন।

তাদের এ আশঙ্কা অমূলক নয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর ভেঙে পড়ার খবর গণমাধ্যমের কল্যাণে আমরা জেনেছি। খবর অনুযায়ী, প্রকল্পের অনেক ঘরই নির্মাণের কিছুদিন পরেই ভেঙে পড়েছে। লালমনিরহাটে একটি ঘরের চাল বাতাসে উড়ে গেছে, ভেঙে পড়েছে পিলার। আবার কোথাও কোথাও নির্মাণাধীন অবস্থায় ভেঙে পড়েছে প্রকল্পের ঘর। কুড়িগ্রামের রৌমারীতে প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই ভেঙে পড়েছে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর পাওয়া গেছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার কারণে ঘরগুলো ভেঙে গেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগীরা। পরিমাণমতো সিমেন্ট না দেয়ায় দেওয়াল ধসে পড়া, পলেস্তরা মজবুত না হওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে। সরকার গৃহহীন মানুষদের স্বপ্ন দেখিয়েছে যে, এসব ঘর তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই হবে, সেখানে তারা নিরাপদে বসবাস করবেন। বাস্তবে প্রকল্পের ঘর গৃহহীনদের দুঃস্বপ্ন ও দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

প্রকল্পের ঘর বণ্টনের ক্ষেত্রে অনিয়ম ও আর্থিক লেনদেনের খবর পাওয়া গেছে। ঘর পেতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকার আর্থিক লেনদেন হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ করা নিঃসন্দেহে একটি ভালো উদ্যোগ। কিন্তু দুর্নীতিবাজ লুটেরা একটি চক্রের কারণে সরকারের ভালো একটি উদ্যোগ মাঠে মারা যেতে বসেছে। গৃহহীনদের টেকসই ঘর দেয়ার উদ্যোগ সফল করতে হলে প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়ম-দুর্নীতি কঠোর হাতে দমন করতে হবে। অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে যে বা যারাই জড়িত থাক না কেন সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা জরুরি। ঘর নির্মাণ ও বণ্টনের সঙ্গে যুক্ত কর্তাব্যক্তিদের কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। প্রকৃত গৃহহীনরা যেন ঘর পান সেটা যে কোন মূল্যে নিশ্চিত করতে হবে।

জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে হয়রানি বন্ধ করুন

সীমান্তে করোনার সংক্রমণ কার উদাসীনতায়?

শিশুশ্রম : শ্রম আর ঘামে শৈশব যেন চুরি না হয়

মডেল মসজিদ প্রসঙ্গে

ঢাকার বাসযোগ্যতার আরেকটি করুণ চিত্র

পুঁজিবাজারে কারসাজি বন্ধে বিএসইসিকে কঠোর হতে হবে

উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া হতে হবে স্বচ্ছ

পাহাড়-বন কেটে আবার কেন রোহিঙ্গা ক্যাম্প

নিরীহ মানুষকে ফাঁসিয়ে মাদক নির্মূল করা যাবে না

গ্যাং কালচার থেকে শিশু-কিশোরদের ফেরাতে হবে

নিরাপদ খাদ্য প্রসঙ্গে

বস্তিতে আগুন : পুনরাবৃত্তি রোধে চাই বিদ্যুৎ-গ্যাসের বৈধ সংযোগ

নদী দূষণ বন্ধে চাই জোরালো উদ্যোগ

উদাসীন হলে চড়া মূল্য দিতে হবে

সমবায় সমিতির নামে প্রতারণার বিহিত করুন

নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে কোন কারণে

পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিকের গুদামগুলো সরিয়ে নিন

টিকা দেয়ার পরিকল্পনায় গলদ থাকলে ‘হার্ড ইমিউনিটি’ অর্জন করা সম্ভব হবে না

প্রকল্পের মেয়াদ ও ব্যয় বাড়ানোর মিছিলে ওয়াসা

সীমান্তবর্তী এলাকায় বাড়ছে করোনার সংক্রমণ : স্বাস্থ্যবিধিতে ছাড় নয়

জলাবদ্ধতা থেকে রাজধানীবাসীর মুক্তি মিলবে কবে

বাজেট : প্রাণ আর পেটের দায় মেটানোর অভিলাষ কি পূরণ হবে

মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতির কঠোর বাস্তবায়ন জরুরি

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

পদ্মা সেতুসংলগ্ন এলাকায় বালু তোলা বন্ধ করুন

গ্যাসকূপ খননে বাপেক্স কেন নয়

বরাদ্দ ব্যয়ে স্বাস্থ্য বিভাগের সক্ষমতা বাড়াতে হবে

সিলেটে দফায় দফায় ভূমিকম্প : সতর্ক থাকতে হবে

অনলাইন ব্যবসায় প্রতারণা বন্ধে আইনি ব্যবস্থা নিন

কার স্বার্থে বারবার কালোটাকা সাদা করার সুযোগ দেয়া হচ্ছে

মানুষ ও বন্যপ্রাণী উভয়কেই রক্ষা করতে হবে

উপকূলীয় অঞ্চলে টেকসই বাঁধ নির্মাণ করা হোক

করোনার পরীক্ষায় প্রতারণা প্রসঙ্গে

এখনও ডায়রিয়ায় ভুগছে মানুষ প্রতিরোধে চাই সচেতনতা

সীমান্তে শিথিল স্বাস্থ্যবিধি কঠোর হোন

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্তদের দ্রুত পুনর্বাসন করুন

tab

সম্পাদকীয়

গৃহহীনদের ঘর নির্মাণে অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ করুন

বুধবার, ০২ জুন ২০২১

আশ্রয়ণ প্রকল্প নিয়ে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের অন্ত নেই। এমন কোন দিন নেই যেদিন এ নিয়ে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় না। গতকাল মঙ্গলবার সংবাদে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। বরিশাল সদর উপজেলার রায়পাশা কড়াপুর ইউনিয়নের শোলনা গ্রামে ঘর বরাদ্দ পাওয়া ব্যক্তিরা নির্মাণ কাজ দেখে গভীর হতাশা প্রকাশ করেছেন। তাদের আশঙ্কা, নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে যেভাবে ঘর তৈরি করা হচ্ছে তা টেকসই হবে না। আশ্রয়ণ প্রকল্পের এসব ঘর উঠলে একদিন ঘরচাপা পড়ে মারা যেতে হবে বলে তারা আশঙ্কা করছেন।

তাদের এ আশঙ্কা অমূলক নয়। দেশের বিভিন্ন স্থানে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর ভেঙে পড়ার খবর গণমাধ্যমের কল্যাণে আমরা জেনেছি। খবর অনুযায়ী, প্রকল্পের অনেক ঘরই নির্মাণের কিছুদিন পরেই ভেঙে পড়েছে। লালমনিরহাটে একটি ঘরের চাল বাতাসে উড়ে গেছে, ভেঙে পড়েছে পিলার। আবার কোথাও কোথাও নির্মাণাধীন অবস্থায় ভেঙে পড়েছে প্রকল্পের ঘর। কুড়িগ্রামের রৌমারীতে প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার আগেই ভেঙে পড়েছে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির খবর পাওয়া গেছে। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার কারণে ঘরগুলো ভেঙে গেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগীরা। পরিমাণমতো সিমেন্ট না দেয়ায় দেওয়াল ধসে পড়া, পলেস্তরা মজবুত না হওয়ার মতো ঘটনা ঘটছে। সরকার গৃহহীন মানুষদের স্বপ্ন দেখিয়েছে যে, এসব ঘর তাদের মাথা গোঁজার ঠাঁই হবে, সেখানে তারা নিরাপদে বসবাস করবেন। বাস্তবে প্রকল্পের ঘর গৃহহীনদের দুঃস্বপ্ন ও দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

প্রকল্পের ঘর বণ্টনের ক্ষেত্রে অনিয়ম ও আর্থিক লেনদেনের খবর পাওয়া গেছে। ঘর পেতে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ৫ হাজার থেকে ১৫ হাজার টাকার আর্থিক লেনদেন হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ করা নিঃসন্দেহে একটি ভালো উদ্যোগ। কিন্তু দুর্নীতিবাজ লুটেরা একটি চক্রের কারণে সরকারের ভালো একটি উদ্যোগ মাঠে মারা যেতে বসেছে। গৃহহীনদের টেকসই ঘর দেয়ার উদ্যোগ সফল করতে হলে প্রকল্প বাস্তবায়নে অনিয়ম-দুর্নীতি কঠোর হাতে দমন করতে হবে। অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে যে বা যারাই জড়িত থাক না কেন সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করা জরুরি। ঘর নির্মাণ ও বণ্টনের সঙ্গে যুক্ত কর্তাব্যক্তিদের কাজে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রতিষ্ঠা করতে হবে। প্রকৃত গৃহহীনরা যেন ঘর পান সেটা যে কোন মূল্যে নিশ্চিত করতে হবে।

back to top